সাতক্ষীরার মুস্তাফিজ জাদুতে জয় রাজশাহীর


250 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার মুস্তাফিজ জাদুতে জয় রাজশাহীর
জানুয়ারি ২৭, ২০১৯ খেলা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট ::

‘ডেথ ওভারে বল করা অভ্যাস হয়ে গেছে।’ ম্যাচ সেরার পুরস্কার নিতে এসে বলতে গিয়ে হেসেই ফেললেন সাতক্ষীরার মুস্তাফিজ। এ নিয়ে আলাদা কোন ভাবাবেগ কিংবা উচ্ছ্বাস নেই তার। চিটাগংয়ের বিপক্ষে শেষটায় দুর্দান্ত বোলিং করে দলকে জেতালেন মুস্তাফিজ। শেষ ওভারে তার দুর্লভ এবং দুর্দান্ত ইয়ার্কারে বোল্ড করে ফিরিয়েছেন সেট ব্যাটসম্যান সিকান্দার রাজাকে। কিন্তু তা উচ্ছ্বসিত করেনি তাকে। তবে উচ্ছ্বসিত মুস্তাফিজ, বিপিএল এবং বাংলাদেশ ক্রিকেটের ভক্তরা। দলের হার জিতের চেয়ে সম্ভবত মুস্তাফিজের এই ম্যাজিকই বেশি আনন্দ দেয় তাদের।

চট্টগ্রাম পর্বের দ্বিতীয় দিনে প্রথমে ব্যাট করে ১৯৮ রান তোলে রাজশাহী। আসরে তাদের সর্বোচ্চ রান এটি। জবাবে লক্ষ্যের দিকে দারুণ ছুটছিল চিটাগং। দলের হয়ে ইয়াসির আলীর ৩৮ বলে ৫৮ রানের দারুণ এক ইনিংস সেই লক্ষ্য তাড়ায় প্রাণ দেয় চিটাগংয়ের। তার পরে মুশফিক, মোসাদ্দেক কিংবা সিকান্দার রাজারা ঠিক সেভাবে পেরে ওঠেননি।

চিটাগং ভাইকিংস ৮ উইকেট হারিয়ে থেমে গেল ১৯১ রানে। মাত্র ৭ রানে টানটান উত্তেজনার ম্যাচে জয় পেল রাজশাহী। দারুণ জয়ে বিপিএলের পয়েন্ট টেবিলে ইঁদুর দৌড় শুরু হয়ে গেল। ম্যাচে মুস্তাফিজের শেষ দুই ওভারে সিকান্দার আর জাদরান মারতেই পারেননি। মাত্র ১১ রান আসে ওই দুই ওভারে। শেষ ওভারে জয়ের জন্য দরকার ছিল ১৩ রান। মুস্তাফিজ দেন মোটে ৫ রান।

রাজশাহীর বড় স্কোর গড়ার পথে সাতক্ষীরার সৌম্য সরকার করেন ২৬ রান, তার ওপেনিং সঙ্গী জনসন চার্লস করেন ৫৫ রান। ফর্মে ফেরা ইভান্স ৩৬ এবং ঝংকার ৩৭ রান করেন। তার আগে ডেসকটের ব্যাট থেকে আসে ২৭ রান। চিটাগংয়ের হয়ে ইয়াসির ছাড়াও শাহজাদ ২২ বলে ৪৯ রান করেন। মুশফিক ২২ এবং রাজা ২৯ রান করে ফেরেন।