সাগরদাঁড়ির মধুমেলায় অশ্লীল নৃত্যের প্রস্তুতি, ২৬ প্যান্ডেল উচ্ছেদ


622 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাগরদাঁড়ির মধুমেলায় অশ্লীল নৃত্যের প্রস্তুতি, ২৬ প্যান্ডেল উচ্ছেদ
জানুয়ারি ২২, ২০১৭ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

মেহেদী হাসান, কেশবপুর ::

পুতুল নাচের নামে অশ্লীল নৃত্য প্রদর্শনের প্রস্তুতির অভিযোগে মধুমেলা প্রাঙ্গন থেকে ২৬টি প্যান্ডেল উচ্ছেদ করেছে যশোর জেলা প্রশাসন। শনিবার বিকেলে যশোরের কেশবপুর উপজেলার সাগরদাঁড়িতে মেলা প্রাঙ্গন থেকে প্যান্ডেলগুলো উচ্ছেদ করা হয়।

এসময় জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবীর ও পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান উপস্থিতি ছিলেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ২১ জানুয়ারি থেকে সপ্তাহব্যাপী মধুমেলার আয়োজন করে যশোর জেলা প্রশাসন। এ বছর জেলা প্রশাসন ২৪ লাখ ৫০০ টাকায় মধুমেলা ইজারা দেয়।

মেলার মাঠে সাবলিজ নিষিদ্ধ করা হয়েছে ইজারা শর্তে। কিন্তু শর্তভঙ্গ করে সাব লিজ দেয়া হয়েছে। একইসঙ্গে মেলায় বাণিজ্যিক কোনো কুরুচিপূর্ণ নৃত্য, দৃশ্য, অশ্লীলতা, পুতুল নাচ, জুয়া, লটারি, হাউজি, ম্যাজিক শো আয়োজন বা প্রদর্শন নিষিদ্ধ আছে। কিন্তু ইজারা শর্তের ৩ ও ৬ ধারা উপেক্ষা করা হয়েছে।

মেলা প্রাঙ্গনে অশ্লীল নৃত্য পরিবেশনের জন্য ২৬টি প্যান্ডেল নির্মাণ করা হয়। এ নিয়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি জেলা প্রশাসনের নজরে আসে। এরপর শনিবার বিকেলে জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবীর ও পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান এবং কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরীফ রায়হান কবীর ও কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শহিদুল ইসলামের উপস্থিতিতে প্যান্ডেলগুলো উচ্ছেদ করা হয়। মাইক, সাউন্ড বক্স, সরঞ্জাম জব্দ করা হয়।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) পারভেজ হাসান সাংবাদিকদের জানান, পুতুল নাচের নামে অশ্লীল নৃত্য পরিবেশনের প্রস্তুতির অভিযোগে প্যান্ডেলগুলো উচ্ছেদ করা হয়েছে। এসময় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার উপস্থিত ছিলেন।

তবে স্থানীয়রা বলছেন, প্রশাসনের উচ্ছেদ অভিযান লোক দেখানো কি না সেটি নিয়ে সংশয় রয়েছে। যাই হোক মেলায় অশ্লীল নৃত্যু পুরোপুরি বন্ধ হোক এটা এলাকাবাসীর দাবি।