মাদকের আখড়ায় পরিণত হচ্ছে মোহনপুর গ্রাম : ধ্বংস হচ্ছে যুব সামজ


352 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মাদকের আখড়ায় পরিণত হচ্ছে মোহনপুর গ্রাম : ধ্বংস হচ্ছে যুব সামজ
মার্চ ১২, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

রাশেদ রেজা তরুণ ::

সাতক্ষীরা সদরের মোহনপুর গ্রামের আব্দুল খালেক ওরফে ডন খালেক (৩৬) ও তার সহযোগীরা অবাধে বিক্রি করছে মাদকদ্রব্য ফেনসিডিল এবং ইয়াবা ট্যাবলেট। প্রতিদিন সাতক্ষীরার লাবসা, রেউই, মাধবকাটি, বলাডাঙ্গা, তুজলপুর, আখড়াখোলা, বল্লী ছাড়াও কলারোয়ার বিভিন্ন এলাকা থেকে শত শত মাদকসেবি মাদকদ্রব্য ক্রয় করছে খালেকের নিকট থেকে।

মাদকদ্রব্য বিক্রির অপরাধে সদর থানা পুলিশ তাকে কয়েকবার আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করলেও জামিনে বের হয়ে এসে আবারো শুরু করে মাদক বিক্রি।

মোহনপুর ও তুজলপুর গ্রামের আনিছ, নাছিরুল, কওছার, সাইফুল, সুমনসহ অনেকেই বলেন, ডন খালেক অভিনব কৌশল অবলম্বন করে ফেনসিডিল ও ইয়াবা বিক্রি করে যাচ্ছে।

সে কৃষকবেশে বিক্রি করছে মাদকদ্রব্য। মাঠে, ঘাটে কাজ করার নামে, খালে মাছ ধরতে বসে সে মাদকদ্রব্য বিক্রয় করছে। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মাদকসেবীদের নিরাপদ স্থান নির্ধারণ করে দেয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তুজলপুর বাজারের একাধিক ব্যবসায়ী জানান, মাদকদ্রব্য বিক্রয়ের ফলে দিন দিন অচেনা মানুষের আনাগোনা বেড়েই চলেছে। মাদক বিক্রয়ের ফলে যেমন বৃদ্ধি পাচ্ছে মাদকসেবীর সংখ্যা তেমনিই বৃদ্ধি পাচ্ছে এলাকায় চুরির ঘটনা।

এলাকাবাসী ধারনা করছে মাদকসেবীরা মাদকের টাকা জোগাড় করতে না পেরে চুরির ঘটনা সংগঠিত করছে। খালেকের বিরুদ্ধে কয়েকটি মাদক মামলাসহ অস্ত্র মামলা রয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য রহুল আমিন বলেন এলাকায় আবারো বৃদ্ধি পাচ্ছে মাদক বিক্রি। গত শনিবারও খালেক একটি গাড়িতে মাদকদ্রব্য লোড জেলার বাইরে পাঠিয়ে দিয়েছে বলে আমি শুনেছি।

আমরা সকলে মিলে যদি তার মাদকব্যবসা বন্ধ করতে না পারি তাহলে এলাকার যুবসমাজ ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে। উঠতি বয়সের যুবকেরা বিশেষ করে স্কুল, কলেজের ছাত্ররা মাদকের প্রতি আসক্ত হচ্ছে।

মোহনপুর গ্রামের একাধিক বাসিন্দা বলেন আমরা কয়েকবার খালেককে মাদক বিক্রি করতে নিষেধ করেছি এবং তাকে সতর্ক করেছি। কিন্তুু সে আমাদেরকে হুমকি প্রদান করে বলে তোদের বাড়িতে ফেনসিডিলের বোতল রেখে পুলিশের কাছে ধরিয়ে দেবো। তাছাড়া তার বিরুদ্ধে মার্ডারের মামলা রয়েছে। মানুষকে দা দিয়ে কুপাতেও ভয় পায় না।

ফলে ভয়ে আমরা কিছু বলতে পারিনা। সবাইকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে খালেক মাদকের রমরমা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

প্রশাসন কয়েকবার তাকে গ্রেফতার করলেও এলাকার একটি মহল তাকে ছাড়িয়ে আনে। খালেকের নিকট থেকে ঐ মহলটি নিয়মিত মাসোহারা গ্রহণ করে থাকে বলে একাধিক সূত্র থেকে জানা যায়।

এ বিষয়ে সদর থানার কয়েকজন এস আই এর সঙ্গে কথা হলে বলেন খালেকের মাদক বিক্রির কথা শুনেছি। তাকে গ্রেফতারের জন্য আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি।

এলাকাবাসী মাদক বিক্রেতা খালেক ও তার সহযোগীদেরকে অতি দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার জোর দাবি জানিয়েছেন। তা না হলে এলাকার যুবসমাজ ধ্বংস হয়ে যাবে।
##