‘রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয়, বাংলাদেশি’, ক্যামেরনকে বলেছিলেন সু চি


81 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
‘রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয়, বাংলাদেশি’, ক্যামেরনকে বলেছিলেন সু চি
সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯ প্রবাস ভাবনা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে এক বৈঠকে রোহিঙ্গাদের ‘বাংলাদেশি’ বলে উল্লেখ করেছিলেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি।

নিজের স্মৃতিকথা ‘ফর দ্য রেকর্ড’-এ এই তথ্য উল্লেখ করেছেন ক্যামেরন। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন বিভিন্ন বিষয় নিয়ে স্মৃতিচারণমূলক বইটি লিখেছেন ক্যামেরন, যা গত বৃহস্পতিবার প্রকাশ হয়।

১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেলজয়ী অং সান সু চির সঙ্গে নিজের প্রথম সাক্ষাতের স্মৃতি উল্লেখ করে ক্যামেরন লিখেছেন, ‘মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সঙ্গে আমার সাক্ষাৎ হয়েছিল, যার দেশের প্রেসিডেন্ট পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার কথা ছিল। তখন তিনি ১৫ বছরের গৃহবন্দিত্ব থেকে কেবলই মুক্তি পেয়েছেন। ফলে ১৫ বছরের বন্দি দশা থেকে তার দেশ প্রকৃত গণতন্ত্রের পথে হাঁটবে– এমন একটি অসাধারণ গল্পের সৃষ্টি হতে চলেছে বলেই মনে হয়েছিল তখন।’

তবে সু চিকে নিয়ে ক্যামেরনের এই উচ্ছ্বাস যে দীর্ঘস্থায়ী ছিল না তার প্রমাণ মেলে ‘ফর দ্য রেকর্ড’-এ। পরের বছরই সু চি লন্ডন সফরকালে তার সঙ্গে সাক্ষাতে অন্যরকম অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হন ক্যামেরন। স্মৃতিকথায় তিনি লিখেছেন, ‘২০১৩ সালের অক্টোবরে তিনি যখন লন্ডন সফরে আসেন, তখন সবার দৃষ্টি ছিল তার দেশের রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর। রাখাইনের বৌদ্ধরা ওই সময় রোহিঙ্গাদের তাদের বাড়ি থেকে উৎখাত করছিল। এছাড়া রোহিঙ্গাদের ধর্ষণ, হত্যা ও জাতিগত নিধনের অভিযোগও আসছিল।’

ক্যামেরন লিখেছেন, ‘তখন আমি তাকে (সু চি) বলেছিলাম, সারা বিশ্ব দেখছে। জবাবে তিনি বলেছিলেন, তারা (রোহিঙ্গা) বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’

নিউজ উইকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের নিয়ে অং সান সু চির এই বক্তব্য এমন এক সময়ে সামনে এলো যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট-ফাইন্ডি মিশন প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা বন্ধে এখনও পদক্ষেপ নিচ্ছে না মিয়ানমার। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, গণহত্যার তদন্ত এবং বিচার করতে মিয়ানমার ব্যর্থ হয়েছে।

এর আগে চলতি সপ্তাহে মিয়ানমারে মানবাধিকার পরিস্থিতি বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ দূত ইয়াংহি লি বলেন, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা বন্ধে মিয়ানমার কিছুই করেনি এবং ২০১৭ সালের আগস্টের ঘটনার পূর্বে রোহিঙ্গারা যে পরিস্থিতিতে ছিল এখনও সেই পরিস্থিতিতেই রয়েছে।