সাতক্ষীরার এল্লারচরে যৌতুকের দাবীতে পাষান্ড স্বামী তার স্ত্রীকে পিটিয়ে জখম করেছে


375 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার এল্লারচরে যৌতুকের দাবীতে পাষান্ড স্বামী তার স্ত্রীকে পিটিয়ে জখম করেছে
জুলাই ২৭, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরা উপজেলার ইল্লারচরে যৌতুকের দাবীতে এক গৃহবধূর উপরে নির্যাতন চালিয়েছে পাষন্ড স্বামী। নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর নাম নাজমা খাতুন (৩০)। সে সদর উপজেলার ভোমরা গ্রামের নুর ইসলামের মেয়ে।
গৃহবধূ নাজমা খাতুন জানান, গত ২০বছর পূর্বে  আশাশুনি উপজেলার কদমদাহ গ্রামের তোফাজ্জেল হোসেনের ছেলে লাল্টুর সাথে পারিবারিক ভাবে নাজমা খাতুনের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় নাজমা খাতুনের বাবা লাল্টুকে যৌতুক হিসেবে নগত ৫০হাজার টাকা, ১টি বাইসাইকেল, ঘড়ি, টেলিভিশন, গৃহের যাবতীয় ফার্নিসারসহ ১ভরি ওজনের স্বর্ণের গহনা প্রদান করেন। লাল্টু ও নাজমা খাতুনের দাম্পত্ত জীবনে ১ছেলে এবং ১মেয়ে হয়। যৌতুক লোভি লাল্টু যৌতুকের দাবীতে প্রায় নাজমা খাতুনকে বিভিন্ন সময় মারধর করে এবং তাকে শারিরীক নির্যাতন চালায়। নাজমা খাতুন বাধ্য হয়ে গত ৮ মাস পূর্বে দরিদ্র পিতার কাছ থেকে ৫হাজার টাকা স্বামীকে এনে দেয়। যৌতুক লোভী স্বামী লাল্টু চলতি মাসে আবারো ২০হাজার টাকা বাপের বাড়ি থেকে নাজমা খাতুনকে আনতে বলে। নাজমা খাতুনের বাবা ২০হাজার টাকা পরিশোধ করতে নাপারায়, আবারও বিভিন্ন সময়ে নাজমা খাতুনকে মারপিট করে পাষন্ড স্বামী লাল্টু। সদরের এল্লাচর লাল্টুর বাড়িতে সোমবার বিকাল ৩টায় লাল্টু নাজমা খাতুনকে কাঠের চলা দিয়ে ব্যাপক মারপিট করে। এসময় লাইলনের রশি দিয়ে নাজমা খাতুনের গলায় ফাঁস দিয়ে নির্যাতন চালানো হয়। নাজমা খাতুনের নির্যাতনের খবরপেয়ে তার মা সালেহা খাতুন এল্লারচর মেয়ের বাড়িতে যায়। এসময় ওই যৌতুক লোভি লাল্টু শ্বাশুড়িকেও মারধর করে। পরে স্থানীয় লোকজন নাজমা খাতুন এবং তার মাকে উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এব্যাপারে নাজমা খাতুনের মা সালেহা বেগম বাদী হয়ে লাল্টুর বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন এবং যৌতুকের মামলা করবেন বলে জানা গেছে।