সমীকরণ


140 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সমীকরণ
অক্টোবর ২৭, ২০২১ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

শেখ মফিজুর রহমান, সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ, সাতক্ষীরা।

আমি তখন খুব ছোট
পাড়ার দেবু আমার আত্মার বন্ধু
আর সে কি না পল্টুর সাথে
মার্বেল গুলো ভাগাভাগি করে নিল
আট আনার আইসস্ক্রিম এর লোভে!
দেবু কি জানতো পল্টু একদিন
আমাকে ল্যাং মেরে ফেলে দিয়েছিলো
ও আমার খুব শত্রু তখন।
সেদিন বুঝলাম বন্ধুত্বের দাম
আট আনা মাত্র!
বরই এর আচারটা মা ভালোই বানাতো
রোদে শুকাতে দিলে
আমরা ভাই বোনেরা কেউ না কেউ
থাকতাম পাহারায়।
ছোট আপা পাহারায় ছিলো সেদিন।
সন্ধ্যায় আচার এর বোয়েম খালি পেয়ে
মা শুরু করলো চোটপাট
ছোট আপা আমার দিকে ইঙ্গিত করে
বললো – তোমার বান্দরকে সামলাও!
আমি অবাক হয়েছি শুধু
বিশ্বাস কি তবে এতোই ঠুনকো?
দিনে দিনে বড় হয়েছি
বুঝেছি একটু একটু করে
সম্পর্কের জটিল সমীকরণ।
আবহাওয়ার বদলের মতো
বৃষ্টি বাদলের মতো
কেউ কখনো কাছে
আবার কখনো দূরে।
সবাই যেন সমঝদার ভীষণ
খুব অংক কষে জীবনে
মুহূর্তেই খুলে ফেলে
হিসেবের খাতা।
কার সাথে কি সম্পর্কে
কতটুকু লাভ, কোন সম্পর্কে
উঠতে পারবো খুব উঁচুতে
তর তর করে।
আর কার থেকে থাকতে হবে দূরে-
সমাজে যার দাম নেই
অর্থ বা যোগাযোগ নেই
নেই ক্ষমতার দাপট।
সেই নিরীহ, গোবেচারার
দাম যেন সেই আট আনার
আইসস্ক্রিমের চেয়েও কম এই জীবনে!
কি সম্পর্কে, কি বন্ধুত্বে
কি পরিবারে কি কর্মক্ষেত্রে
জটিল এই সমীকরণ –
লাভ আর ক্ষতির, সম্ভাব্য প্রাপ্তির।
দিনশেষে কার হিসেবের খেরোখাতা
কতটুকু মেলে জানি না
কিন্তু আমার হিসাবের খাতা
বড্ড এলোমেলো
খুব দেখতে চেয়েছি – দিলাম কতটুকু
পেলাম কি না, দেখতে চাই না।
সম্পর্কের সহজ সমীকরণে
পথ চলতে চাই, হয়তো আমি
অংকে কাঁচা কিংবা আমি
ভীষণ বোকা!
তবুও এই চতুর দলের
সুচতুর ইঁদুর বিড়াল দৌড়ে
কথার চালে বাজিমাত করার দলে
ভিড়বো না কোনোদিন।
প্রাপ্তির খাতায় না হয় থাকুক
বিরাট একটা শূন্য
তবুও তো জানবো-
মনে আমার পূণ্য ছিলো!