মোড়েলগঞ্জ সংবাদ ॥ স্কাউটিং বিষয়ক একদিনের কর্মশালা অনুষ্ঠিত


514 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মোড়েলগঞ্জ সংবাদ ॥ স্কাউটিং বিষয়ক একদিনের কর্মশালা অনুষ্ঠিত
আগস্ট ১৯, ২০১৬ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

এম.পলাশ শরীফ,মোড়েলগঞ্জ :
বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে কাপ স্কাউটিং বিষয়ক এক দিনের কর্মশালা। বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ কর্মশালায় আনুষ্ঠানিক উদ্বোাধন করেন ও সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ ওবায়দুর রহমান। প্রশিক্ষনে  আলোচনা করেন সহকারী কমিশনার (ভুমি) কর্মকর্তা মো. নাজমুল হুদা, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. আনিসুর রহমান, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আব্দুল হান্নান, জেলা স্কাউট সম্পাদক প্রশিক্ষক আসাদুল কবির, উপ পরিচালক বাংলাদেশ স্কাউট খুলনাঞ্চল মো. লফিত উদ্দিন আহমেদ, উপজেলা স্কাউট সম্পাদক খলিলুর রহমান, যুগ্ন সম্পাদক মো. আব্দুল আজিজ হাওলাদার প্রমূখ। এ সময় প্রশিক্ষনে উপজেলার ৫৩জন প্রশিক্ষার্ধী অংশ গ্রহন করেন প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের।  #

প্রতারণার অভিযোগ মোড়েলগঞ্জে নিকাহ্
রেজিষ্ট্রারসহ ৪ জনের নামে মামলা
এম.পলাশ শরীফ,মোড়েলগঞ্জ :
মোড়েলগঞ্জ উপজেলার তেলিগাতী ইউনিয়নে নিকাহ্ রেজিস্ট্রারসহ (কাজী) চারজনের নামে প্রতারণার মামলা হয়েছে।
বাগেরহাট সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ভুক্তভোগী মোড়েলগঞ্জ উপজেলার বৌলপুর গ্রামের হাকিম তালুকদারের ছেলে মো. জাকারিয়া তালুকদার বাদী হয়ে এ মামলা করেন।
মামলার বিবরণ ও ভুক্তভোগী পরিবার জানায়, ২০১৪ সালের ৮ সেপ্টেম্বর মোড়েলগঞ্জ উপজেলার বৌলপুর গ্রামের জাকারিয়া তালুকদারের সঙ্গে একই উপজেলার খালকুলা গ্রামের অলিয়ার রহমানের মেয়ে মোসা. মারজানা আক্তারের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় নিকাহ রেজিষ্ট্রার হিসেবে আসা দৈবজ্ঞহাটি ইউনিয়নের খালকুলা গ্রামের মাওলানা আব্বাস আলী জোমাদ্দার ৪৪ হাজার ৯শ’ ৯৯ টাকা দেনমোহরে তাদের বিয়ে রেজিষ্ট্রি করেন। বিয়ের কিছুদিন  পর তাদের সংসারে বিরোধ দেখা দেয়। এরই ধারাবাহিকতায়  গত ২৮ জুলাই  মারজানা আক্তার বাদী হয়ে জাকারিয়া তালুকদার ও তার মাকে আসামি করে একটি যৌতুক মামলা করেন। আর এই মামলার সঙ্গে ১ লাখ ৪৪ হাজার ৯শ’ ৯৯ টাকা দেনমোহর লেখা একটি বিয়ে রেজিষ্ট্রির নকল দাখিল করেন। এই নকলের অসংলগ্ন তথ্য দেখে জাকারিয়া তালুকদার ও তার পরিবারসহ বিয়ের দিন উপস্থিত থাকা সবাই হতবাক হয়ে যান। ছেলে পক্ষ খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন মূল নিকাহ্ রেজিস্ট্রার তলিগাতী ইউনিয়নের হাফেজ মনিরুজ্জামান। তার রেজিষ্ট্রার বই নিয়ে বিয়ে রেজিষ্ট্রি করেন মাওলানা আব্বাস আলী।
জাকারিয়া তালুকদার নিকাহ্ রেজিষ্ট্রির নকল আনতে মনিরুজ্জামানের কাছে গেলে তাকে ১ লাখ ৪৪ হাজার ৯শ’ ৯৯ টাকা দেনমোহর লেখা, কন্যা তালাক প্রাপ্তা এবং বিয়ে পড়িয়েছেন কাজী মনিরুজ্জামান উল্লেখ করে একটি নকল কপি দেন। যার সঙ্গে মারজানার যৌতুক মামলায় দাখিল করা নকলের  অনেক অমিল দেখা যায়। জাকারিয়া তালুকদার দু’টি নকল দুই রকম কেন জানতে চাইলে নিকাহ্ রেজিস্ট্রার মনিরুজ্জামান এ বিষয়ে বেশি বাড়াবাড়ি না করতে বলে তাকে অফিস থেকে বের করে দেন। নিরুপায় হয়ে জাকারিয়া তালুকদার বাগেরহাট সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নিকাহ রেজিস্ট্রারসহ ৪ জনের নামে মামলা দায়ের করেন। (মামলা নং- সি অর -১৬০/১৬)।
এ বিষয়ে নিকাহ রেজিস্ট্রার হাফেজ মনিরুজ্জামানের কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রথমে এ ঘটনার জন্য মাওলানা আব্বাস আলী দায়ী বলে জানান।
তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে তেলিগাতি ইউনিয়নের একাধিক ব্যক্তি জানান কাজী (নিকাহ্ রেজিস্ট্রার) হাফেজ মনিরুজ্জামান এধরনের অনেক ঘটনাই ঘটিয়ে থাকে। তাকে কেউ কিছু বলতে সাহস পায় না।
জেলা রেজিস্ট্রার মো. মনিরুল হক জানান, বিষয়টি তার জানা নেই। তবে অভিযোগ পেলে তদন্তের পর মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
মোড়েলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রাশেদুল আলম জানান, আদালতে যে মামলা দায়ের করা হয়েছে তার নথি পেয়েছি। তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে। ##