সাতক্ষীরার তালায় খ্রীস্টান মিশনে আগুন


294 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার তালায় খ্রীস্টান মিশনে আগুন
এপ্রিল ১১, ২০১৯ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

*চারটি ঘর মূল্যবান কাগজপত্র ও সম্পদ ভষ্মীভূত

*প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষয় ক্ষতি

ইব্রাহিম খলিল/বি.এম জুলফিকার রায়হান ::

সাতক্ষীরার তালা উপজেলার মহান্দি গ্রামে খ্রীস্টান মিশনে আগুন লেগে চারটি ঘর ভষ্মীভূত হয়েছে। এতে কোনো প্রাণহানির ঘটনা না ঘটলেও মিশনের মূল্যবান কাগজপত্র এবং অন্যান্য সম্পদ পুড়ে গেছে। এতে প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।
বুধবার গভীর রাতে অগ্নিকান্ডের এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে গ্রামবাসী পানি ঢেলে আগুন নিভিয়ে ফেলে। এরই মধ্যে সাতক্ষীরা থেকে ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সহায়তা করে।

স্থানীয় খলিলনগর ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান রাজু জানিয়েছেন প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত। একই কথা জানিয়ে তালা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেহেদি রাসেল বলেন তারপরও বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষ। তবে মিশনের পালক অনাদি মোহন জানান তার সাথে গ্রামের কয়েকজন খ্রীষ্টান সদস্যের বিরোধ চলছিল। এরই জেরে এ ঘটনা ঘটেও থাকতে পারে। তিনি জানান আগুনে ২০ লাখ টাকার সম্পদ নষ্ট হয়ে গেছে।
মিশনের পালক অনাদি মোহন জানান গভীর রাতে সবাই যখন ঘুমে অচেতন তখনই এ ঘটনা ঘটে। তিনি জানান মুহুর্তেই টিন শেডের চারটি ঘরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এতে কমপক্ষে আটটি কমপিউটার , দুটি ল্যাপটপ, কয়েকটি সিলিং ফ্যান এবং ২৩৩ জন শিশুর জন্য রাখা শিক্ষা উপকরন, ব্যাগ, শুকনো খাবার ও স্বাস্থ্য সেবার যাবতীয় উপকরণ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। তিনি আরও জানান ‘মহান্দি এজি মিশন’ নামের এই খ্রীস্টান মিশনটি ১২ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত। এখানে রক্ষিত এতো দিনের যাবতীয় ডকুমেন্ট আগুনে পুড়ে গেছে। টিন শেডের এই ঘরের মধ্যে রয়েছে বাঁশের চাচের বেড়া। ফলে আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে বলে মন্তব্য করেন তিনি। তিনি আরও জানান এই মিশনে খ্রীস্টান শিশুদের লেখাপড়া শেখানো, তাদের স্বাস্থ্যসেবাদান এমনকি মেয়েরা বিবাহযোগ্য হওয়া পর্যন্ত সব দায়িত্ব পালন করা হয়ে থাকে। তার অভিযোগ এসব নিয়ে তার সাথে স্থানীয় কয়েকজন খ্রীষ্টান সদস্যের মত বিরোধ চলছিল।
মিশনের নৈশপ্রহরী আসগর আলি জানান,রাতে পাহারাকালিন তিনি কিছুক্ষণের জন্য তন্দ্রালু হয়ে পড়েন। হঠাৎ আগুন দেখে তিনি চিৎকার দিলে লোকজন ছুটে আসে।
এদিকে পালক অনাদি মোহন আরও জানান,সর্বশেষ তার নিজ ঘরে আগুন লাগার আগেই তিনি তার মোটর সাইকেল, টিভি ,ফ্রীজ বের করে আনেন। তিনি জানান আগুন লাগা ঘরগুলি তালাবদ্ধ ছিল। এর জানালাগুলিও ভেতর থেকে ভালভাবে লটকানো ছিল। এ জন্য সেখানকার কোনো সম্পদ তিনি চেষ্টা করেও বের করে আনতে ব্যর্থ হন।
সাতক্ষীরা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আজিজুর রহমান জানান ‘ আমিসহ আমার সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে মিশনের তালা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করার আগেই বেশিরভাগ সম্পদ পুড়ে যায়। পরে আগুন পূর্ন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়’।
অগ্নিকান্ডের এ ঘটনায় তালা থানায় একটি অভিযোগ দায়েরের কার্যক্রম চলছে বলে জানান পালক।

#