সাতক্ষীরার নিগার সুলতানা লিমার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প


240 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার নিগার সুলতানা লিমার উদ্যোক্তা হওয়ার গল্প
মে ১০, ২০২১ ফটো গ্যালারি শিক্ষা সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আজকের যুগে ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে পড়াশুনা করা মানেই নিজে অন্য জগতে পৌঁছে যাওয়া। চাকুরী ছাড়া আর কিছুই তখন স্ট্যাটাসের সাথে যায়না। সাধারন ধারণা এমনই। আপনার চিন্তা-চেতনা বদলে দিতে চাওয়া এক মেয়ের গল্প শুনব আজ। চলুন গল্প শুনি–

মেয়েটি “ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়”-থেকে “Child Development and Social Relationship”-এ মাষ্টার্স ডিগ্রী অর্জন করার পর, দু-দুটি ডেভলপমেন্ট কোম্পানিতে ইনচার্জ হিসাবে চাকুরী জীবন শুরু। চাকুরির পাশাপাশি মেয়েটি “ধানমন্ডি ল-কলেজ”-থেকে এল,এল,বি কমপ্লিট করে।

ভালোই চলছিলো সবই। চাকুরি, সংসার মিলিয়ে খুব আনন্দেই যাচ্ছিল দিনগুলি। হঠাৎ করে সুখের সংসারে নতুন সুখের আগমন বার্তা-মেয়েটি মা হতে যাচ্ছে। এরপর মেয়েটি চাকুরি ছেড়ে নিজের বাবার বাড়ি সাতক্ষীরাতে ফিরে আসে।

এই ফিরে আসা শুধু যে মাতৃত্বের স্বাদ পেতে নয়, মেয়েটি নিজেই তা কি জানতো? জানতো না! ভাগ্য যে মেয়েটির জন্য অন্য কিছু ঠিক করে রেখেছিলো। মেয়েটির বেবি একটু বড়ো হওয়ার পর যখনই কিছু শুরু করার চিন্তা তখনই সারা পৃথিবীব্যাপি করোনা মহামারীর আগমন।

এতো পড়াশুনা, চাকুরি করা একটা মেয়ে হঠাৎ করে নিজেকে আবিষ্কার করলো কোথাও তার কিছু করার নেই। সারাদিন অলস সময় কাটাতে কাটাতে একসময় মেয়েটি মানসিক অবসাদগ্রস্থ হয়ে পড়ে।

কি করা যায় ভাবতে ভাবতে মেয়েটি সিদ্ধান্ত নেয় হোমমেড খাবার তৈরির। অনলাইন পেইজ খুলে শুরু মেয়েটির উদ্যোক্তা জীবন।ভাবুনতো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাষ্টার্স করা একটা মেয়ে নিজের হাতে খাবার তৈরি করে অনলাইনে সেল (বিক্রি) করছে। অথচ মেয়েটি চাইলে আরো কিছুদিন অপেক্ষা করে ভালো কোনো চাকুরিও করতে পারতো।

চমকে গেছেন তাইনা! ভাবছেন শখের বশে করছে দুইদিন পরেই থেমে যাবে। না মেয়েটি থেমে যায়নি, এখনো চলছে এটা না বলে, বলা ভালো ছুটছে-মেয়েটির উদ্যোক্তা জীবন। পেইজ খোলার দুইদিনের মধ্যে অর্ডার, সাথে ভালো রিভিউ-আর কি চাই।

স্বাধীন পেশা, নিজে কিছু করতে পারা-এই আনন্দের স্বাদ যে একবার পেয়েছে সে কি আর অন্যের গোলামী করতে চায়। মেয়েটির পরিচিত জনেরা ঢাকা থেকে যখন তার থেকে প্রডাক্ট নিতে চাইলো, কি করা যায় ভাবতে ভাবতে মেয়েটি সিদ্ধান্ত নিলো খাঁটি গাওয়া ঘি, মধু নিয়ে কাজ করার। ধীরে ধীরে সাতক্ষীরার বিখ্যাত সন্দেশ, চুই ঝাল এবং নিজের হাতে বানানো নাড়ু নিয়ে মেয়েটির কাজ করা শুরু।

এক বন্ধুর মাধ্যমে মেয়েটির “সাতক্ষীরা অনলাইন শপ”-গ্রুপে যুক্ত হওয়া।উদ্যোক্তা জীবনে যখনই মেয়েটি কোনো সমস্যাই পড়েছে

গ্রুপের এডমিন শেখ ইমরান হোসেন স্যারকে সবসময় পাশে পেয়েছে অভিভাবকের মতো, বন্ধুর মতো, বড়ো ভাইয়ের মতো। গ্রুপ থেকে প্রাপ্তির কথা জানতে চাওয়ায় মেয়েটি বারবার বলেছে–নিজের আলাদা পরিচিতি, অনেকগুলা ভাই-বোন, বন্ধু এবং মেন্টর হিসাবে SK Imran Hossain স্যার কে পেয়েছে।

উদ্যোক্তা জীবনের শুরু থেকে মেয়েটির পথচলা মসৃন হয়েছে তার স্বামীর জন্য। পাশে থেকেছে, সাহস যুগিয়েছে, কখনো বলেনাই এই কাজ তুমি করো না, আমার সম্মান থাকবেনা বা তুমি ছোট হয়ে যাবে।

মেয়েটির বাবা-ভাই চাইতো না মেয়েটি এই কাজ করুক, তাদের চাওয়া চাকুরি না হয় আইনজীবী হওয়া। কিন্তু মেয়েটির মা সবসময় মেয়েটির পাশে ছিলো, আছে,সকল কাজেই তাকে সাহায্য করে।

উদ্যোক্তা জীবনের প্রাপ্তি কি জানতে চাওয়ায় মেয়েটি যে কথা বলেছিলো সেটা যেকোনো মেয়ের জন্য পরম আরাধ্য। মেয়েটি জানায়-প্রতিদিন,প্রতিটি মুহুর্ত আমি আমার বাচ্চা মেয়েটির বেড়ে ওঠার সাক্ষী হচ্ছি, তার হাসি-আনন্দ কাছ থেকে দেখছি এর চেয়ে বড়ো কোনো প্রাপ্তি আর হয়না। চাকুরী বা অন্য কোনো পেশায় থাকলে এটা কখনোই সম্ভব হতো না। মেয়েটি এখন নিজের এবং মেয়ের সব খরচ নিজেই বহন করতে পারে, পাশাপাশি পরিবারের অন্যদের জন্যও কিছু করতে পারে।

“সাতক্ষীরা অনলাইন শপ “-গ্রুপের সাথে মেয়েটির পথচলা শুরু ৬ আগষ্ট ২০২০ইং তারিখে।

মেয়েটির নাম– নিগার সুলতানা লিমা