শোলাকিয়ায় ঈদ জামাতে লাখো মুসল্লি


397 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শোলাকিয়ায় ঈদ জামাতে লাখো মুসল্লি
সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৫ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক :
প্রতিবারের মতো এবারও লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে দেশের সবচেয়ে বড় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে।

শুক্রবার সকাল ৯টায় শুরু হওয়া ঈদের নামাজ পরিচালনা করেন স্থানীয় মারকাজ মসজিদের ইমাম মাওলানা হিফজুর রহমান।

নামাজ শেষে বাংলাদেশ ও মুসলিম উম্মাহর শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনায় মোনাজাত করা হয়।

১৮২৮ সালে শোলাকিয়ায় প্রথম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। সেই হিসেবে এবার এই মাঠে ১৮৮তম ঈদ জামাত হলো।

জামাতে অংশ নিতে সকাল থেকেই মুসল্লিদের ঢল নামে জেলা শহরের পূর্ব প্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীরের এ ঈদগাহ ময়দানে।

নামাজ আদায় করতে আসা মানুষের ভিড় ঈদগাহ ময়দান ছাড়িয়ে আশপাশের রাস্তায়ও ছড়িয়ে পড়ে। কয়েক ঘণ্টার জন্য এসব সড়কে বন্ধ হয়ে যায় যানবাহন চলাচল।

এবার শোলাকিয়া মাঠে ঈদুল আজহার জামাতে প্রায় এক লাখ মুসল্লি নামাজ আদায় করেছেন বলে জানান শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠ কমিটির সভাপতি ও কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক জি.এস.এম জাফরউল্লাহ।

তিনি বলেন,মুসল্লিদের নামাজ আদায়ের সুবিধার্থে সরকারিভাবে ‘শোলাকিয়া স্পেশাল’ নামে দুটি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়। এর একটি সকাল ৬টায় ময়মনসিংহ থেকে এবং অপরটি সকাল ৬টায় ভৈরব থেকে বিপুল সংখ্যক মুসল্লি নিয়ে শোলাকিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে আসে।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন খান বলেন, সুষ্ঠুভাবে জামাত অনুষ্ঠানের জন্য জেলা প্রশাসন ও ঈদগাহ কমিটির প্রস্তুতির অংশ হিসেবে মাঠে নিরাপত্তার জন্য বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন ছিল।

মসনদ-ই-আলা ঈশা খাঁর ষষ্ঠ বংশধর দেওয়ান হয়বত খান বাহাদুর কিশোরগঞ্জের জমিদারি প্রতিষ্ঠার পর ১৮২৮ সালে কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের পূর্ব প্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীরে প্রায় সাত একর জমির উপর এ ঈদগাহ প্রতিষ্ঠা করেন।

স্থানীয় গবেষকদের ভাষ্যমতে,১৮২৮ সালে প্রথম অনুষ্ঠিত জামাতে সোয়া লাখ মুসুল্লি অংশগ্রহণ করেন বলে মাঠের নাম হয় ‘সোয়া লাখি মাঠ’। সেখান থেকে উচ্চারণের বিবর্তনে তা পরিণত হয়েছে আজকের নাম শোলাকিয়ায়।

এ মাঠে মোট ২৬৫টি কাতার রয়েছে,যার প্রত্যেকটিতে পাঁচ শতাধিক মুসল্লি নামাজে আদায় করতে পারেন।