মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ ও কুচক্রী মহলের ষড়যন্ত্র থেকে রেহায় পাওয়ার দাবীতে স সংবাদ সম্মেলন


358 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ ও  কুচক্রী মহলের  ষড়যন্ত্র থেকে রেহায় পাওয়ার দাবীতে স সংবাদ সম্মেলন
নভেম্বর ২৮, ২০১৫ দেবহাটা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
মিথ্যা, হয়রানি ও উদ্দেশ্যে প্রণোদিত সংবাদ প্রকাশ করা ও কুচক্রী মহলের ষড়যন্ত্র থেকে রেহায় পেতে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার দুপুরে দেবহাটা ধোপাডাঙ্গা গ্রামের মৃত ছবিয়ার রহমানের ছেলে আনারুল ইসলাম সম্মেলনে
লিখিত বক্তব্যে বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আর্দশকে বুকে লালন করি। ৎ

আমার জ্যোষ্ট কন্যা তাহেরা খাতুন মরণ ব্যাধি ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে পৌছে যায়। আমার পরিবার যখন তার বাঁচার আশা প্রায় ছেড়ে দিয়েছে তখন কালিগঞ্জ উপজেলার বিষ্ণপুর ইউনিয়নের নৌবাসপুর গ্রামের রুহুল আমিনের ছেলে রুহুল কুদ্দুস নামের এক হোমিও প্যাথিক চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায়। মহান আল¬াহর রহমত ও চিকিৎসকের ঐক্যন্তিক প্রচেষ্টায় আমার কন্যা পুরো-পুরি সুস্থ্য হয়ে ওঠে। এরপর আমি, আমার পরিবারের সদস্যরা ও স্থানীয় এলাকাবাসীর পরামর্শে আমার বাড়িতে ওই চিকিৎসকের জন্য একটি চেম্বার খুলে দেয়।

এরপর বিভিন্ন এলাকার রোগাক্রান্ত মানুষ এসে তার কাছ থেকে চিকিৎসা নিয়ে উপকৃত হতে থাকে। দেবহাটা উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল গণিসহ শত শত মানুষ তার কাছ থেকে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ্য আছেন। আর চিকিৎসা করার জন্য ফি বাবদ নেওয়া হয় মাত্র ৭০ টাকা। কিন্তু এভাবে মানুষ কে সেবা করাটা পছন্দ হয়নি স্থানীয় একটি কুচক্রী মহলের। তাদের পরামর্শক্রমে স্থানীয় পত্রিকার একজন সাংবাদিক। যিনি দেবহাটা এলাকার বিভিন্ন অপকর্মের হোতা।
তিনি ওই চিকিৎসকের চেম্বারে যেয়ে বলেন আমার এলাকায় থাকতে হলে আমাকে উৎকোচ দিতে হবে তা না হলে অবস্থা খারাব হবে। এসময় চিকিৎসক রুহুল কুদ্দুস বলেন মাত্র ৭০ টাকা ফি নিয়ে মাসে কত টাকা আয় করা যায়। আমি আপনাদের টাকা দেব কিভাবে।
তখন ওই সাংবাদিক নামধারী চাদাবাজ ব্যক্তি রেগে বেরিয়ে যান। এরপর তিনি স্থানীয় একটি দৈনিকে

গত ১৪ নভেম্বর একটি মিথ্যা ও বিভ্রান্তিমূলক সংবাদ প্রকাশ করেন এবং তিনি ওই সংবাদে আমার কন্যা ও আমার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নামে আপত্তিকর মন্তব্য করেন। আমার সন্তান ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা এলাকায় শান্ত ও শৃঙ্খল হিসেবে পরিচিত। অবৈধভাবে টাকা আদায় করতে না পেরে আমাদের নামে একের পর এক মিথ্যা সংবাদ প্রকাশে এলাকাবাসীসহ সচেতন মহল রীতিমত হতাশ হয়েছেন। উক্ত মিথ্যা হয়রানীর হাত  থেকে রক্ষা পেতে সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুপারের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।