মালয়েশিয়ার পার্লামেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হলেন মাহাথির মোহাম্মদ


370 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মালয়েশিয়ার পার্লামেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হলেন মাহাথির মোহাম্মদ
এপ্রিল ১৮, ২০১৮ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

শেখ সেকেন্দার আলী,মালয়েশিয়া ::

মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ দেশটির আসন্ন সংসদ নির্বাচনে রিসোর্ট দ্বীপ লাংগকাই এলাকা থেকে নির্বাচন করবেন।

আগামী ৯ মে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নির্বাচনকে সামনে রেখে বিরোধী জোট পাকাতান হারাপান মাহাথিরের প্রার্থিতা ঘোষণা করে। খবর সিনহুয়ার।

৯২ বছরের মাহাথির মালয়েশিয়ায় ২১ বছর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন।

কিন্তু বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্নের পর মাহাথির বিরোধী জোটের সঙ্গে জড়িত হন। রাজনীতি ছেড়ে অবসরে যাওয়ার অনেক বছর পর আবার নির্বাচন করতে যাচ্ছেন তিনি।

রাজনীতিতে যোগদানের আগে মাহাথির প্রথম জীবনে লাংগকাই দ্বীপে একজন মেডিকেল কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করেছিলেন।

পরবর্তী সময়ে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে দ্বীপটিকে তিনি দেশের প্রধান পর্যটন দ্বীপ হিসেবে গড়ে তোলেন।

আগামী ৯ মে মালয়েশিয়ায় সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। দেশটির নির্বাচন কমিশন (ইসি) মঙ্গলবার এ কথা জানিয়েছে।

৬১ বছর ধরে ক্ষমতাসীন ইউনাইটেড মালয়স ন্যাশনাল অর্গানাইজেশন (ইউএমএনও) জোটের জন্য এই নির্বাচন হতে পারে শক্ত পরীক্ষা। খবর রয়টার্সের

নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হাশিম আবদুল্লাহ এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, নির্বাচনের তারিখ আগামী ৯ মে ঠিক করা হয়েছে।

জানা যায়, ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত প্রার্থীদের মনোনয়নপ্রক্রিয়া চলবে। প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচার চালাতে পারবেন ১১ দিন ধরে।

কয়েক দিন ধরে চলা বিতর্কের পর মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব তুন রাজাক গত শুক্রবার পার্লামেন্ট বিলুপ্ত ঘোষণা করেন। প্রধানমন্ত্রী পদে সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদকে মনোনয়ন দিয়েছে বিরোধীদলীয় জোট।

নাজিব আবার ক্ষমতায় আসবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদকে আধুনিক মালয়েশিয়ার স্থপতি বলা হয়। তিনি ১৯৮১ সালে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেন। তার নেতৃত্বে ক্ষমতাসীন দল ইউএমএনও টানা পাঁচবার নির্বাচনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করে।

তিনি এশিয়ার সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ধরে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। টানা ২২ বছর পর ২০০৩ সালের ৩০ অক্টোবর তিনি স্বেচ্ছায় প্রধানমন্ত্রীর পদ ছেড়ে দেন। পরে তিনি দল থেকেও পদত্যাগ করেন।