সাতক্ষীরার রাজারবাগান এলাকার টুটুলের বিরুদ্ধে মসজিদের টাকা আত্নসাতের অভিযোগ !


284 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার রাজারবাগান এলাকার টুটুলের বিরুদ্ধে মসজিদের টাকা আত্নসাতের অভিযোগ !
অক্টোবর ২৯, ২০১৮ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

 

আসাদুজ্জামান :
সাতক্ষীরার রাজারবাগান সুদুরডাঙ্গী এলাকার মনিরুজ্জামান টুটুলের বিরুদ্ধে প্রতারনার মাধ্যমে মসজিদের টাকা আতœসাতের অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় শতাধিক জনগন গত শনিবার রাতে তার বিরুদ্ধে সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।
মনিরুজ্জামান টুটুল রাজারবাগান সুদুরডাঙ্গী গ্রামের মৃত জিয়াদ আলীর ছেলে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মনিরুজ্জামান টুটুল স্থানীয় আলমদিনা মসজিদের দীর্ঘ ৪ বছর ক্যাশিয়ার থাকার সুবাদে বহু টাকা প্রতারনা মূলকভাবে আতœসাৎ করেন। বিষয়টি নিয়ে একই মসজিদের তৎকালীন সহ-সভাপতি মুক্তার আলী প্রতিবাদ করেন এবং তিনি মসজিদের টাকার হিসাব চাইলে টুটুল তার উপর ক্ষিপ্ত হন। এক পর্যায়ে ওই মসজিদের পরিচালনা পরিষদের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। এরই জের ধরে টুটুল নিরীহ মুক্তার আলীর বিরুদ্ধে সদর থানায় একটি মিথ্যা জিডি করেন।

অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, টুটুলের স্বভাব-চরিত্র ভাল না। তিনি অত্যান্ত হিং¯্র। এর আগে ওই মসজিদে ইসলামী ফাউন্ডেশন থেকে কুরআন শরীফ বিতরনকালে টুটুল ইসলামী ফাউন্ডেশনের ইমাম হাফেজ জিল্লুর রহমানকেও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ খুন জখমের হুমকি প্রদান করেন। তাকে লোকজনের সামনে অপমান অপদস্ত করেন। বর্তমানে ওই মসজিদে মুসল্লিরা নামাজ পড়তে গেলে এবং নামাজের পর তারা একসাথে দোয়া কালাম পড়লে টুটুল তাদের জেএমবি বলে এলাকায় প্রচার দেন। এর ফলে অনেক মুসল্লি ভয়ে নামাজ পড়তে যেতে পারছেননা। তার কারনে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। আর তাই ওই গ্রামে আইন শৃংখলা রক্ষার্থে এলাকাবাসী টুটুলকে অবিলম্বে গ্রেফতার পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবী জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে মুক্তার আলী জানান, টুটুল আমার বিরুদ্ধে সদর থানায় একটি মিথ্যা জিডি করেই ক্ষ্যান্ত হননি। তিনি সাংবাদিকদের ভুল বুঝিয়ে আমার বিরুদ্ধে স্থানীয় পত্রিকায় একটি নিউজও করিয়েছেন। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে তাকে গ্রেফতারসহ তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানাচ্ছি।

সাতক্ষীরা সদর থানার এস.আই মনির জানান, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।##