সাতক্ষীরার ডি.বি. ইউনাইটেড হাইস্কুলে জাতীয় শোক দিবস পালন


1071 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার ডি.বি. ইউনাইটেড হাইস্কুলে জাতীয় শোক দিবস পালন
আগস্ট ১৫, ২০১৮ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

মোঃ ফয়জুল হক বাবু::
শোক, শ্রদ্ধা আর ভাল বাসার মধ্যদিয়ে ডি.বি. ইউনাইটেড হাইস্কুলে পালিত হল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকী। বুধবার সকাল ৭টা থেকে ৯:৩০ মিনিট পর্যন্ত বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক মাওলানা মোঃ মোহসিন উদ্দীন ও শিক্ষার্থীরা কোরআন পাঠ করেন। পরে শোক দিবস উপলক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়। কর্মসূচীর অংশ হিসাবে কবিতা আবৃত্তি, দেশত্ববোধক গান ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
বীর মুক্তিযোদ্ধা স.ম. শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে বিদ্যালয়ের মোহাম্মর হোসেন মিলনায়তনে হাজার অন্যায়ের প্রতিবাদকারী, বাঙ্গালীর পথ প্রদর্শক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাতক্ষীরা সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ আসাদুজ্জামান বাবু। অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা সদর থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাবু গনেশ চন্দ্র মন্ডল। সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ত্রান বিষয়ক সম্পাদক সম জালাল উদ্দীন, ৮নং ধুলিহর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মিজানুর রহমান বাবু, সাতক্ষীরা জেলা তাঁতী লীগের সদস্য সচিব মোঃ মনিরুজ্জামান তুহিন, ডি.বি. ইউনাইটেড হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ মমিনুর রহমান, ব্রহ্মরাজপুর পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এসআই মিরাজ, বিডিএফ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আরশাদ আলী। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি হুমায়ন কবির, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুস, ব্রহ্মরাজপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়াডের সদস্য কুরবান আলী, সমাজ সেবক সফিক মোল্যা, আঃ জলিল, ফজলু সরদার, ডি.বি. ইউনাইটেড হাইস্কুলে সকল শিক্ষক কর্মচারীসহ এলাকার সুধীজন ও শিক্ষার্থীবৃন্দ।


প্রধান অতিথি আসাদুজ্জামান বাবু বলেন, ১৫ই আগস্ট ইতিহাসের একটি জঘন্ন ও ঘৃণিত দিন। যে দিনে একই সাথে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সকল সদস্য কে হত্যা করা হয়। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন নিকৃষ্ট ঘটনা আর আছে বলে আমার জানা নাই। আমরা এমন একজন নেতা ও অভিভাবক কে হারিয়ের্ছি যা কখনও পূরণ হওয়ার নয়। যার নেতৃত্বে আজ আমরা এই স্বাধীন রাষ্ট্র পেয়েছি। যিনি স্বাধীনতা যুদ্ধে নির্যাতিত সকল নারীর অভিভাকের দ্বায়িত্ব গ্রহন করেছিলেন। আজ সেই মহাপুরুষের শাহাদাৎ বার্ষিকী। আমরা সকলে তাঁর ও তার পরিবারের জন্য দোয়া করবো। তিনি আরও বলেন, আমরা দল মত নির্বিশেষে এই মহামানবের আদর্শকে বুকে ধারণ করবো এবং তারই সুযোগ্য কন্য মমতাময়ী মা জননেত্রী শেখ হাসিনারকে তাঁরই আদর্শে দেশ পরিচালনা করার সকল সহযোগিতা করবো এই প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হই।
সকাল ৯.৩০ মিনিটে শুরু হওয়া শোক সভায় কোরআর তেলওয়াত করেন বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র সুমন হোসেন ও গীতা পাঠ করে সৃষ্টি দেবনাথ। শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মমিনুর রহমান, পরে উপস্থিত অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মোঃ মনিরুজ্জামান তুহিন, মিজানুর রহমান বাবু, সম জালাল উদ্দীন, বাবু গনেশ মন্ডল ও সমাপনী বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সম শহিদুল ইসলাম। বক্তারা সকলে জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারের নিহতদের আত্মার মাগফিরত কামনা করেন। পরে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে “বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্ম জীবনী” ও “কারাগারে রোজনামোচা” নামক বই পুরস্কার হিসাবে তুলে দেন। অনুষ্ঠান শেষে বঙ্গবন্ধু, তার পরিবার ও দেশের মঙ্গল কামনা করে বিশেষ দোয়া পরিচালনা করেন ধর্মীয় শিক্ষক মাওলানা মোহসিন উদ্দীন। সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বিদ্যালয়ের সহকারী গ্রহন্থগারিক মোঃ মুকুল হোসেন।
##