শ্যামনগরে আ”লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ : আহত-৪, অগ্নিসংযোগ


455 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শ্যামনগরে আ”লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ : আহত-৪, অগ্নিসংযোগ
নভেম্বর ৬, ২০১৫ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

মেহেদী হাসান মারুফ,  শ্যামনগর প্রতিনিধি :
শ্যামনগর উপজেলায় রমজাননগরের ইউনিয়নের ভেটখালী বাজারে স্কুল ছাত্রীর প্রকাশ্য শ্লীলতাহানীর ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় ইউনিয়ন আ’লীগের দুই পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত ১০ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে, ঘটনায় ৪ জন মারাত্বক আহত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শিরা জনান, বিয়ের দাওয়াত খেয়ে আশার পথে ভেটখালী বাজারে পৌছালে সেখানে তারানীপুর গ্রামের আব্দুস সবুরের পুত্র বাবুর সহোচর একদল উচ্ছঙ্খৃল যুবক মেয়েদের প্রকাশ্যে শ্লীলতাহানী ঘটায়। এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে বখাটে যুবকেরা তাদের পিটিয়ে মারাত্বক আহত করে। খবর পেয়ে রমজাননগর ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারন সস্পাদক হায়াত আলী ঘটনাস্থালে পৌছে বিষয়টি মিটানোর চেষ্টা করে।

এমন সময় ওই ইউনিয়নের আ’লীগের সভাপতি ফজলুল হক মোড়ল ঘটনাস্থালে পৌছান। আসার পরে একজায়গায় বসে মিমাংসার স্বার্থে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের মধ্যে আলোচনার মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষে রুপ নেয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সভাপতি ফজলুল হক মোড়ল তার নিজ গ্রাম থেকে ৪০/৫০ জন সমর্থনকারী নিয়ে সাধারন সম্পাদক হায়াত আলী গ্রুপের উপর ঝাপিয়ে পড়ে। তাৎক্ষনিক ভেটখালী বাজারে রণক্ষেত্রে রুপনেয়। স্থানীয় আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের লোকজন তখন হাত বোমার বিাস্ফোরণ ঘটিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করে। এ সময় সভাপতি ফজলুল হক মোড়লের ২টি মোটর সাইকেল ও তার সমর্থিত ব্যক্তির একটি ইঞ্জিন ভ্যান আগুন ধরিয়ে দেয়। ঘটানস্থলে সাধরণ সম্পাদকের লোকজনের হামলায় অহতরা হলো, পাতখোলা গ্রামের উজির গাজীর ছেলে নজরুল (৪০) একই গ্রামের গফুর গাজীর ছেলে (৪২) ও সোরা গ্রামের জিয়াদ আলীর ছেলে ইদ্রিস আলী (৩০)। তাদেরকে উদ্ধার করে শ্যামনগর হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।খবর পেয়ে শ্যামনগর থানার এস আই আমজাদ হোসেন এর নেতৃত্বে পুলিশ দল ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থি নিয়ন্ত্রনে আনে।

এ বিষয় শ্যামনগর থানার ওসি এনামুল হকের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,এই ঘটনায় দ্রুত বিচার আইনে শ্যামনগর থানায় মামলা হয়েছে। মামলা নং-০৭, তারিখ ০৬/১১/১৫ ইং।