মন্ত্রিসভায় নতুন পে-স্কেল অনুমোদন । মূল বেতন সর্বোচ্চ ৭৮,০০০ ও সর্বনিম্ন ৮,২৫০ টাকা


759 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মন্ত্রিসভায় নতুন পে-স্কেল অনুমোদন । মূল বেতন সর্বোচ্চ ৭৮,০০০ ও সর্বনিম্ন ৮,২৫০ টাকা
সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৫ Uncategorized জাতীয় ফটো গ্যালারি শিক্ষা
Print Friendly, PDF & Email

ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক :
সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য নতুন পে-স্কেল অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। নতুন স্কেলে সর্বোচ্চ মূল বেতন ৭৮ হাজার টাকা (নির্ধারিত) আর সর্বনিম্ন মূল বেতন হবে আট হাজার ২৫০ টাকা। চলতি বছরের ১ জুলাই থেকে এ নতুন স্কেল কার্যকর হবে। এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকেরাও এর অন্তর্ভুক্ত হবেন।

আজ সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে নতুন এ বেতন স্কেল অনুমোদন করা হয়। এর আগে ২০০৯ সালে সর্বশেষ বেতন স্কেল দেওয়া হয়েছিল।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। তিনি বলেন, নতুন পে-স্কেলে ২০০৯ সালের স্কেলের মতোই ২০টি গ্রেড থাকবে।

সচিব বলেন, নতুন বেতন স্কেলে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের টাইম স্কেল ও সিলেকশন গ্রেড বাদ দেওয়া হয়েছে। তবে তাঁদের মূল বেতনের ওপর বার্ষিক প্রবৃদ্ধি নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ২০ থেকে ষষ্ঠ গ্রেড পর্যন্ত বার্ষিক প্রবৃদ্ধি হবে মূল বেতনের ৫ শতাংশ। পঞ্চম গ্রেডে বার্ষিক প্রবৃদ্ধি হবে সাড়ে ৪ শতাংশ। তিন ও চার নম্বর গ্রেডে প্রবৃদ্ধি হবে ৪ শতাংশ। গ্রেড দুই-এর বার্ষিক প্রবৃদ্ধি ৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ। আর এক নম্বর গ্রেডে কোনো প্রবৃদ্ধি হবে না।

মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা বলেন, মূল বেতনের বার্ষিক প্রবৃদ্ধি চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়বে। উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘ধরুন, কারও মূল বেতন ১০ হাজার টাকা। এক বছরে তাঁর ৫ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি হবে ৫০০ টাকা। প্রথম বছর শেষে ওই ব্যক্তির প্রবৃদ্ধিসহ বেতন দাঁড়াবে ১০,৫০০ টাকা। যেহেতু চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়বে, তাই দ্বিতীয় বছরে ওই ১০,৫০০ টাকার ওপর বার্ষিক প্রবৃদ্ধি হবে। এভাবে প্রত্যেক বছরই বার্ষিক প্রবৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। প্রতি বছরের ১ জুলাই সবার জন্য একই সঙ্গে বার্ষিক প্রবৃদ্ধি হবে।’

সচিব বলেন, পর্যালোচনায় দেখা গেছে আগে টাইম স্কেলে অনুযায়ী যে বেতন বাড়ত, নতুন পদ্ধতিতে তার চেয়ে বেশি বেতন বাড়বে।

নতুন বেতন স্কেলে এমপিওভুক্ত শিক্ষকেরা :
———————————————

নতুন এ বেতন স্কেলে এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকেরা অন্তর্ভুক্ত হবেন। তাঁরা গত ১ জুলাই থেকে নতুন স্কেলে বেতন ভাতা পাবেন। তবে, এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের বিষয়টি পর্যালোচনা ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অর্থ বিভাগ শিগগিরই প্রজ্ঞাপন জারি করবে।

নববর্ষ ভাতা চালু

ব্রিফিংয়ে মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা বলেন, নতুন পে-স্কেলে মন্ত্রিসভা, সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য বাংলা নববর্ষ ভাতা চালু হবে। দেশে ধর্মভিত্তিক উৎসব থাকলেও বাংলা নববর্ষ ভাতা সব সম্প্রদায়ের মানুষ একই সঙ্গে পাবে। এই ভাতা হবে মূল বেতনের ২০ শতাংশ। সচিব আরও বলেন, বাড়ি ভাড়া ছাড়া অন্যান্য বিশেষ ভাতা নির্ধারিত থাকবে।

থাকছে না কোনো শ্রেণি

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এত দিন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণিতে ভাগ করা হতো। নতুন পে-স্কেল অনুযায়ী, কোনো শ্রেণি থাকবে না। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নিজ নিজ গ্রেড দিয়েই পরিচিত হবেন।

বাড়ল অবসর সুবিধা

নতুন বেতন স্কেলে অবসর সুবিধা বাড়বে। ২০০৯ সালের পে-স্কেলে সরকারি চাকুরেরা অবসরের সময় মূল বেতনের ৮০ ভাগ পেনশন ভাতা পেতেন। নতুন স্কেলে মূল বেতনের ৯০ শতাংশ অবসর সুবিধা পাবেন।

তিন বাহিনী প্রধানের একই বেতন

নতুন পে-স্কেলে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমানবাহিনী প্রধানেরা একই স্কেলে বেতন ভাতা পাবেন। এর আগে সেনাপ্রধানের পদমর্যাদা অন্য দুই বাহিনীর প্রধানের চেয়ে বেশি ছিল। সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী তিন বাহিনী প্রধানের বেতন ও পদমর্যাদা একই রকম করার নির্দেশ দিয়েছেন। সেই নির্দেশ মোতাবেক তাঁদের বেতন ও পদমর্যাদা একই করা হয়েছে।

বাড়বে বেতন, বাড়বে ব্যয়

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা প্রথম বছর নতুন স্কেলে শুধু মূল বেতন পাবেন। এই বর্ধিত বেতনের অর্থ সংস্থান করতে চলতি বছরে সরকারকে ১৫ হাজার ৯০৪ কোটি ২৪ লাখ টাকা অতিরিক্ত ব্যয় করতে হবে। তবে, আগামী বছর কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা নতুন স্কেলে বেতন ও ভাতা পাবেন। এ জন্য সরকারকে ২৩ হাজার ৮২৮ কোটি ৫৭ লাখ টাকা অতিরিক্ত খরচ করতে হবে।