সাতক্ষীরার ভোমরায় বিজিবি ও বিএসএফ’র পতাকা বৈঠক


106 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার ভোমরায় বিজিবি ও বিএসএফ’র পতাকা বৈঠক
আগস্ট ২৮, ২০১৯ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

ভারতের দুবলি এলাকায় বিএসএফ’র গোলাগুলির ঘটনা গুজব

স্টাফ রিপোর্টার ::

সাতক্ষীরা ৩৩ বিজিবি ব্যাটালিয়ন ও বিএফএফ’র মধ্যে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। কালিয়ানি সীমান্তের বিপরীতে ভারতের দুবলি এলাকায় বিএসএফ’র গুলাগুলির গুজবের পর ভোমরায় এ পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। পতাকা বৈঠকে বিএসএফ কর্মকর্তারা জানান, ‘সীমান্তে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে উভয়পক্ষ একযোগে কাজ করছি। কালিয়ানি সীমান্তের বিপরীতে ভারতের দুবলি এলাকায় বিএসএফ কোন প্রকার ফায়ার করেনি।’
কুশখালী গ্রামের আব্দুল কাদেরসহ স্থানীয়রা জানান, ভারতীয় রাখালেরা বাংলাদেশের সীমান্তে গরু পৌছে দেয়। এজন্য বাংলাদেশী রাখাল নিরাপদ ভাবে জীবিকা নির্বাহ করছে। এছাড়া বাংলাদেশি কোন রাখালের সাথে গোলাগুলির ঘটনা ঘটেনি বা কাউকে আহত হতে দেখিনি। তবে, চোরাচালান প্রতিরোধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে বিজিবি ও বিএসএফ।
এব্যাপারে জানতে চাইলে ২নং কুশখালী ইউনিয়ন পরিষদ’র চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম জানান, গরু আনাকে কেন্দ্র করে কোন প্রকার গুলাগুলির ঘটনা ঘটেনি। ঘটনার পর বিজিবি ও বিএফএফ’র মধ্যে পতাকা বৈঠকে বিএসএফ এ তথ্য জানান। তবে, তারের কাটায় কয়েকজন ভারতীয় রাখাল আহত হয়েছে বলে জানা যায়। বাংলাদেশি কোন রাখালের সঙ্গে বিএসএফ’র গোলাগুলির ঘটনা ঘটেনি বা কোন রাখাল আহত হয়নি।
সাতক্ষীরা ব্যাটালিয়ন (৩৩ বিজিবি)’র অধিনায়ক মোহাম্মদ গোলাম মহিউদ্দিন খন্দকার বলেন, কালিয়ানি সীমান্তের বিপরীতে ভারতের দুবলি এলাকায় বিএসএফ’র গুলাগুলির গুজবের পর ভোমরায় আমরা পতাকা বৈঠক করেছি। ভারতীয় কর্মকর্তারা গুলির কথা অস্বীকার করেছেন। তারা বলেছেন, তারা ফায়ার করেন নি।