শ্যামনগরের গাবুরা উপকূল রক্ষা বাঁধ ভেঙে প্লাবিত


304 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শ্যামনগরের গাবুরা উপকূল রক্ষা বাঁধ ভেঙে প্লাবিত
আগস্ট ২০, ২০২০ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

সামিউল মনির ::

বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টার দিকে নেবুবুনিয়া এলাকার উপকূল রক্ষা বাঁধ পাশের খোলপেটুয়া নদীতে বিলীন হয়ে শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা ইউনিয়নের দুটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ভাঙন কবলিত অংশের ছয়টি পয়েন্ট দিয়ে পানির প্রবেশ অব্যাহত থাকায় রাতের জোয়ারে নুতন নুতন এলাকা জোয়ারের পানিতে নিমজ্জিত হওয়ার শংকা জেগেছে।
ছয়টি পয়েন্ট এর প্রায় ষাট ফুট বাঁধ নদীতে বিলীন হওয়ার কারনে মুহুর্তের মধ্যে প্রায় তিনশ একর জমির চিংড়ি ঘের ও দেড় শতাধিক বসতঘর জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। আম্পান তান্ডবের পর একই এলাকায় রিং বাঁধ মেরামত করা হলেও বৃহস্পতিবার দুপুরের সময় সংলগ্ন অংশ আবারও ভাঙন মুখে পড়ার পর স্থানীয়দের মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে।
স্থানীয়রা জানিয়েছে কয়েক দিনের টানা বৃষ্টির সাথে গত দু’দিন ধরে বাতাস শুরু হয়েছে। এদিকে নদীতে হঠাৎ পানির চাপ বেড়ে যাওয়ার কারনে আকস্মিকভাবে বৃহস্পতিবার দুপুরের পর নেবুবুনিয়া এলাকার ছয়টি পয়েন্টে বাঁধ নদীতে বিলীন হয়। মুহুর্তের মধ্যে নেবুবুনিয়া ও গাবুরা গ্রাম পানিতে তলিয়ে গেছে দাবি করে আজিজুল ইসলাম ও আকবর আলীসহ কয়েক গ্রামবাসী জানায় রাতের জোয়ারে গোটা গাবুরা পানিতে প্লাবিত হওয়ার আতংকে রয়েছে তারা।
গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জিএম মাসুদুল ইসলাম জানান, হঠাৎ করেই নেবুবুনিয়া এলাকার বাঁধের ছয়টি স্থানের বাঁধ ভেঙে দুটি গ্রামের তিনশ একরের মত চিংড়ি ঘের আর দুই শত বসত বাড়ি পানিতে ভেসে গেছে। বিষয়টি পাউবো কৃতপক্ষকে জানানো হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন রাতের জোয়ারে গোটা গাবুরা প্লাবিত হওয়ার শংকা তৈরী হয়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ডের সেকশন অফিসার মাসুদ রানা জানান, নদীতে জোয়ারের চাপ বৃদ্ধির সাথে সাথে ভারী বৃষ্টিপাতের কারনে দুপুরে নেবুবুনিয়া এলাকার বাঁধ ভেঙে কিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ভাঙনের খবরের পর ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভেঙে যাওয়া অংশের রিং বাঁধে সম্প্রতি সংস্কার কাজ করা হয়েছিল। ভাঙন কবলিত অংশে পৌছে পানি আটকানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

#