সাতক্ষীরার বিনেরপোতাস্থ ঋশিল্পীর সামনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবী


500 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার বিনেরপোতাস্থ ঋশিল্পীর সামনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবী
অক্টোবর ১০, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক :
জেলা প্রশাসকের নির্দেশের ৮ মাসেও সরানো হয়নি বিনেরপোতাস্থ ঋশিল্পী ইন্টারন্যাশনালের পাশে অবৈধ স্থাপনা। একজন শিক্ষকের দখলে থাকা অবৈধ ঐ স্থাপনায় গড়ে উঠা দোকানে গভীর রাত পর্যন্ত চলে আড্ডা। সন্ধ্যার পরে ওই স্থানে অপরিচিত লোকের আনাগোনাও হচ্ছে। সম্প্রতি পুলিশ সুপার দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ দিলেও বন্ধ করেননি ক্ষমতাধর ঐ স্কুল শিক্ষক।

অন্যদিকে সড়ক ও জনপদ বিভাগ জানায়, অবৈধ স্থাপনা বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়ে নোটিশ নেওয়া হয়েছে। জেলা প্রশাসন থেকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট না দেওয়ায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা সম্ভব হচ্ছে না। ঋশিল্পী ইন্টারন্যাশনালে থাকা ৩ বিদেশীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য স্থানীয়রা অবৈধ স্থাপনা দ্রুত উচ্ছেদের দাবী জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, বিনেরপোতাস্থ ঋশিল্পী ইন্টারন্যাশনালের পাশে তালতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হরেন্দ্র নাথ সরকারের তিন তলা বাড়ি রয়েছে। তার বসত ভিটার পাশে সাতক্ষীরা সড়ক ও জনপদ বিভাগের জমি রয়েছে। রাস্তার ধারে এ জমিগুলো পজিশন ভালো হওয়ায় তিনি অবৈধভাবে দখল করে ঘর নির্মাণ করেন। সেখানে চায়ের দোকানসহ ৫টি দোকান অবৈধ যায়গায় তৈরি করা হয়েছে। হরেন্দ্র নাথ প্রত্যেক ঘরের জন্য ১৫ হাজার টাকা করে সিকিউরিটি নিয়ে মাসে ৭শ থেকে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া আদায় করে। অন্যদিকে ঐ স্থানে সাতক্ষীরা-খুলনা সড়কের পাশে ২০-২৫ ফুট গর্ত করে মাটি উত্তোলন করে। মাটি তার বাড়ির ভিট ভরাট করেছে বলে স্থানীয়রা জানান। ফলে রাস্তাটিও হুমকির মুখে পড়েছে। বর্তমানে সেখানে পানি উঠায় ছোট ডোবার সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে গত মার্চ মাসে স্থানীয় ৪৯ সাক্ষরিত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি লিখিত আবেদন করে। জেলা প্রশাসক ঐ দিনই ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সড়ক ও জনপদ বিভাগের পাঠায়। কিন্তু আজো কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি সড়ক ও জনপদ বিভাগের কর্মকর্তারা। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, সড়ক ও জনপদ বিভাগের ঐ অঞ্চলের দায়িত্বে নিয়োজিত উপ সহকারী প্রকৌশলী রেজা বিশেষ সুবিধা নিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দিয়েছে। তবে উপ-সহকারী প্রকৌশলী রেজা জানান, সওজের পক্ষ থেকে অবৈধ স্থাপনা সরানোর জন্য নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসককে অবহিত করে উচ্ছেদের জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট না দিলে আমাদের কিছুই করার নেই।

স্থানীয় সূত্র জানায়, অবৈধ স্থাপনায় গড়ে উঠা দোকানে গভীর রাত পর্যন্ত চলে বিভিন্ন আড্ডা। সেখানে সন্ধ্যার পরে সম্প্রতি অপরিচিত লোকের আনাগোনাও বেড়েছে। সম্প্রতি সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির নিজে দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়। কিন্তু তার বাস্তবায়ন হয়নি।

ঋশিল্পী ইন্টারন্যাশনালের বর্তমানে অবস্থান করছেন বিদেশী নাগরিক এ্যানসো, তার স্ত্রী লাওরা ও পাওলা। সংস্থার সাপোর্ট সার্ভিস ম্যানেজার নির্মল সরদার জানান, দোকানে রাতে আড্ডা চলে। তবে সেখানে পুলিশের নজরদারী আছে। পুলিশসহ প্রশাসন বিদেশীদের নিরাপত্তার বিষয়ে সচেতন আছে। আমরাও দোকান মালিকদের সতর্ক করেছি। কিন্তু তারা সব সময় তা মেনে চলেন না। অন্যদিকে, বিদেশী নাগরিকদের নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার জন্য স্থানীয়রা অবৈধ স্থাপনায় গড়ে উঠা দোকান উচ্ছেদের দাবী জানান।