শ্যামনগর জলবদ্ধতার কবল থেকে রক্ষা পাবে ৩ গ্রাম


1002 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শ্যামনগর জলবদ্ধতার কবল থেকে রক্ষা পাবে ৩ গ্রাম
এপ্রিল ৮, ২০১৭ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

শ্যামনগর প্রতিনিধি ::
দীর্ঘ দিনের প্রত্যাশা পুরন হতে যাচ্ছে শ্যামনগর উপজেলার সীমান্তবর্তী কৈখালী ইউনিয়নের মেহেন্দী নগর ভিপি খাল পাড়ের তিন গ্রামের মানুষের । দীর্ঘ কাল ধরে জলাবদ্ধতার কবলে পড়ে ছিল কৈখালী ইউনিয়নের মেহেন্দীনগর, কাকর ঘাটা,মির্জাপুর গ্রামের শতশত মানুষ।

পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় জলাবদ্ধতার মধ্যে পড়ে থাকতে হতো তাদের বহু দিন ধরে। অনেক প্রচেষ্টার ফলে অবশেষে খালটি খনন করা হচ্ছে। একটি মহল দীর্ঘ দিন ধরে জাল কাগজপত্র তৈরী করে খালটি নিজেদের দখলে রেখেছিল।

কিন্ত আদালতের একাধিক রায়ের কারনে আবারো খালটি তার নিজের প্রান ফিরে পেতে যাচ্ছে। স্থানীয় ইউপি মেম্বর মোঃ ফজলুল হক সচেতন মহলের সহযোগিতায় খালটি কর্মসৃজন কর্মসৃচীর মাধ্যমে খনন কার্য্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। চলতি ৪০ দিনে শ্রমিকদের দিয়ে খালটি খনন করা হলে ও সম্পুর্ন খাল খনন শেষ হবে নাা বলে অনেকেই জানিয়েছেন।

তবে ইউপি মেম্বর ফজলুল হক বলেন,খালের বিশেষ বিশেষ অংশ ইতিমধ্যে খনন করা হয়েছে।সামনে ৪০ দিনের কাজ শুরু হলে বাকীটা খনন করা সম্ভব হবে। তিনি বলেন,খালটি উম্মুক্ত হওয়ায় এই এলাকার তিন গ্রামের শতশত কৃষক জলাবদ্ধতার কবল থেকে রক্ষা পাচ্ছে দীর্ঘ কাল পর।

এখানে মাচ চাষের পাশাপশি স্থানীয় কৃষকরা ধান সসহ বাড়ীর আঙ্গিনায় শবজি চাষ ও করতে পারবে।মেহেন্দী নগর ভিপি খাল পাড়ের সাধারন মানুষ খুবই আনন্দিত খালটি উম্মুক্ত হওয়ায় এবং জলাবদ্ধতা নিরসন হওয়ায়।

এবিষয় শ্যামনগর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জাফর রানা বলেছেন,খালটি উম্মুক্ত হওয়ার পর খালটি ৪০ দিনের কর্মসৃচীর মাধ্যমে খনন করা হচ্ছে। এ এলাকার মানুষ দ্রুত জলাবদ্ধতার কবল থেকে রক্ষা পাবো।
##