শ্যামনগরের পদ্মপুকুরে ভোট পুন:গণনা করে গেজেট প্রকাশ করার দাবীতে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ


359 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শ্যামনগরের পদ্মপুকুরে ভোট পুন:গণনা করে গেজেট প্রকাশ করার দাবীতে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ
মার্চ ২৮, ২০১৬ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

বিশেষ প্রতিনিধি :
শ্যামনগরের পদ্মপুকুরে ভোট পুন:গণনা করে গেজেট প্রকাশ করার দাবীতে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করা হয়েছে।
শ্যামনগরের পদ্মপুকুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের চন্ডিপুর মডেল প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা মেম্বর প্রার্থীর ফল পরিবর্তন করেছে এমন অভিযোগ আনা হয়েছে। পদ্মপুকুর ইউনিয়নে ৫ নং ওয়ার্ডের মেম্বর প্রার্থী আশিকুজ্জামান রাজু সোমবার উক্ত অভিযোগ করেন। জেলা প্রশাসক অভিযোগ আমলে নিয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগে পাঠিয়েছে।

অভিযোগে জানা যায়, পদ্মপুকুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডে ৭ জন মেম্বর (সাধারণ সদস্য) পদে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে। নির্বাচন শক্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠু হওয়া সত্ত্বেও কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা মাহমুদ আলম নির্বাচনের ফলাফল পরিবর্তন করে আশিকুজ্জামান রাজুকে পরাজিত করে। অভিযোগে আরো বলা হয়, নির্বাচনের ভোট গ্রহণ করার পরে সন্ধ্যায় প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আমি (আশিকুজ্জামান রাজু) তালা প্রতীক পান ৪৪৯, ভ্যান প্রতীকের হেদায়েতুল ইসলাম পান ৪০৫ ভোট। কিছুক্ষণ পরে ঐ কর্মকর্তা পুনরায় ফল উল্টে হেদায়েতুল ইসলাম ৪৪৭ ভোট পান বলে প্রচার করেন। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক রাজু ভোট পুনগনণার জন্য আবেদন করলে কোন কাজ হয়নি এবং ঐ কর্মকর্তা ভোটও গননা করেননি। রাজু উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়েও কোন ফল পাননি।

অভিযোগে আরো বলা হয়, ঐ কেন্দ্রে চেয়ারম্যান ভোট কাস্ট হয়েছে ১৭৫৬, মহিলা মেম্বর পদে ১৭৫৬ হলেও বাস্তবে হয়েছে ১৭৬২। আর সাধারণ মেম্বর পদে ১৭৮২। তিনি অভিযোগ করে বলেন, একটি কেন্দ্রে কিভাবে তিন পদে তিন রকম ভোট কাস্ট হয়? চেয়ারম্যান ও মহিলা মেম্বরের প্রাপ্ত ভোটের রেজাল্ট কেন্দ্রে দিলেও পুরুষ মেম্বরদের ফলাফল প্রদান করা হয়নি। শুধু মৌখিক ঘোষনা দিয়ে বিজিবি’র সহায়তায় ঐ কর্মকর্তা দ্রুত প্রস্তান করে। অভিযোগে আরো বলা হয়, প্রিজাইডিং কর্মকর্তা মোটা অর্থ নিয়ে ভোটের ফল উল্টে দিয়েছে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ভোট পুনগগনা করে ঐ ওয়ার্ডের গেজেট প্রকাশ করার দাবী জানান। তিনি লিখিত অভিযোগ প্রধান নির্বাচন কমিশনার, জেলা প্রশাসক, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে পাঠিয়েছেন।