মৌসুমি নেতারা উধাও,তৃণমূলে মন্ত্রী-এমপি


88 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
মৌসুমি নেতারা উধাও,তৃণমূলে মন্ত্রী-এমপি
জুন ৩, ২০১৯ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ঈদ রাজনীতি

অনলাইন ডেস্ক ::

আওয়ামী লীগ ঘরানার রাজনীতিতে ঈদের আনন্দ-উচ্ছ্বাস এবার নতুন মাত্রা পেতে চলেছে। গতবারের মতো এবার আর তৃণমূল পর্যায়ে ঘটা করে ভিড় জমাতে দেখা যাচ্ছে না মৌসুমি নেতাদের। বলতে গেলে রীতিমতো উধাও হয়ে গেছে তারা। তবে থেমে নেই মন্ত্রী-এমপিসহ নির্বাচিত প্রতিনিধিরা। প্রতি ঈদের মতো এবারও তারা জনগণের পাশাপাশি দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করছেন।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে চার হাজার ২৩ জন নেতা ৩০০ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন। প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার লক্ষ্যে বিশেষ করে গত ঈদে নির্বাচনী এলাকায় সরব ছিলেন তারা। নিজেদের অবস্থান তারা তুলে ধরেছেন নেতাকর্মীদের সঙ্গে একাত্ম হয়ে। কিন্তু এবারের ঈদে নির্বাচনী এলাকাগুলোতে তাদের অনুপস্থিতি চোখে পড়ার মতো।

অবশ্য ভিন্ন চিত্রও রয়েছে। বর্তমান মন্ত্রিসভায় বেশিরভাগ সদস্যই নতুন। এমপিদের অনেকে এবারই প্রথমবারের মতো সংসদে এসেছেন। এই নতুন মন্ত্রী ও এমপিরা তাদের প্রথম ঈদ আনন্দে ভিন্ন মাত্রা আনতে চাইছেন। তাদের অনেকেই তাই এবার বেশ আগেভাগে নির্বাচনী এলাকায় নিজেদের সরব উপস্থিতি নিশ্চিত করেছেন।

নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করছেন। স্থানীয় জনগণের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ রাখছেন। গরিব-দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

তবে তৃণমূল রাজনীতিতে বর্তমানে এক ধরনের অস্বস্তি বিরাজ করছে। প্রায় প্রতিটি সাংগঠনিক জেলা ও উপজেলায় গৃহদাহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ক্ষোভ-অসন্তোষের চিত্র ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে। নেতাকর্মীরা দ্বন্দ্ব-বিবাদে জড়িয়ে রয়েছেন। সাম্প্রতিক সময়ে উপজেলা নির্বাচনের পর দলীয় কলহের চিত্র রীতিমতো প্রকট রূপ নিয়েছে। এ নিয়ে একাধিক মন্ত্রীসহ উল্লেখযোগ্যসংখ্যক এমপির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে অভিযোগের পাহাড় জমেছে।

এই অবস্থায় আগামী ১৮ জুন ১৪ জেলার ১৬টি উপজেলায় উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ উপজেলাগুলো হচ্ছে- গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ, নাটোরের নলডাঙ্গা, সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ, বরগুনার তালতলী, পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী, গাজীপুর সদর, নারায়ণগঞ্জের বন্দর, মাদারীপুর সদর, রাজবাড়ীর কালুখালী, শেরপুরের নকলা, হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর, বাঞ্ছারামপুর, কুমিল্লার আদর্শ সদর, সদর দক্ষিণ এবং নোয়াখালী সদর উপজেলা।

গত ৩০ মে এসব উপজেলার নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের সময়সীমা পেরিয়ে গেছে। সেই সঙ্গে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে আরেক দফায় আওয়ামী লীগের গৃহদাহ পরিস্থিতি স্পষ্ট হয়েছে। চেয়ারম্যান পদে কয়েকটি উপজেলায় দলের একক প্রার্থী থাকলেও বিদ্রোহের স্পষ্ট ছোঁয়া আছে অনেক উপজেলায়। এ নিয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে দ্বন্দ্ব-বিবাদ তৈরি হয়েছে। দলের স্থানীয় এমপিদের কেউ কেউ বিদ্রোহী প্রার্থীর সঙ্গে একাট্টা হয়েছেন। ঈদের রাজনীতিতে এ বিষয়টি বেশ প্রভাব ফেলবে।

এই অবস্থায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কিছু কিছু ক্ষেত্রে তৃণমূল পর্যায়ের রাজনীতিতে অল্প-বিস্তর সংকট ও সমস্যা রয়েছে। এই কলহ ও কোন্দলে দলের ক্ষতি হবে। সাংগঠনিকভাবে বিএনপি দুর্বল বলেই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা শৈথিল্য দেখাচ্ছে। নিজেদের মধ্যে বিবাদে জড়িয়ে পড়ছে। কিন্তু এটা সুখকর নয়। মনে রাখতে হবে, সময় সবার সব সময় সমান যায় না। তাই গৃহদাহে না জড়িয়ে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা প্রতি বছর ঈদের দিন নেতাকর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এবার তিনি ঈদের সময়ে দেশে থাকছেন না। জাপান সফর শেষে তিনি এখন সৌদি আরবে অবস্থান করছেন। ঈদের সময় থাকবেন ফিনল্যান্ডে। আগামী ৮ জুন তার দেশে ফিরে আসার কথা। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঈদের ছুটিতে জনগণের পাশে থাকার জন্য দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন বলে একাধিক শীর্ষ নেতা নিশ্চিত করেছেন।

আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতা বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী দেশে নেই। তাই তার সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য মন্ত্রী-এমপিসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের এবার রাজধানীতে থাকতে হচ্ছে না। তাদের অনেকেই ইতিমধ্যে নির্বাচনী এলাকায় চলে গেছেন। তবে আগামী ১১ জুন বাজেট অধিবেশন শুরুর আগেই তাদের ঢাকায় ফিরে আসার তাগিদ দেওয়া হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে মন্ত্রী ও এমপিরা আগামী অক্টোবরে অনুষ্ঠেয় দলের জাতীয় সম্মেলন নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ের প্রস্তুতি সম্পন্ন করবেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক জানিয়েছেন, মানুষ শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগকে আরেক দফায় বিপুল ভোটে নির্বাচিত করেছে। নতুন সরকারের এটাই প্রথম ঈদ। তাই এ সময় মানুষের কাছে যেতে হবে। তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে হবে। সর্বস্তরের মানুষকে উন্নয়নমূলক কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করতে হবে। স্বাধীনতাবিরোধীদের চক্রান্ত রুখতে হবে।

এদিকে আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ূয়া বলেছেন, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঈদের দিন সকালে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।

সূত্র : দৈনিক সমকাল।