সাতক্ষীরার গাভায় নিয়মিত স্কুলে উপস্হিত হওয়াই বর্য সেরা পুরস্কার পেল শিক্ষক কংকন দাশ


793 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার গাভায়  নিয়মিত স্কুলে উপস্হিত হওয়াই বর্য সেরা পুরস্কার পেল শিক্ষক কংকন দাশ
জানুয়ারি ৩১, ২০১৯ ফটো গ্যালারি শিক্ষা সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আবু ছালেক :

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ফিংড়ী ইউনিয়নের গাভা এ কে এম আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে নিয়মিত স্কুলে উপস্হিত হওয়াই বর্য সেরা পুরস্কার পেল শিক্ষক কংকন কুমার দাশ, বৃহস্পতিবার সকালে ২০১৮ সালে কোন ছুটি না নিয়ে নিয়মিত যথা সময়ে স্কুলে উপস্হিত হওয়ার জন্য কার্যকরি কমিটি এবং বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে গাভা গ্রামের সুধান্য কুমার দাশের পুত্র গাভা এ কে এম আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক, আদর্শবান শিক্ষক,শ্রদ্ধাভাজন কংকন কুমার দাশকে বিশেষ পুরস্কারে পুরস্কৃত করলেন প্রধান শিক্ষক এস এম শাহাজউদ্দীন,
শিক্ষক জাতির মেরুদন্ড, শিক্ষা ছাড়া কোন জাতি উন্নতি লাভ করতে পারেনা, “যে জাতি যত বেশী শিক্ষিত সে জাতি তত বেশী উন্নত।” এসব প্রবাদগুলো যাকে ঘিরে রচিত হয়েছে তিনি হলেন “শিক্ষক”। শত শত বছর ধরে শিক্ষকরা মানুষ গড়ার কারিগর হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছেন। শিক্ষাগুরু হিসেবে শিক্ষকরা দেশ, সমাজ ও জাতির কাছে শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি। শিক্ষকেরা কী করেন? বাচ্চারা স্কুলে যেতে শুরু করার পর থেকেই শেখানো হয়, সে কিভাবে সমাজে চলাফেরা করবে, বড়দের সাথে কেমন ব্যবহার করবে। বাবা-মায়ের পরেই যেন শিক্ষকের অনেক বড় দায়িত্ব প্রতিটি শিক্ষার্থীদের প্রতি!একটি শিক্ষার্থীর যে মেধা সেটাকে বিকাশ করানোর দায়িত্ব নিচ্ছেন একজন শিক্ষক। তাকে বড় বড় স্বপ্ন দেখতে উৎসাহী করছেন একজন শিক্ষক। তার স্বপ্ন গুলোকে বাস্তবায়িত করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। একটি শিক্ষিত জাতি গড়ছেন একজন শিক্ষক!এতোগুলো দায়িত্ব একজন শিক্ষকের। তাঁর প্রকৃত মূল্যায়ন করা কি সম্ভব হচ্ছে? যিনি একটি সুষ্ঠু জাতি গড়ে তুলছেন, যার কাছে আমরা সারাজীবন ঋণী হয়ে থাকছি তাঁকে আসলে কিভাবে প্রকৃত মূল্যায়ন করতে পারি আমরা। জানি আমরা তাঁদের প্রকৃত মূল্যায়ন কোনো কিছু দিয়েই করতে পারব না। তবুও তাঁদেরকে সম্মানী হিসেবে কিছু প্রদান করা হয়, তাঁদের সেই মহান কাজের জন্য। কিন্তু তাঁদের সম্মানী হিসেবে যা প্রদান করা হচ্ছে তা কতটা যথাযথ। কি কারণে সর্বোচ্চ মেধাবীরা শিক্ষকতা পেশায় আসছেন না আমাদের দেশে। মেধাবীরা কেন অন্য পেশা বেঁছে নিচ্ছেন।অথচ উন্নত দেশ গুলোতে সর্বোচ্চ স্থানে আছে শিক্ষকতা পেশা। সবচেয়ে বেশি সম্মানী তাঁদের প্রদান করা হয়ে থাকে। আর সবচেয়ে মেধাবীরাই যাচ্ছেন শিক্ষকতা পেশায়! কিছু উন্নত দেশের শিক্ষক মূল্যায়নের তথ্য দেখে নিতে পারি আমরা। টপ চারটি দেশ সবচেয়ে বেশি বেতন দিচ্ছেন শিক্ষকদের।কেননা শিক্ষক জাতির কর্নধর,তাই শিক্ষকদের মুল্যায়ন সকলের করতে হবে,কিন্ত বর্তমানে শিক্ষক নিয়োগে মেধাবিদের না নিয়ে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে নেওয়া হচ্ছে শিক্ষক,শোনা যায় ১০ লক্ষ ১৫ লক্ষ টাকার বিনিময়ে নিয়োগ হচ্ছে শিক্ষক,আর সেই শিক্ষক কি কংকন কুমার দাশের মত আদর্শ বান শিক্ষক হবে, ইতিমধ্যেই গাভা এ কে এম আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগ হবে সহকারি প্রধান শিক্ষক এ জন্য প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে,তবে অভিভাবক মহলের জোর দাবি কার্যকরি কমিটির কাছে ১০ লক্ষ ১৫ লক্ষ টাকা না নিয়ে একজন আদর্শবান শিক্ষককে নিয়োগ দিবেন তাহলে শিক্ষার কোন অবনতি হবে না,সেই শিক্ষক যেন নির্মল কুমারের মত হয়,সেই শিক্ষক যেন বিধান চন্দ্র সরকারের মত হয়, সেই শিক্ষক যেন শাহাজউদ্দীনের মত হয়, সেই শিক্ষক যেন কংকন কুমার দাশের মত হয়, তাই একজন সৎ আদর্শবান সহকারি প্রধান শিক্ষক নিয়োগ হবে এমন প্রত্যাসা সকল অভিভাবকের কার্যকরি কমিটির কাছে।