সাতক্ষীরার নলতা ম্যাটসে নজিরবিহীন দূর্নীতি !


351 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার নলতা ম্যাটসে নজিরবিহীন দূর্নীতি !
জুন ২৮, ২০১৯ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি স্বাস্থ্য
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সরকারি কেনাকাটায় বালিশ কেলেংকারির পর এবার সাতক্ষীরায় ফুটবল কেলেংকারি ধরা পড়েছে। সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজী (আইএইচটি) এবং মেডিক্যাল এ্যাসিসট্যান্ড ট্রেনিং স্কুল (ম্যাটস)-এ ৫ থেকে ৭শ’ টাকা মূল্যের একটি ফুটবল কেনা হয়েছে ৫ হাজার টাকায় । ১ থেকে দেড় হাজার টাকার স্টেথোস্কোপ ও বিপি মেশিনের কেনা হয়েছে ৯ হাজার টাকা। একটি ক্রিকেট ব্যাটের ক্রয় মূল্য ধরা হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। এভাবেই উচ্চ মূল্যে প্রায় সাড়ে ২২ কোটি টাকার সরকারিভাবে খেলার সামগ্রী, বইপত্র, আসবাবপত্র ও স্বাস্থ্য যন্ত্রাংশ ক্রয় করা হয়েছে। সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজী (আইএইচটি) ও মেডিক্যাল এ্যাসিসট্যান্ড ট্রেনিং স্কুল (ম্যাটস) নামক দুটি প্রতিষ্ঠানে এইসব মালামাল ক্রয় করা হয়েছে বলে জানাগেছে। বিপুল পরিমান সামগ্রী ক্রয়ে ছিলেন সাবেক সিভিল সার্জন ডা. তৌহিদুর রহমানসহ হাফ ডজনের বেশি সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারি। ৩টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বিপুল পরিমান এসব পণ্য উচ্চ মূল্যে ওই দুটি প্রতিষ্ঠানে এসব মালামাল সরবরাহ করেছে।

তথ্যানুসন্ধানে জানাগেছে , বিগত ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজী (আইএইচটি) এবং মেডিক্যাল এ্যাসিসট্যান্ড ট্রেনিং স্কুল (ম্যাটস) নামক দুটি প্রতিষ্ঠানে এসব সামগ্রী ক্রয়ের জন্য বরাদ্দ আসে। বরাদ্দের বিপরিতে বিগত বছরের ২০ ফেব্রুয়ারি আইএইচটির সামগ্রী ক্রয়ের জন্য দৈনিক কালের কণ্ঠ ও ডেইলি সান পত্রিকায় টেন্ডার বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়। একই সাথে একই দিনে দৈনিক আমার সংবাদ ও নিউজ টুডে পত্রিকায় ম্যাটস’র জন্য এসব সামগ্রী ক্রয়ের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এতে ৪টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে। পরে দরপত্রগুলো মুল্যায়নের জন্য গত বছরের ৪এপ্রিল দরপত্র মূল্যায়ন কমিটির সভায় (ম্যাটস ও আইএইচটি) প্রতিষ্ঠান দুটির দায়িত্বপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সাতক্ষীরার সাবেক সিভিল সার্জন ডা. তৌহিদুর রহমান, কমিটির সদস্য ডা. আকছেদুর রহমান, ডা. মো. আব্দুল লতিফ, শেখ আব্দুল আলিম, স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপ-সহকারি প্রকৌশলী আমিনুর রহমান, আরএমও কালিগঞ্জ ডা. শেখ তৈয়েবুর রহমান ও দেবহাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর মেডিকেল অফিসার ডা. মো. মেহেদি হাসান আলোচনার মাধ্যমে ৩টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে এসব মালামাল সরবরাহের জন্য দায়িত্ব প্রদান করেন।

দায়িত্বপ্রাপ্ত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে, ঢাকার উত্তরার মেসার্স বেনিভোলেন্ট এন্টারপ্রাইজ এর স্বত্তাধিকারি শাহিনুর রহমান, ঢাকার শ্যামলীর নলতা শরিফ সার্জিক্যাল এর স্বত্তাধিকারি তরিকুল ইসলাম ও ঢাকার পুরানা পল্টনের মেসার্স ইউনিভার্সাল ট্রেড কর্পোরেশনের স্বত্তাধিকারি আসাদুর রহমান।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে মেসার্স বেনিভোলেন্ট এন্টারপ্রাইজ ৪ কোটি ৪৯ লাখ ৯৯ হাজার ৭২০ টাকার খেলার সামগ্রী ও আসবাবপত্র সরবরাহ করেছে। এরমধ্যে নলতা ম্যাটস এ ২কোটি ২৪ লাখ ৯৯ হাজার ৮১০ টাকার এবং আইএইচটিতে ২ কোটি ২৪ লাখ ৯৯ হাজার ৯১০ টাকার আসবাবপত্র ও খেলার সামগ্রী সরবরাহ করে। তবে মোট টাকার মধ্যে ৭৬ লাখ ৫১ হাজার ৬৬০ টাকার ট্যাক্স ও ভ্যাট প্রদান করেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। ফলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি নীট বিল পেয়েছেন ৩ কোটি ৭৩ লাখ ৪৮ হাজার ৬০ টাকা।

একইভাবে নলতা শরিফ সার্জিক্যাল ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্তাধিকারি তরিকুল ইসলাম মোট ৪৯ লাখ ৯৭ হাজার ২৫ টাকার বইপত্র সরবরাহ করেছে। এরমধ্যে ম্যাটস এ ২৪ লাখ ৯৮ হাজার ৯৯৩ টাকার এবং আইএইচটিতে ২৪ লাখ ৯৮ হাজার ৩২ টাকার বইপত্র রয়েছে। ঠিকাদারি এই প্রতিষ্ঠানটি ৪ লাখ ৪৯ হাজার ৭৩৪ টাকা সরকারকে ভ্যাট ও ট্যাক্স প্রদান করেন।
এছাড়া ঢাকার পুরানা পল্টনের মেসার্স ইউনিভার্সাল ট্রেড কর্পোরেশন কালিগঞ্জের নলতা ম্যাটস ও আইএইচটিতে মোট ১৭ কোটি ৪৯ লাখ ২৪ হাজার ১৬৪ টাকার বিভিন্ন প্রকার স্বাস্থ্য যন্ত্রাংশ ও অন্যান্য সামগ্রী সরবরাহ করেন। এরমধ্যে ম্যাটস এ ৭ কোটি ৭৪ লাখ ৫৮ হাজার ৬৫০ টাকার এবং আইএইচটিতে ৯ কোটি ৭৪ লাখ ৬৫ হাজার ৫১৪ টাকার স্বাস্থ্য যন্ত্রাংশ ও অন্যান্য সামগ্রী রয়েছে। তবে প্রতিষ্ঠানটি সরকারকে ভ্যাট ও ট্যাক্স দিয়েছেন ২ কোটি ৯ লাখ ৯০ হাজার ৯০৫ টাকা।

এই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি যে সমস্ত যন্ত্রাংশ সরবরাহ করেছে তার মধ্যে রয়েছে ডুয়েল সেক্স টরস ২০পার্ট, চায়না, ১২টি করে প্রতিটির মূল্য ৩ লাখ ৩৩ হাজার টাকা করে মোট ৩৯ লাখ ৯৬ হাজার টাকা। ডুয়েল সেক্স টলস্ উইথ ওপেন ব্যাক (২০ পার্ট) ১২টি করে প্রতিটির মূল্য ৩ লাখ ৩৩ হাজার টাকা করে মোট ৩৯ লাখ ৯৬ হাজার টাকা। স্পাইনাল কড এন্ড স্পাইনাল নার্ভস চায়না ১২টি। প্রতিটির মুল্য ৫৫ হাজার ৫০০ টাকা করে ৬ লাখ ৬৬ হাজার টাকা। ইউরিনারি ওরগান চায়না ১০টি, প্রতিটি ৪৮ হাজার ১০০ টাকা করে ৪লাখ ৮১ হাজার টাকা। ফিমেল পেলভিস চায়না ১০টি, প্রতিটির মুল্য ৪৮ হাজার ৮০০ টাকা করে মোট ৪ লাখ ৮৮ হাজার টাকা। হিপ জয়েন্ট সেকশান ৪৪ হাজার ৪০০ টাকা প্রতিটি। ৩ সেটের দাম পড়েছে ১লাখ ৩৩ হাজার ২০০ টাকা। ফুললি অটোমেটেড ক্লিনিক্যাল ক্যামেস্ট্রি এ্যানালাইজার, জার্মানী, একটি মূল্য ৭৪ লাখ টাকা। ট্রাইনোকুলার মাইক্রোস্কপ ইউএসএ ২টির মুল্য ৩৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা। বাইনোকুলার এলইডি মাইক্রোস্কপ প্রতিটির মুল্য ২ লাখ ২২ হাজার টাকা করে ৫৩টির মূল্য ১কোটি ১৭লাখ ৬৬হাজার টাকা। এভাবেই ম্যাটসএ ১০৬ প্রকার ও আইএইচটিতে ১০৪ প্রকার মোট ২১০ প্রকারের বিভিন্ন স্বাস্থ্য যন্ত্রাংশ ও মেশিন ক্রয় করা হয়েছে ১৭ কোটি ৪৯ লাখ ২৪ হাজার ১৬৪ টাকায়। নলতা তথা কালিগঞ্জবাসী বিপুল পরিমান এসব কেনাকাটায় ধন্য হলেও প্রকৃত মুল্য নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। বাজার মূল্যের চেয়ে বেশি দরে এসব পণ্য ক্রয় করার অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে মেসার্স বেনিভোলেন্ট এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধিকারি শাহিনুর রহমান ম্যাটস ও আইএইচটিতে সরবরাহ করেছেন, খেলার জন্য ফুটবল ২০টি ১লাখ টাকা ( প্রতিটি ৫হাজার টাকা ) , ক্রিকেট ব্যাট ৫০টি সাড়ে ৭লাখ টাকা(প্রতিটি ১৫ হাজার টাকা ) , এছাড়াও রয়েছে ক্রিকেট বল, প্যাড, হেলমেড, গ্লোবস, ক্রিকেট স্ট্যাম্পসহ অন্যান্য খেলার বিভিন্ন ধরণের ৫৮টি সামগ্রী। এই সামগ্রী সরবরাহ করে ম্যাটস ও আইএইচটি কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি বিল নিয়েছেন ভ্যাট ও ট্যাক্স বাদে ৮৯ লাখ টাকা। বিপুল পরিমান এই টাকার খেলার সামগ্রী দিয়ে প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা খেলা ধুলা করবেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানায়।

এছাড়াও ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটির সরবরাহকৃত আসবাবপত্রের মধ্যে রয়েছে সিনিয়র এক্সিকিউটিভ টেবিল প্রতিটির মূল্য ৮০ হাজার ৫০০ টাকা, হাফ সেক্রেটারি টেবিল ৪৯ হাজার ৩০০ টাকা, স্টীল আলমিরা ৪০ হাজার ৭০০ টাকা করে ১০টি, গ্লাস আলমিরা ৪০ হাজার ৭০০ টাকা করে ১০টি, স্টীল ফাইল কেবিনেট ২৮ হাজার ৫৫০ টাকা করে ১৫টি সর্বমোট ম্যাটস এ ৫২টি আসবাবপত্র ও ২৯টি খেলার সামুগ্রী সরবরাহ করে বিল নিয়েছেন ২ কোটি ২৪ লাখ ৯৯ হাজার ৮১০ টাকা। পাশাপাশি এই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি আইএইচটি তে ৪৬টি আসবাবপত্র ও ২৯টি খেলার সামগ্রী সরবরাহ করে বিল নিয়েছেন ২কোটি ২৪লাখ ৯৯ হাজার ৯১০ টাকা।

এসব আসবাবপত্র ও খেলার সামগ্রী বুঝে নিতে গঠিত সার্ভে কমিটির দায়িত্বে ছিলেন ডা: মেহেদী হাসান, ডা. তৈয়েবুর রহমান, ডা. আকছেদুর রহমান এবং ম্যাটস ও আইএইচটির ভারপ্রাপ্ত স্টোরকিপার মামুন অর রশিদ। গত বছরের ৪ জুন থেকে বিভিন্ন সময় এসব মালামাল তারা বুঝে নিয়েছেন।

নলতা শরিফ সার্জিক্যাল এর স্বত্তাধিকারি তরিকুল ইসলাম ম্যাটস এর আওতায় বই সরবরাহ করে বিল নিয়েছেন ২৪ লাখ ৯৮ হাজার ৯৯৩ টাকা। আপরদিকে আইএইচটির আওতায় বিভিন্ন প্রকারের বই সরবরাহ করে বিল নিয়েছেন ২৪ লাখ ৯৮ হাজার ৩২ টাকা মাত্র।

এদিকে ৫হাজার টাকা মুল্যের বল প্রদানকারি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স বেনিভোলেন্ট এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধিকারি শাহিনুর রহমানের সাথে কথা বললে তিনি জানান, ছোট আইটেম অনেক সময় দরদামের তারতম্য হয়ে যায়। তবে এসব দাম সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষই নির্ধারণ করেছেন বলে দাবী করেন তিনি। তিনি আরও বলেন, এসব পণ্য সঠিক মুল্যে ও ভালমানের সরবরাহ করা হয়েছে।
নলতা ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজী (আইএইচটি) ও মেডিক্যাল এ্যাসিসট্যান্ড ট্রেনিং স্কুল (ম্যাটস) এ দুটি প্রতিষ্ঠানের বর্তমান অধ্যক্ষ (অতিরিক্ত দায়িত্বে) সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডা. রফিকুল ইসলামের সাথে কথা বলে কেনাকাটায় কোন অনিয়ম হয়েছে কি না তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি বলতে পারবো না, কারণ আমার আমলে কোন কেনাকাটা হয়নি। এসময় তিনি আরও বলেন, ২০১৭-১৮ ও ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে প্রতিষ্ঠান দুটির জন্য যেসব পণ্য কেনা কাটা হয়েছে তা সাবেক সিভিল সার্জন ডা: তৌহিদুর রহমানের আমলের আমি এটুকুই জানি, আর কি হয়েছে তা তিনিই বলতে পারবেন।

সাবেক সিভিল সার্জন ও প্রতিষ্ঠান দুটির তৎকালিন অধ্যক্ষ ডা: তৌহিদুর রহমান জানান, এ অঞ্চলে এ ধরণের কোন প্রতিষ্ঠান না থাকায় খুলনা বাগেরহাটসহ অন্যান্য এলাকা থেকে সাতক্ষীরার ছেলে মেয়েরা পড়ে আসতো। আমি সিভিল সার্জন থাকাকালিন সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী আ ফ ম ডা. রুহুল হক স্যারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সাতক্ষীরায় ম্যাটস এবং আইএইচটির অনুমোদন হয়। শুধু সাতক্ষীরা নয়, দেশের আরও ৮টি স্থানে হলেও সেসব জায়গায় এখনও চালু করা সম্ভব না হলেও এখানে হয়েছে। ফলে বরাদ্দ অনুযায়ী নতুন প্রতিষ্ঠানের সব কিছুই কেনা লাগে। দাম কম বেশি হতেই পারে।

#