সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরে চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে ১১৬ কোটি টাকার রাজস্ব আদায়


377 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরে চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে ১১৬ কোটি টাকার রাজস্ব আদায়
অক্টোবর ১৩, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

গোলাম সরোয়ার :
চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরে  রাজস্ব আদায় হয়েছে ১১৬ কোটি ৯ লাখ ৩ হাজার ৫৩৩ টাকা। যা বিগত যে কোনো সময়ের তুলনায় উল্লেখযোগ্য। তার পরও চলতি অর্থবছরের লক্ষ্য অর্জিত হয়নি গেল মাসে। ফলে ঘাটতি রয়েছে ১১ কোটি টাকার উপরে গেল তিন মাসে।
ভোমরা বন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা মো. আব্দুল লতিফ জানান, চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরে প্রথম তিন মাসে ভোমরা বন্দরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য নির্ধারন করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ১২৭ কোটি ৯১ লাখ ৫৯ হাজার টাকা। এরমধ্যে জুলাইয়ে ৩২ কোটি ৭৫ লাখ ৮৭ হাজার ,  আগষ্টে ৪৫ কোটি ৮৯ লাখ ২০ হাজার টাকা ও সেপ্টেম্বরে ৪৮ কোটি টাকা ১৭ লাখ ৫২ হাজার।
এর বিপরিতে গত তিন মাসে অর্জিত হয়েছে ১১৬ কোটি ৯ লাখ ৩ হাজার ৫৩৩ টাকা। এরমধ্যে জুলাইয়ে ২৬ কোটি ৭৮ লাখ ৪৩ হাজার ৮১১ টাকা, আগষ্টে ৩০ কোটি ৯ লাখ ১৩ হাজার ২৯০ টাকা এবং সেপ্টেম্বরে ৫৩ কোটি ২১ লাখ ৪৩ হাজার ৯১১ টাকা। ফলে এই বিপুল পরিমান রাজম্ব অর্জন করেও লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ঘাটতি রয়েছে গেল দিন মাসে ১১ কোটি ৮২ লাখ ৫৫ হাজার ৪৬৭টাকা।
ভোমরা বন্দরের দায়িত্বে থাকা কাস্টমস্রে বিভাগীয় সহকারী কমিশনার(শুল্ক) শরীফ মো. আল-আমীন বলেন, চলতি অর্থবছরে ভোমরা বন্দরের রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য অন্য যে কোনো সময়ের তুলনায় অনেক বেশি। এরপরও নির্ধারিত সময়ের মধ্যে লক্ষ্য অর্জনে সর্বাত্মক ভাবে চেষ্টা করা হচ্ছে।
সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরের সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়শনের চলতি আহবায়ক ও জেলা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষিট্র এর সভাপতি নাসিম ফারুক মিঠু জানান, পন্য আমদানিতে বন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ী ও সিন্ডএফ এজেন্টগন পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা পেলে রাজস্ব যেমন বাড়বে তেমনি ব্যবসায়ীরাও লাভবান হবে। তিনি বলেন, পুর্ণাঙ্গ বন্দরের পরও ভোমরায় পন্য আমদানিতে নানা প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। ভোমরা বন্দর ব্যবহাকারী ব্যবসায়ীদের চাহিদা মত পন্য আমদানিতে বঞ্চিত করা হয়।
উল্লেখ্য ঃ  চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের জন্য ভোমরা বন্দরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য নির্ধারন করা হয়েছে ৬০০ কোটি টাকা। এরমধ্যে জুলাইতে ৩২ কোটি ৭৫ লাখ ৮৭ হাজার, আগষ্টে ৪৫ কোটি ৮৯ লাখ ২০ হাজার, সেপ্টেম্বরে ৪৮ কোটি ১৭ লাখ ৫২ হাজার, অক্টবরে ৪১ কোটি ৩১ লাখ ৫৯ হাজার, নভেম্বরে ৪৭ কোটি ১৯ লাখ ৮৮ হাজার, ডিসেম্বরে ৪৫ কোটি ৬৮ লাখ ৬৮ হাজার জানুয়ারীতে ৫৮ কোটি ৮৩ লাখ ৮৬ হাজার, ফেব্রুয়ারীতে ৬৫ কোটি ৭ লাখ ২১ হাজার, মার্চে ৭৩ কোটি ৪২ লাখ ৪৭ হাজার, এপ্রিলে ৫২ কোটি ২৯ লাখ ৩২ হাজার, মে মাসে ৪৮ কোটি ১২ লাখ ৫৩ হাজার ও জুনে ৪১ কোটি ২১ লাখ ৮৯ হাজার টাকা।
যা গেল অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় তিনগুনেরও বেশি। গত অর্থবছরে ভোমরা বন্দরের রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য নির্ধারন করেছিলো (এনবিআর) ১৬৪ কোটি টাকা। যা পরবর্তীতে মে মাসে এসে সংশোধীত করে লক্ষ্য নির্ধারন করা হয় ৪৭৯ কোটি টাকা। ফলে গত অর্থবছরের রাজস্ব আদায়ের প্রথম লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে তিনগুনেরও বেশি এবার রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে এ বন্দরটিতে।