মানবতার জীবনযাপন করছে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি আওতাভুক্ত প্রশক্ষিত ইলেকট্রিশিয়ানেরা


307 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মানবতার জীবনযাপন করছে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি আওতাভুক্ত প্রশক্ষিত ইলেকট্রিশিয়ানেরা
এপ্রিল ৬, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

রাশেদ রেজা তরুণ:
কাজের অভাবে মানবতার জীবন যাপন করছে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিরি প্রশিক্ষিত ইলেক্ট্রিশিয়ানেরা। বর্তমান ইলেক্ট্রিশিয়ান ছাড়াই চলছে অফিসিয়াল কার্যক্রম। পল্লী বিদ্যুতের আওতাধীন ইলেকট্রিশিয়ানেরা প্রতিষ্ঠানকে বিনামূল্যে সেবা প্রদান করে আসছে। বর্তমানে সাতক্ষীরা জেলার পল্লী বিদ্যুতের আওতাধীন তিন শতাধিক ইলেকট্রিশিয়ানের অফিসের কাজ বন্ধ হয়ে গেছে।
পল্লী বিদ্র্যতের গ্রাহক সেবা নিশ্চিত করার জন্য মাইকিং এর মাধ্যমে গ্রাহকদের অফিসে এসে সরাসরি টাকা জমা দেয়ার ঘোষনা দেয়। কিন্তুু তাতে লাভ হয়েছে বিভিন্ন জোনাল অফিসের পরিচালক, ওয়ারিং পরিদর্শকদের ওবং দালালদের।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ইলেকট্র্রিশিয়ান বলেন ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে জেনারেল ম্যানেজার রবিন্দ্র নাথ দাস যোগদানের পর থেকে প্রশিক্ষিত ইলেকট্রিশিয়ানদের অফিসে যাওয়ার পথ বন্ধ করে দেয়। অফিসে যাওয়ার পথ বন্ধ করায় এবং ওয়ারিং রিপোর্ট না লাগার কারনে কয়েকশত ইলেকট্রিশিয়ান বেকার হয়ে পড়েছে। অভাব অনটন আর না খেয়ে জীবন যাপন করছে প্রশিক্ষিত এসব ইলেকট্রিশিয়ানেরা।
কয়েকজন ইলেকট্রিশিয়ান আব্দুস সবুর, আব্দুল গফুর, মুনছুর, নজরুল, আব্দুর মুজিদ বলেন, দেশের সব জেলাগুলোতে গ্রাহকদের মিটারের জন্য পল্লী বিদ্যুতের আওতাধীন ইলেকট্রিশিয়ানের ওয়ারিং রিপোর্টের প্রয়োজন হয়। কিন্তুু সাতক্ষীরাতে বর্তমান কোন প্রকার ওয়ারিং রিপোর্ট ছাড়াই কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। পল্লী বিদ্যুতের আওতাধীন হওয়া সত্তেও আমাদের কোন নির্দিষ্ট বেতন দেয়া হয় না। আমরা পল্লী বিদ্যুতের জন্মলগ্ন থেকে বিনামূল্যে সেবা দিয়ে এসেছি। গ্রাহকদের কাজ করে ও রিপোর্ট প্রদান করে টাকা উপার্জন করে সংসার চালিয়েছি। ওয়ারিং রিপোর্ট ছাড়াই অফিসের কার্য়ক্রম করার কারনে আজ আমরা না খেয়ে, অভাব অনটনের মধ্য দিয়ে জীবন যাপন করছি। আমাদের ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাওয়ার পথে।
মানবতার জীবন যাপনকারী এসব ইলেকট্রিশিয়ানদের নায্য দাবি পূরন করে বেতনের আওতায় নিয়ে এসে তাদেও দ্বারা ওয়ারিং রিপোর্ট প্রদানের মাধ্যমে পুনরায় অফিসে যাওয়ার পথ সুগম করতে যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন ইলেকট্রিশিয়ানেরা।