শিমুলিয়া-বাংলাবাজার রুটে ১৪টি ফেরি চলছে, পারাপার স্বাভাবিক


114 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শিমুলিয়া-বাংলাবাজার রুটে ১৪টি ফেরি চলছে, পারাপার স্বাভাবিক
মে ১১, ২০২১ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরি ঘাট এলাকায় গত কয়দিন ঈদে ঘরমুখো মানুষ ও যানবাহনের তীব্র চাপ থাকলেও এখন অনেকটা স্বাভাবিক রয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে স্বাভাবিকভাবেই যাত্রী পারাপার হচ্ছে। শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌ রুটটিতে ছোট বড় মিলে ১৪টি ফেরি চলাচল করছে; এ কারণেই যাত্রীর চাপ কমছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

শিমুলিয়া ঘাট সূত্র ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত কয়েকদিন এই ঘাট দিয়ে সীমিত পরিসরে ফেরি চলাচল করেছে। ঈদকে সামনে রেখে দক্ষিণবঙ্গগামী যাত্রীরা শিমুলিয়া ঘাটে ভিড় জমান। যখনই একটি ফেরি ঘাটে ভিড়তে দেখেছেন, তাতে হুমড়ি খেয়ে যাত্রীরা উঠে পড়তেন। সবকিছু বিবেচনায় এনে সোমবার সন্ধ্যা থেকে এই নৌপথে থাকা ফেরিগুলো চালানো শুরু হয়।

মঙ্গলবার ভোর থেকে যাত্রীরা ঘাটে আসতে শুরু করেছেন। ঘাটের সবকটি ফেরি চলাচল করায় কোনো অপেক্ষা ছাড়াই পার হতে পারছেন যাত্রীরা।

তবে প্রতিটি ফেরিতে এখনও যানবাহনের তুলনায় যাত্রীর সংখ্যাই বেশি। অধিকাংশ যাত্রীর মুখে মাস্ক থাকলেও ছিল না সামাজিক দূরত্ব।

শিমুলিয়া ঘাটের প্রবেশমুখ শিমুলিয়া-ভাঙ্গা সড়কে মোতায়েন আছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের সদস্যরা (বিজিবি)। সেখানে যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করা হলেও বিজিবির টহলের মধ্য দিয়ে যাত্রী ঘাটে আসছেন। ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হওয়ায় স্বস্তি ফিরেছে যাত্রীদের মধ্যে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঘাটের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা বলেন, সরকারও চায় না মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছোট নৌযান ও চোরাই পথে পদ্মা পাড়ি দিক; আবার ঈদে বাড়ি ফিরতে গিয়ে দেশে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাক। তাই শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথ দিয়ে সব কটি ফেরি চালানো হচ্ছে। এতে যাত্রীদের ভোগান্তি কমবে।