শ্যামনগর নওয়াবেকীতে দু’মেম্বরের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ : আহত-৬


366 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
শ্যামনগর নওয়াবেকীতে দু’মেম্বরের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ : আহত-৬
অক্টোবর ১৭, ২০১৬ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

এস কে সিরাজ,শ্যামনগর :
দু’দিন ধরে শ্যামনগর নওয়াবেকীতে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের পর বাজারের দোকানপাট বন্ধ করে প্রধান সড়ক অবরোধ করে একে অপারের শক্তি প্রয়োগ অব্যাহত রাখে।সোমবার সকালে নওয়াবেকী বাজারের দোকানপাট বন্ধ করে বাসস্টান্ড এলাকায় বেরীকেড দিয়ে রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হয়।
শ্যামনগর থানা পুলিশের সহযোগিতায় বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আছে বলে জানা গেছে।
শ্যামনগর আটুলিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ও ৫নং ওয়ার্ড মেম্বর সৈয়দ কামাল ও আব্দুল গফুরের সাথে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে দুই মেম্বরের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এ সংঘর্ষের কারনে এলাকার নিরহ দু” পক্ষের ৫ জন গুরুতর আহত হয়।
দুই মেম্বরের পাল্টাপাল্টি সংঘর্ষের কারনে এলাকার উত্তেজিত পরিবেশের কারনে এলাকার সাধারন মানুষ অনেকটা কষ্টের মধ্যে দিন কাটিয়েছেন।পরিবেশ পরিস্থিতি অনেকটা ভাল থাকলেও এখনও কমেনি এলাকার উত্তেজনা।
এদিকে সরেজমিনে দেখা যায়, শ্যামনগর উপজেলার আটুলিয়া ইউনিয়নের ওয়ার্ড পর্যায়ে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে নওয়াবেঁকী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মাঠে ২ মেম্বর সমার্থকদের সংঘর্ষে আহত ৬। গতকাল রবিবার বিকালে নওয়াবেঁকী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্যদের সম্মনয় ফুটবল খেলায় ১নং বিড়ালক্ষী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সোয়েদ কামাল উদ্দিন, ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল গফুর ঢালীর খেলা অনুষ্ঠিত হয় রোববার বিকাল ৪ টায়। খেলা চলাকালিন সময়ে দর্ষকরা উত্তেজিত হলে দুই ইউপি সদস্যদের সমার্থকদের মধ্যে গলো জোগ বেধে যায়। এসময় পশ্চিম আটুলিয়া গ্রামের মোঃ কদম আলীর পুত্র মোসলেম আলী (৩৪), মোহাম্মদ আলী গাজীর পুত্র জহির উদ্দিন (১৮), ছোট কুপুট গ্রামের রফিকুল ইসলামের পুত্র রবিউল ইসলাম (২৩) কে মারধর করে ইউপি সদস্য সোয়েদ কামাল এর সমার্থকরা। ইউপি চেয়ারম্যান আবু সালে বাবু উপস্থিতিত্বে তাৎক্ষনিক ভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে আহতদের কে চিকিৎসার জন্য শ্যামনগর হাসপাতালে পাঠান। এঘটনার পর পশ্চিম আটুলিয়া গ্রামের ৫নং ওয়ার্ডের আব্দুল গফুর ঢালীর সমার্থকরা চুনার ব্রিজ এলাকায় মেইন রোড অবরোধ করে ছোট কুপুট গ্রামের ইজি বাইক চালোক কামরুল ইসলামকে গতি রোধ করে পাখিমারা গ্রামের আব্দুর রশিদের পুত্র রফিকুল (৩৪) বেড়ালক্ষী গ্রামের তাজারুল ইসলামের পুত্র সোহাগ (২২) কে মারধর এবং তাদের প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র ছুড়ে ফেলে দেয়। তাদেরকে শ্যামনগরে চিকিৎসার জন্য বাধাগ্রস্থ করে আটুলিয়ার দিকে পাঠিয়ে দেয় বলে জানান, আহতরা। এব্যাপারে দুই ইউপি সদস্যদের কথা বলে ঘটনা সত্যতা শিকার করেন।
এরপরও থেকে ছড়িয়ে পড়ে উত্তেজনা ।
এদিকে উপজেলার আটুলিয়ার চেয়ারম্যান আবু সালেহ বাবু বলেন, বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ভাবে মিমাংসার জন্য আমরা বসেছি। আশা করি বিষয়টি মিটে যাবে।