শ্যামনগরের এক ব্যক্তির পটুয়াখালীতে আত্মহত্যা


313 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শ্যামনগরের এক ব্যক্তির পটুয়াখালীতে আত্মহত্যা
জুলাই ২১, ২০২০ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

মিঠু বরকন্দাজ ::

গত ১৮ জুলাই শ্যামনগর উপজেলার যতীন্দ্রনগর গ্রামের মৃত সৈয়দ আলী গাজীর পুত্র, জি,এম মোবারক আহমেদ(৫০) পটুয়াখালীতে আত্মহত্যা করেছে বলে জানা যায়। তার পরিবার জানান, বাড়ি থেকে ঢাকায় যাওয়ার কথা বলে রওনা হন। এর পর তিনি ঢাকা না যেয়ে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে চলে যান। তার পরিবার সুত্রে জানা যায়, সেখানে ১৯ জুলাই সকালে সানফ্লয়ার হোটেলের ৩০৩ নম্বর কক্ষে উঠেন। সন্ধ্যায় তিনি একটি ভাড়ায় চালিত মটর সাইকেল নিয়ে লেম্বুর চরের কাকড়া ফ্রাই এলাকায় যান। মটর সাইকেল ড্রাইভারর তার পরিবারকে জানায়, তাকে একটু অপেক্ষা করতে বলে উক্ত মোবারক আহম্মদ বনের মধ্যে পবেশ করেন।। বেশ কিছু সময় অপেক্ষার পর তিনি বন থেকে না ফিরলে মটর সাইকেল ড্রাইভার ওই এলাকার কয়েকজন লোক নিয়ে বনের মধ্যে প্রবেশ করে তাকে খোজার এক পর্যায়ে গাছে রশি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় তার মরা দেহ দেখতে পান। এর পর তারা মহিপুর থানার পুলিশকে খবর দেন, পুলিশ ঘটনা স্থলে গিয়ে তার ঝুলন্ত লাশ থানায় নিয়ে আসেন। মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান জানান, খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে পুলিশ গিয়ে মোবারক আহম্মদ এর লাশ উদ্ধার করেছে। মৃতের পকেটে একটি মোবাইল, নগদ কিছু টাকা ও একটি সুইসাইডনোট পাওয়া যায়। লাশ ময়না তদন্তের জন্য পটুয়াখালী মর্গে পাঠিয়েছি।
ময়না তদন্ত শেষে তাহার লাশ তার পরিবারের ঘনিষ্টজনদের কাছে ১৯ জুলাই দুপুরে হস্তান্তর করেছে। এর পর ১৯ জুলাই রাত্রে তার মৃত দেহ বাড়িতে নিয়ে কবর দিয়েছে তার পরিবার ও এলাকাবাসী। উক্ত মোবারক আহম্মদের স্ত্রী জানান তিনি মৃত্যুর দিন বিকালে তার সাথে মোবাইলে শেষ কথা হয় তবে তিনি স্বাভাবিক ভাবে কথা বলেছিলেন। মৃত্যুর পূর্বে তার মোবাইলে থাকা ৭ হাজার টাকা তার পুত্রের মোবাইলে পাঠিয়ে দেন। উল্লেখ, উক্ত সুইসাইডনোটটি মোবারক গাজীর নিজের হাতের লেখা বলে তার পরিবার নিশ্চিত করেন। মোবারক আহমেদ ২৬নং যতীন্দ্রনগর সরকারি প্রথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন সভাপতি ও সুন্দরবন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ম্যানেজিং কমিটির সদস্য তিনি দীর্ঘদিন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। সুন্দরবন আহমাদিয়া মুসলিম জামাতের বর্তমান আমির হিসাবে দায়িত্বে আছেন। তিনি অত্র এলাকার মানুষের সাথে মিশে বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত থাকতেন তার মৃত্যুতে এলাকাবাসী শোকাহত।