মিয়ানমারে আরেক জ্যেষ্ঠ নেতা গ্রেপ্তার


256 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মিয়ানমারে আরেক জ্যেষ্ঠ নেতা গ্রেপ্তার
ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২১ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

অং সান সু চির দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) আরও এক জ্যেষ্ঠ নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী।

স্থানীয় সময় শুক্রবার ইয়াঙ্গুনের বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক নেতাদের প্রতি সেনাবাহিনীর আরও কঠোর হওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া গেল বলে বিবিসি জানিয়েছে।

গ্রেপ্তার উইন তেইনকে রাষ্ট্রদোহ আইনে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে এখন কোথায় রাখা হয়েছে তা বিস্তারিত জানা যায়নি।

গত সোমবার ভোরে মিয়ানমারে এনএলডির শীর্ষ নেতাদের আটক করে দেশে জরুরি অবস্থা জারি করে সেনাবাহিনী। এই সেনা অভ্যুত্থানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার-ইন-চিফ এবং সেনাপ্রধান মিন অং লাইং।

অং সান সু চিকে গ্রেপ্তারের পর এখন রিমান্ডে রাখা হয়েছে। তিনি এবং রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে আনা হয়েছে একাধিক অভিযোগ।

দেশটিতে এখন থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। সামরিক অভিযান, জরুরি অবস্থা ও শীর্ষ নেতাদের আটকের ঘটনায় জনগণের মনে ভর করেছে পুরোনো আতঙ্ক। সামরিক খাঁচায় থাকার স্মৃতি আবার তাড়া করে ফিরছে তাদের। দিন কাটছে উৎকণ্ঠা আর সংশয় নিয়ে।

সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখলের পর নড়েচড়ে বসেছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। শতাধিক এমপিসহ সব রাজবন্দির মুক্তির দাবি জানিয়েছে জাতিসংঘসহ বিশ্ব সম্প্রদায়।

গত ৮ নভেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে সু চির দল এনএলডি নিরঙ্কুশ জয় পায়। পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য যেখানে ৩২২টি আসনই যথেষ্ট, সেখানে এনএলডি পেয়েছিল ৩৪৬টি আসন। সোমবার থেকে নতুন পার্লামেন্টের অধিবেশন শুরু হওয়ার কথা ছিল।

এনএলডি নিরঙ্কশ জয় পেলেও সেনাবাহিনী সমর্থিত দল ইউনিয়ন সলিডারিটি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি (ইউএসডিপি) ভোটে প্রতারণার অভিযোগ তুলে ফলাফল মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে আসছিল। তারা নতুন করে নির্বাচন আয়োজনের দাবি তোলে। যদিও ইউএসডিপি ৭১টি আসনে জয় পেয়েছে।

‘নির্বাচনে জালিয়াতি’র প্রতিক্রিয়ায় দেশে জরুরি অবস্থা জারি করার মতো পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।