রিজেন্ট কেলেঙ্কারি : বহুরূপী বহুনামি মো. সাহেদ


167 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
রিজেন্ট কেলেঙ্কারি : বহুরূপী বহুনামি মো. সাহেদ
জুলাই ৯, ২০২০ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

প্রতারণা করে সম্পদের পাহাড়

অনলাইন ডেস্ক :
অনেকেই তাকে চেনেন রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদ নামে। টেলিভিশনের বিভিন্ন টকশোতে নানা নীতিবাক্য বলায় সারাদেশের সাধারণ মানুষের কাছেও তার চেহারা পরিচিত খানিকটা। ‘সমীহ করা’ এই লোকটা নিজের আরও কিছু নাম ব্যবহার করেন নানা জায়গায়। সর্বসাকল্যে স্কুলের গণ্ডি পেরোনো এই ব্যক্তি কখনও নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তা বলে পরিচয় দেন। কখনও নিজেকে সচিব, মেজর বা কর্নেল বলেও দাবি করেন। মোবাইল ফোনের ফটো গ্যালারিতে সংরক্ষিত ছবিতে প্রভাবশালী ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে নিজেকে দেখিয়ে নিজের প্রভাব জানান দেন কখনও কখনও। তার মালিকানাধীন হাসপাতালের গেটেও সেসব ছবি টাঙানো থাকত বড় করে।

বারবার নাম পাল্টানোর নেপথ্যে অপকর্ম আর প্রতারণাকে বৈধ করাই ছিল রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক সাহেদের উদ্দেশ্য। প্রতারণার মাধ্যমে তিনি দুটি হাসপাতালের মালিক, বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজসহ পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের মালিক হয়েছেন। এতদিন মানুষ তাকে সমাজের প্রভাবশালী আর সম্মানিত ব্যক্তি হিসেবে জানলেও রিজেন্ট হাসপাতালে র‌্যাবের অভিযানের পর বেরিয়ে আসছে সাহেদের নানা কুকীর্তির কাহিনি।

প্রশ্ন উঠেছে, বহুরূপী এই প্রতারককে নেপথ্যে থেকে কারা দীর্ঘ দিন ধরে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছিলেন? কাদের কারণে বারবার অপকর্ম করেও পার পেয়েছেন তিনি? জেল থেকেও বেরিয়ে কী করে আবারও জড়িয়েছেন একই ধরনের প্রতারণায়? এত মামলা আর অভিযোগ নিয়ে প্রতারক সাহেদ সমাজের মূল স্রোতধারায় যেভাবে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সঙ্গে ওঠাবসা করেছেন এবং করোনা হাসপাতাল হিসেবে নিজের প্রতিষ্ঠানকেও অন্তর্ভুক্ত করেছেন, তাতে পর্যবেক্ষকরাও বিস্মিত। কেপিআইভুক্ত এলাকার তার যাতায়াত ছিল প্রায় নিয়মিত।

গত সোমবার থেকে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত রাজধানীর উত্তরায় ১১ নম্বর সেক্টরে সাহেদের মালিকানাধীন রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযান চালায়। বিনামূল্যে করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সঙ্গে চুক্তি থাকলেও র‌্যাবের অভিযানে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানটি সাধারণ রোগীদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। অন্তত ছয় হাজার মানুষকে করোনা টেস্টের ভুয়া সনদ দিয়েছে। অনুমোদন না থাকলেও রিজেন্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বাসায় গিয়ে করোনা নমুনা সংগ্রহ করে তা ফেলে দিয়ে সরকারি প্রতিষ্ঠানের নামে ভুয়া পজিটিভ ও নেগেটিভ রিপোর্ট তৈরি করে আসছিল। উত্তরায় অবস্থিত এই হাসপাতালটির পাশাপাশি মিরপুরে সাহেদের মালিকানাধীন রিজেন্ট হাসপাতালেও অভিন্ন চিত্র পায় র‌্যাবে। এরপর রোগী সরিয়ে দুটি হাসপাতালই সিলগালা করে দেওয়া হয়।

ওই অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম বলেন, রিজেন্ট হাসপাতালের অনুমোদনই ছয় বছর আগে শেষ হয়ে গেছে। এরপর প্রতারণা করে সরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কভিড রোগীদের চিকিৎসার জন্য চুক্তি করেন হাসপাতালের মালিক সাহেদ।

তিনি বলেন, ভাড়া করা ভবনে স্থাপিত রিজেন্টের অবকাঠামো যেমন হাসপাতালের মতো নয়, তেমনি সেখানকার আইসিইউও ছিল নামকাওয়াস্তে। আইসিইউর নূ্যনতম সরঞ্জাম বা সুবিধাও ছিল না সেখানে। নোংরা কক্ষে পাওয়া গেছে কাঁথা-বালিশ। এমনকি হাসপাতালের ল্যাবের ফ্রিজে কাঁচা মাছ সংরক্ষিত ছিল।

সাহেদ প্রভাব খাটিয়ে হাসপাতাল ভবনের মালিকদেরও ঠিকমতো ভাড়া পরিশোধ করতেন না। ভাড়া চাইলে উল্টো হুমকি দিতেন।

নাম পাল্টে প্রতারণা : রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান হিসেবে নিজের ওয়েবসাইটে তিনি নাম লিখেছেন মো. সাহেদ। হাসপাতালের নথিতেও তাই। ‘নতুন কাগজ’ নামে একটি দৈনিক পত্রিকারও ‘সম্পাদক’ এবং প্রকাশকও স্কুল পাস মো. সাহেদ। কিন্তু পত্রিকাটির নামে সরকারি অ্যাক্রিডিটেশন কার্ডে তিনি নাম ব্যবহার করেছেন মোহাম্মদ সাহেদ। তথ্য অধিদপ্তরের অস্থায়ী এই কার্ড নম্বর-৬৮৪৫। তবে রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান হিসেবে ওয়েবসাইটে দেওয়া তার স্বাক্ষরের সঙ্গে অ্যাক্রিডিটেশন কার্ডের স্বাক্ষরে নূ্যনতম মিল নেই! আবার জাতীয় পরিচয়পত্রে তার নাম মো. শাহেদ করিম, বাবার নাম সিরাজুল করিম, মা সুফিয়া করিম। তার বাড়ি সাতক্ষীরায়। ঢাকায় লালবাগে থাকেন। সূত্র বলছে, তিনি দুটি জাতীয় পরিচয়পত্র ব্যবহার করতেন।

এ তো গেল তার কাগজপত্রের নাম। প্রতারণা করতে গিয়ে সাহেদ নিজেকে কখনও মেজর ইফতেকার আহম্মেদ চৌধুরী, কর্নেল ইফতেকার আহম্মেদ চৌধুরী, আবার কখনও কখনও মেজর শাহেদ করিম হিসেবে পরিচয় দিতেন। র‌্যাব সদস্যরা রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযানের পর সোমবার থেকে পলাতক তিনি। তার বিরুদ্ধে মামলাও করেছে র‌্যাব।

নিম্নবিত্ত পরিবার থেকে শত শত কোটি টাকার মালিক তিনি! রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ নিজেকে আওয়ামী লীগ নেতা হিসেবে দাবি করতেন। আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির সদস্য হিসেবে পরিচয় দিতেন তিনি।

তবে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপকমিটির সাধারণ সম্পাদক শাম্মী আহমেদ বলেছেন, ‘সাহেদ করিম কমিটির সদস্য নন।’

সূত্র বলছে, সাহেদের অপকর্মের হাতেখড়ি চারদলীয় জোট সরকারের আমলে। ওই সময়ে জামায়াত নেতা ও যুদ্ধাপরাধী মীর কাসেম আলী এবং তারেক রহমানের বন্ধু গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের সঙ্গেও তার ঘনিষ্ঠতা ছিল। মামুনের হাত ধরে হাওয়া ভবন পর্যন্ত পৌঁছে যান এই প্রতারক। এরপর প্রতারণার নানা ব্যবসা খুলে বসেন তিনি। তবে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে মামুনের সঙ্গেই জেলে যেতে হয় তাকে। জেল থেকে বেরিয়ে ভোল পাল্টে আওয়ামী লীগের নেতা পরিচয়ে চালাতে থাকেন অপকর্ম। এভাবে হয়ে যান শত শত কোটি টাকার মালিক।

দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, তিনি বীরদর্পে সচিবালয়ে ঘুরে বেড়াতেন। সচিব থেকে শুরু করে বড় কর্তাদের অফিসে দাপটের সঙ্গে কথা বলতেন।

পুলিশ সদর দপ্তরের একাধিক সূত্র বলছে, ওই ব্যক্তি কয়েক বছর আগে পুলিশ সদর দপ্তরে নানা পরিচয়ে নিয়মিত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কক্ষে ঘোরাঘুরি করতেন।

এমএলএম প্রতারণা : জেল থেকে বেরিয়ে সাহেদ ২০১১ সালে ধানমন্ডিতে একটি বাসা ভাড়া নিয়ে ‘বিডিএস ক্লিক ওয়ান’ নামে এমএলএম ব্যবসা শুরু করেন। পরে গ্রাহকের অন্তত ৫০০ কোটি টাকা নিয়ে চম্পট দেন। মেজর ইফতেখার করিম চৌধুরী নামে ওই প্রতারণা করেন তিনি। প্রতারণার শিকার লোকজন তাকে খুঁজতে শুরু করলে তিনি ভারতে পালিয়ে যান। ওই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে ধানমন্ডি থানায় কয়েকটি মামলা হয়। গোপনে দেশে ফিরে মামলাগুলোয় জামিন নিয়ে আবার শুরু করেন একই ব্যবসা।

এরপর একে একে রিজেন্ট হসপিটাল লিমিটেড (মিরপুর), রিজেন্ট হসপিটাল লিমিটেড (উত্তরা), ঢাকা সেন্ট্রাল কলেজ, রিজেন্ট ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি ও হোটেল মিলিনার মালিক হন সাহেদ। সবশেষে দেশে চলমান করোনা দুর্যোগে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা আর টেস্ট নিয়ে প্রতারণার ফাঁদ পেতে বসেন।

অন্তত ৩২টি মামলা : সাহেদের বিরুদ্ধে নামে-বেনামে বিভিন্ন থানায় অন্তত ৩২টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে বিডিএস কুরিয়ার সার্ভিসে চাকরির নামে মানুষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে প্রতারণার কারণে উত্তরা থানায় হয়েছে আটটি মামলা। মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ ব্যাংকের বিমানবন্দর শাখা থেকে অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল পরিচয় দিয়ে তিন কোটি টাকা ঋণ নেন তিনি। এ ঘটনাতেও তার বিরুদ্ধে দুটি মামলা রয়েছে।

এ ছাড়া অনুমোদনহীন ‘আরকেসিএস মাইক্রোক্রেডিট ও কর্মসংস্থান সোসাইটি’ খুলে ১২টি শাখার মাধ্যমে হাজার হাজার সদস্যদের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করেন সাহেদ। এর আগে উত্তরার ৪, ৭ ও ১৩ নম্বর সেক্টরে ভুয়া শিপিংয়ের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেন তিনি। নিজের অপকর্ম চালাতে ছিল তার বিশাল ক্যাডার বাহিনী। থানা পুলিশ থেকে শুরু করে প্রভাবশালীদের সঙ্গে সখ্য গড়ে নিজের সাম্রাজ্য স্থাপনের চেষ্টা করেন তিনি। চলাফেরা করতেন ফ্লাগস্ট্যান্ড আর ভিআইপি হর্নযুক্ত গাড়িতে। সবসময় থাকত অস্ত্রধারী দেহরক্ষী।

সাহেদের মালিকানাধীন রিজেন্ট কেসিএস পূর্বাচল প্রজেক্টে বালু সরবরাহের কাজ পেয়েছিলেন ফেনীর জুলফিকার আলী। তিনি জানান, সিলেট থেকে বালু সরবরাহের পর তার পাওনা ৪২ লাখ ৫৭ হাজার ৫৫৯ টাকা সাহেদ পরিশোধ করেনি। টাকা চাইলে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় উত্তরা পশ্চিম থানায় জিডি করেন তিনি। মৃত্যুর ভয়ে এখনও পালিয়ে থাকেন জুলফিকার।র‌্যাবে-১-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল সাফিউল্লাহ বুলবুল জানিয়েছেন, রিজেন্ট হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা ও টেস্টের নামে প্রতারণার ঘটনায় মো. সাহেদসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। সাহেদকে গ্রেপ্তার করা গেলে অনেক তথ্য বেরিয়ে আসবে।