রাবি ভেটেরিনারি সায়েন্স বিভাগের যুগপূর্তি উৎসব শুরু


322 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
রাবি ভেটেরিনারি সায়েন্স বিভাগের যুগপূর্তি উৎসব শুরু
মার্চ ৫, ২০১৬ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

রাবি প্রতিনিধি:
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) এনিমেল হাজবেন্ড্রী ও ভেটেরিনারি সায়েন্স বিভাগের দু’দিনব্যাপী এক যুগপূর্তি ও প্রথম অ্যালামনাই পুনর্মিলনী শুরু হয়েছে। শনিবার সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ।

বিভাগের সভাপতি ড. কে এম মোজাফ্ফর হোসেনের সভাপতিত্বে ও বিভাগের সহাযোগী অধ্যাপক এস এম কামরুজ্জামানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিভাগের ১২ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক প্রফেসর মো. জালাল উদ্দিন সরদার ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বিভাগের শিক্ষক ড. সৈয়দ সারওয়ার জাহান।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান, কৃষি অনুষদের অধিকর্তা প্রফেসর সাহানা কায়েস, প্রাণিসম্পদ বিভাগের পরিচালক ড. এ কে এম নজরুল ইসলাম ও রেনাটা লিমিটেড এর প্রাণিস্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান মো. সিরাজুল হক উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় অনুষ্ঠানের একাডেমিক সেশনে ‘দি রোল অব ভেটেরিনারিয়ান্স ইন ওয়ান হেলথ অ্যাপ্রোচ’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড এনিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য প্রফেসর নিতিশ চন্দ্র দেবনাথ।

অনুষ্ঠানে বিভাগের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি প্রফেসর মো. মমতাজুর রহমানকে আজীবন সম্মাননা, ড. মো. মাহবুব আলমকে পিএইচডি সম্মাননা ও ডা. মো. হেমায়েতুল ইসলাম আরিফকে স্নাতকোত্তর সম্মাননা প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানমালার প্রথম দিনে সিম্পোজিয়াম, ‘লাইভস্টক ইন ন্যাশনাল ডেভলপমেন্ট : বাংলাদেশ পারসপেকটিভ’ ও ‘রোল অব প্রাইভেট ইনট্রেপ্রিনিয়ারস ইন লাইভস্টক ডেভলপমেন্ট’, শীর্ষক সেমিনার এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। দ্বিতীয় দিন রোববার সকাল ৯টায় শিক্ষার্থীদের বরণ ও বিদায়, ১০টায় স্মৃতিচারণ, ১১টায় সাবেক শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী এবং ১২টায় সমাপনী অনুষ্ঠিত হবে।

উল্লেখ্য, বিভাগের যুগপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানের প্রথম দিনে আরো আছে সিম্পোজিয়াম, আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ইত্যাদি। দ্বিতীয় দিনে আছে শিক্ষার্থী  বরণ ও বিদায়, স্মৃতিচারণ, প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পূর্ণর্মিলনী।