মাত্র ১০ মিনিটেই গায়ের রং ফর্সা


567 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মাত্র ১০ মিনিটেই গায়ের রং ফর্সা
সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৫ ফটো গ্যালারি স্বাস্থ্য
Print Friendly, PDF & Email

ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক :
গায়ের রং কিছুটা মলিন হলে যেন কষ্টের শেষ থাকে না। তাই কতো রকমের চেষ্টাই না করা হয়ে থাকে। এজন্য আমরা বিউটি পার্লারের স্কিন পলিশ বা ফেয়ার পলিশ নামক ব্যয়বহুল বিউটি ট্রিটমেন্ট, কসমেটিকসের ব্যবহার আরও কতকিী করে থাকি! কিন্তু এগুলো ত্বকের জন্য যে কতো ক্ষতিকর তা হয়তো আমরা জানি না! অনেকে আবার মেলানিন সার্জারি করে রঙ ফর্সা করে থাকে এটিও নিরাপদ নয়। তবে ঘরোয়া পদ্ধতিতে রঙ ফর্সা করার উপায় আছে। যা ত্বকের জন্য স্বাস্থ্যকর। প্রাকৃতিকভাবে দ্রুত গায়ের রং ফর্সা করবে এই প্যাক।

যা যা লাগবে

১/২ টেবিল চামচ টকদই

১ টেবিলচামচ শসার পেষ্ট

১ টেবিলচামচ গুঁড়া দুধ

যা করবেন

-প্রথমে মুখটি ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

-তোয়ালে দিয়ে মুখ মুছে নিন।

-এরপর টক দই, শসার পেষ্ট, গুঁড়া দুধ মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে ফেলুন।

-প্যাকটি ভাল করে মুখে লাগান। শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

-শুকিয়ে গেলে কসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

এখন আয়নায় নিজের মুখটা দেখুন। দেখবেন বেশ উজ্জ্বল দেখাচ্ছে। এর নিয়মিত ব্যবহারে প্রাকৃতিকভাবে আপনার গায়ের রং আগের চেয়ে অনেক বেশি উজ্জ্বল হবে।

কীভাবে কাজ করে

টক দই রোদে পোড়া দাগ দূর করে থাকে। এতে ভিটামিন সি, জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম আছে। যা ত্বকের রং ভিতর থেকে ফর্সা করে। এটি ত্বকে ময়েশ্চারাইজ ও এক্সফোলিয়েট করে থাকে। এ ছাড়া বলিরেখা দূর করতে টক দই এর জুড়ি নেই। শসার পেষ্ট ত্বককে ঠান্ডা অনুভূতি দিয়ে থাকে। ত্বকের কালো দাগ, চোখের নিচের দাগও দূর করে থাকে শসা। শসা ত্বকের খুব ভাল টোনার হিসেবে কাজ করে। অন্যদিকে গুঁড়ো দুধ ত্বকের দাগ দূর করে ত্বককে উজ্জ্বল ও মসৃণ করে থাকে।—সুত্র:- বাংলাদেশ প্রতিদিন।