সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী ‘ধোপা পুকুর’ উন্মুক্তের দাবি এলাকাবাসীর


1394 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী ‘ধোপা পুকুর’ উন্মুক্তের দাবি এলাকাবাসীর
জুলাই ১, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আব্দুর রহমান,সাতক্ষীরা ::
২শ বছরের অধিক পুরানো, সাতক্ষীরা শহরের কাটিয়া সরকার পাড়ায় অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী সাতক্ষীরা জেলার ধোপা পুকুর। তৎকালীন বৃটিশ আমল থেকে উক্ত ধোপা পুকুর এলাকার সর্বং সাধারনের জন্য উন্মুক্ত ছিলো। অত্র এলাকায় বসবাস করতো কিছু ধোপাগোষ্ঠী। ঐ পুকুরটিতে কাপড় পরিষ্কার করে তাদের জীবিকা নির্বাহ করতেন। এভাবেই চলতো তাদের দিন এনে দিন খাওয়া জীবন। এলাকার সকল শ্রেণী পেশার মানুষ অত্যন্ত সাচ্ছন্দভরে গোসল থেকে শুরু করে সকল প্রকার ধোয়া মোছার কাজে ব্যবহৃত হত ধোপা পুকুরের পানি। কিন্তু বছর খানেক আগে পুকুরটির মালিকানা বদলি হয়। বর্তমান মালিক গোটা পুকুরটি ঘিরে পাকা প্রাচীর স্থাপন করে। প্রাচীর স্থাপনের সময় এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তি এবং সাধারন জনগন প্রাচীরের কাজে বাধা দেয়। কিন্তু পুকুরের মালিক এলাকার গন্য মান্য এবং সাধারন জনগনকে পাকা ঘাট তৈরি করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে এলাকাবসীর অসুবিধা করে নিজের সুবিধার্থে দীর্ঘ ঐতিহ্যবাহী ধোপা পুকুরের চারপাশ রাতারাতি পাকা প্রাচীর দিয়ে ঘিরে ফেলে। ফলে এলাকাবসীর দীর্ঘদিনের ব্যবহৃত ধোপা পুকুরটির প্রাচীরের ছোট্ট গেইটে তালাবন্দি থাকায় সর্ব সাধারনের গোসল ধোয়া মোছা না করতে পারায় এলাকবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বিগত কয়েক বছর পূর্বে অত্র এলাকায় কয়েকটি অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। বিপদমূহুর্তে ঐ ধোপা পুকুরটিই পানি সরবরাহের একমাত্র সহায়ক উৎস হিসেবে কাজ করেছে। ধোপা পুকুরটি এলাকার মধ্যখানে হওয়ায় সকল শ্রেণীপেশার মানুষের কাজে লাগে। বিস্বস্থ সুত্রে জানা যায়, পুকুরটির প্রভাবশালী মালিক অতি সত্তর ভরাট করে মেস তৈরি করার পরিকল্পনা করছে। পুকুরটি অবমুক্ত করে যাতে সকলে পুনরায় পুকুরটি ব্যবহার করার জোর দাবি জানিয়েছেন।