শরীরের অতিরিক্ত চর্বি কমানোর উপায়


362 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শরীরের অতিরিক্ত চর্বি কমানোর উপায়
নভেম্বর ১৬, ২০১৫ ফটো গ্যালারি স্বাস্থ্য
Print Friendly, PDF & Email

ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক :
ভুঁড়ি অতিরিক্ত বেড়ে গেলে কিংবা চর্বি বেড়ে গেলে দুশ্চিন্তার শেষ থাকে না। নারী ও পুরুষ সবাই এর কবল থেকে মুক্তি পেতে চায়। অতিরিক্ত চর্বি থেকে মুক্তি পাওয়ার প্রধানতম উপায় হলো ব্যায়াম। যোগশাস্ত্রে এর জন্য নানান ব্যায়ামের কথা বলা হয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হলো ত্রিকোণাসন। আসন অবস্থায় দেহটাকে ত্রিকোণ বা ত্রিভূজের মতো দেখায় বলে আসনটির নাম ত্রিকোণাসন। এ আসন একাধিক পদ্ধতিতে করা যায়। এর নামও ভিন্ন ভিন্ন। যেমন: উত্থিত ত্রিকোণাসন, পরিবৃত্ত ত্রিকোণাসন, বদ্ধ ত্রিকোণাসন ইত্যাদি।

উত্থিত ত্রিকোণাসন করার জন্য প্রথমে পা দুটো সুবিধামতো দেড় থেকে দুই ফুট ফাঁক করে দাঁড়ান। এবার কোমর থেকে শরীরের উপরের অংশ বাঁ দিকে বাঁকিয়ে বাঁ হাতের তালু বাঁ পায়ের পাতার উপর রাখুন। প্রসারিত ডান হাত সোজা উপরের দিকে উঠিয়ে সেদিকে তাকান। শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রেখে বিশ সেকেন্ড থেকে ত্রিশ সেকেন্ড এ অবস্থায় থাকুন। এরপর ধীরে ধীরে সোজা হয়ে দাঁড়ান এবং শরীরের উপরের অংশ ডান দিকে বাঁকিয়ে ডান হাতের তালু ডান পায়ের পাতার উপর রাখুন। বাঁ হাত সোজা উপরে থাকবে। এভাবে আসনটি ২/৩ বার অভ্যাস করুন এবং প্রয়োজনমতো শবাসনে বিশ্রাম নিন। উত্থিত ত্রিকোণাসন ভিন্ন পদ্ধতিতেও করা যায়। এক্ষেত্রে প্রথমে উপরের পদ্ধতির মতো একইভাবে চর্চা করতে হবে, কেবল ঊর্ধ্বে প্রসারিত হাতটি শরীর যেদিকে বেঁকে থাকবে সেদিকে মাথার সমান্তরালে থাকবে। ত্রিকোণাসনের উভয় পদ্ধতিতে শরীর যেদিকে বেঁকে থাকবে সেদিকের পা সোজা বা হাঁটু কিছুটা ভাঁজ অবস্থায়ও থাকতে পারে।

পরিবৃত্ত ত্রিকোণাসন করার জন্য প্রথমে পা দুটো সুবিধামতো দেড় থেকে দুই ফুট ফাঁক করে দাঁড়ান। এবার কোমর থেকে শরীরের উপরের অংশ বাঁ দিকে বাঁকিয়ে ডান হাতের তালু বাঁ পায়ের পাতার উপর বা পাশে মেঝেতে রাখুন। প্রসারিত বাঁ হাত সোজা উপরে কিংবা মাথার সমান্তরালে থাকবে। শরীর যে দিকে বাঁকানো থাকবে সেদিকের পা সোজা কিংবা হাঁটু থেকে প্রয়োজনীয় পরিমাণে ভাঁজ অবস্থায় থাকতে পারে। শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রেখে বিশ সেকেন্ড থেকে ত্রিশ সেকেন্ড এ অবস্থায় থাকুন। এরপর ধীরে ধীরে সোজা হয়ে দাঁড়ান এবং শরীরের উপরের অংশ ডান দিকে বাঁকিয়ে বাঁ হাতের তালু ডান পায়ের পাতার উপর রাখুন। ডান হাত সোজা উপরে থাকবে বা মাথার সমান্তরালে থাকবে। এভাবে আসনটি ২/৩ বার অভ্যাস করুন এবং প্রয়োজনমতো শবাসনে বিশ্রাম নিন।

এ আসনটিতে দেহের সব অংশের কম-বেশি উপকার হয়। মেরুদণ্ডে রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধি পাওয়ায় মেরুদণ্ড সরল ও নমনীয় হয়। তবে পায়ের কাজ খুব ভালো হয়। এছাড়া পেটের বেড়ে উঠা ভুঁড়ি কমে যায় এবং অতিরিক্ত চর্বি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসা সম্ভব হয়।