সকল সুযোগ থাকার পরও ভোমরা বন্দর দিয়ে জিরা ছাড়া অন্য কোন মসল্যা আমদানি হয়না !


1520 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সকল সুযোগ থাকার পরও ভোমরা বন্দর দিয়ে জিরা ছাড়া অন্য কোন মসল্যা আমদানি হয়না !
এপ্রিল ২৭, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

ইব্রাহিম খলিল ::
সকল সুবিধা থাকার পরও সাতক্ষীরা ভোমরাস্থল বন্দর দিয়ে জিরা ছাড়া অন্য কোনো গরম মসল্যা আমদানি করতে দেয়া হয় না। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ অজ্ঞাত কারনে এলাচ, লবঙ্গ ও দারুচিনির মত উচ্চকর যুক্ত গরম মসল্যা আমদানি করতে দেয়া হয়না বন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ীদের। যা গত বছরের তুলনায় ১০ শাতাংশ পরিমান কমেছে। গত ৯ মাসে ভোমরাস্থল বন্দর দিয়ে জিরা আমদারি হয়েছে ২৩৩ মেট্রিক টন। গত অর্থ বছরে আমদারি করা হয়েছিল ২৪৬ মেট্রিক টন। ব্যাবসায়িদের দাবি ভোমরা বন্দর দিয়ে যাতে সকল মসল্যাজাত দ্রব্য আমদানি করা যায় তার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান।

ভোমরাস্থল বন্দর সুত্রে জানা যায়, ভোমরা বন্দর দিয়ে গত ৯ মাসে জিরা আমদানি করা হয়েছে ২৩৩ মেট্রিকটন। এরমধ্যে জুলাই মাসে ৬০ টন, আগষ্ট মাসে ২০ টন, সেপ্টেম্বরে  মাসে ৬৪ টন, অক্টবর মাসে ৪৬ টন, নভেম্বর মাসে ২০ টন, জানুয়ারী মাসে ৫ টন এবং মার্চ মাসে ২০ টন। যা গেল অর্থবছরের এই সময়ের তুলনায় ১০ শতাংশ পরিমান কম। সুত্রটি আরো জানায়, গত অর্থবছর ৯ মাসে জিরা আমদানি হয়েছিলো ২৪৬ টন। সুত্রটি আরো জানায়, জিরা আমদানিতে সরকারের শুল্ক নেয়া হয়ে থাকে ৫৭%।

ভোমরা স্থলবন্দরের সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়শনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম জানান, ভোমরা বন্দর দিয়ে শুধুমাত্র জিরা ছাড়া অন্য কোন মসল্যা জাত দ্রব্য আমদানি করতে দেওয়া হয় না। অথচ ভোমরা বন্দরের চেয়ে নন গ্রেড বন্দর দিয়ে সকল পন্য আমদানির সুযোগ রয়েছে। তিনি আরও বলেন, আগামী বাজাটে ভোমরা বন্দরে সকল পন্য আমদানির সুযোগ থাকে তার জন্য তিনি সরকারের কাছে অনুরোধ জানান।

সাতক্ষীরা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাস্ট্রিজের সভাপতি নাসিম ফারুক খান মিঠু বলেন,  ভোমরা বন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ীদের পন্য আমদানিতে বৈষম্য করা হচ্ছে। শুধু গরম মসল্যা বলে নয় সকল প্রকার পন্য আমদানিতে ভোমরা বন্দর বরাবরই বঞ্চনার শিকার হয়ে আসছে। কোলকাতাকে পশ্চিমবঙ্গের বানিজ্যিক রাজধানী বলা হয়ে থাকে। অথচ ভোমরা থেকে কোলকাতার দুরত্ব যেমন কম তেমনি যোগাযোগ ব্যবস্থাও খুবই ভালো। কিন্ত দেশের বড় বড় ব্যবসায়ীরা ভোমরা বন্দর ব্যবহার করতে চাইলেও তারা এই বন্দর দিয়ে পন্য আমদানি করতে পারে না।
ভোমরা কাস্টমর্সের বিভাগীয় সহকারী কমিশনার মো. আবদুল কাইয়ুম জানান, ভোমরা বন্দর দিয়ে শুধুমাত্র জিরা আমদানি করা হয়ে থাকে। জিরা আমদানিতে সরকার রাজস্ব পায় ৫৭%। জিরা প্রতি মেট্রিকটন মুল্য ধরা হয়ে থাকে ১ হাজার ৮০০ ডলার। কি কারনে অন্য মসল্যা আমদানি হয় না জানতে চাইলে তিনি বলেন এটা এনবিআর কতৃক অনুমোদন নেই।অন্য মসল্যা রাজস্ব সম্পকে তিনি বলতে পারেননি। তিনি আর ও বলেন জিরার সাথে যদি অন্য মসল্যা আমদানি করা যেত তাহলে সরকারের বিপুল পরিমান রাজস্ব আদায় হতো।