রাজনীতি ছাড়লেন বিএনপির শমসের


310 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
রাজনীতি ছাড়লেন বিএনপির শমসের
অক্টোবর ২৯, ২০১৫ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক :

বিএনপির সব পদ থেকে সরে দাঁড়িয়ে রাজনীতি থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মবিন চৌধুরী, যিনি দলের শীর্ষ নেতৃত্বের খুবই ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি জানান, অবসরে যাওয়ার বিষয়টি জানিয়ে তিনি দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে একটি ‘চিঠি’ লিখেছেন। বুধবার রাতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের হাতে ওই চিঠি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

“আমি যুদ্ধাহত একজন মুক্তিযোদ্ধা। শারীরিকভাবে এখন আর রাজনীতি করার মতো অবস্থায় নেই। এ কারণে বিএনপির সব পদ থেকে পদত্যাগ করে অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এখন থেকেই তা কার্যকর হবে।”

বীর বিক্রম খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা শমসের মবিন একাত্তরে সেনাবাহিনীর লেফটেন্যান্ট পদে ছিলেন। মেজর পদে থাকা অবস্থায় তার চাকরি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত করা হয়।

বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়ে শমসের মবিন চৌধুরীকে পররাষ্ট্র সচিবের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ২০০৫ সালে তাকে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত করে পাঠানো হয় যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে দুই বছর দায়িত্ব পালন শেষে ২০০৭ সালে তিনি অবসরে যান।

২০০৮ সালে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করে বিএনপিতে যোগ দেন শমসের মবিন চৌধুরী। সে সময় চেয়ারপারসনের পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টার দায়িত্ব পান তিনি।

২০০৯ সালে বিএনপির কাউন্সিল হলে শমসের মবিনকে দলের ভাইস চেয়ারম্যান করা হয়। কখনো নির্বাচনে অংশ না নিলেও গত কয়েকবছর তিনি বিএনপির মূল ক্ষমতাকেন্দ্রের খুব কাছাকাছিই ছিলেন।

এমন এক সময়ে তিনি দল ও রাজনীতি ছাড়ার ঘোষণা দিলেন, যখন সরকারবিরোধী আন্দোলন চাঙ্গা করতে ব্যর্থ হয়ে কঠিন এক সময় পার করছে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব।

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া চিকিৎসার কথা বলে সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে লন্ডনে যাওয়ার পর থেকে সেখানে বড় ছেলে তারেক রহমানের কাছেই অবস্থান করছেন। আর দেশে দলের কার্যক্রম কেবল মুখপাত্র আসাদুজ্জামান রিপনের প্রেস ব্রিফিংয়ের মধ্যেই দৃশ্যমান।

চলতি বছরের শুরুতে বিএনপি ও শরিকদের টানা অবরোধ-হরতালের মধ্যে নাশকতার মামলায় গ্রেপ্তার হন শমসের মবিন। গত মে মাসে জামিনে মুক্তি পেলেও এর পর আর তাকে রাজনীতিতে খুব বেশি সক্রিয় দেখা যায়নি।

প্রোস্টেট ও চোখের সমস্যায় ভুগছেন জানিয়ে তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “চিকিৎসার জন্য আমার বিদেশে যাওয়া জরুরি। এমআরপি পাসপোর্টের জন্য আবেদন জমা দিয়েছি। কিন্তু এখনও আমাকে তা দেওয়া হয়নি।