শ্যামনগরে বাগদা চিংড়ি ঘেরে মড়ক : হতাশ চাষী


621 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শ্যামনগরে বাগদা চিংড়ি ঘেরে মড়ক : হতাশ চাষী
এপ্রিল ২১, ২০১৭ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
জেলার সর্ব দক্ষিণে সুন্দরবন ঘেসা শ্যামনগর উপজেলাব্যাপি চলতি বছর বাগদা চিংড়ি ঘেরে ব্যাপক মড়ক শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে অধিকাংশ ঘেরের মাছ মরে সাবাড় হয়ে গেছে। উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে চাষীদের। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না বলে চাষীদের অভিমত।
উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর সূত্র মতে, চলতি বছর ১২টি ইউনিয়নে ১৭ হাজার ৬১৯ হেক্টর জমিতে চিংড়ি চাষ করা হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্র ৬ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন।
নূরনগর ইউনিয়নে রামজীবনপুর গ্রামের বিশিষ্ট চিংড়ি চাষী আকবর হোসেন ও হাফিজুর সহ অনেকেই বলেন, বিভিন্ন সংস্থা থেকে ঋণ নিয়ে চিংড়ি চাষ করা হয়েছে। কিন্তু ঘের হতে মাছ ধরার আগ মহুর্তে ব্যাপক মড়ক শুরু হয়েছে। মৎস্য অফিসের পরামর্শ মতে বিভিন্ন ধরণের পদ্ধতি অবলম্বন করেও মাছ মরা বন্ধ হচ্ছে না। এঘটনায় মৎস্য চাষীরা হতাশ হয়ে পড়েছেন।
শ্যামনগর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফারুক হোসাইন সাগর ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘের হতে নমুনা সংগ্রহ করে মড়কের কারণ সনাক্তকরণের চেষ্টা চলছে। তবে, চাষীদের ঘেরে কমপক্ষে ৩ ফুট পানি রাখার কথা বলা হয়েছে যাতে অধিক তাপমাত্রায় পানি গরম হয়ে মাছের কোন অসুবিধা না হয়। তিনি তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণে মাছ মরার অন্যতম কারণ উল্লেখ করেন।