সাতক্ষীরায় দুই স্কুলে ভর্তি যুদ্ধ : ১টি আসনে লড়ছে সোয়া ২ জন


399 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় দুই স্কুলে ভর্তি যুদ্ধ : ১টি আসনে লড়ছে সোয়া ২ জন
ডিসেম্বর ২১, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

সেলিম হোসেন :
সাতক্ষীরা শহরের সরকারি দুই স্কুলে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের ভর্তি যুদ্ধ শেষ হয়েছে। সোমবার সকাল ১০টা থেকে ১১ পর্যন্ত ভর্তি যুদ্ধে ১ হাজার ৯০ শিক্ষার্থী অংশ গ্রহণ করেন। দুই বিদ্যালয়ে ৪৮০টি আসনের বিপরীতে তারা প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছে। ফলে প্রত্যেক আসনের বিপরীতে ২ দশমিক ২৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। তবে দুই স্কুলে ভর্তিকে কেন্দ্র করে শহরের তদবিরে নেমেছে। একটি মহল ভর্তিকে কেন্দ্র অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার পায়তারা করছে বলে সূত্রগুলো জানায়। তবে এ ক্ষেত্রে প্রশাসন জিরো টলারেন্সে আছে বলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন কোন ধরনের প্রতারণার শিকার না হওয়ার জন্য স্থানীয় মানুষজনকে সর্তক করেছে।

সূত্র জানায়, সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বালক বিদ্যালয় ও সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় তৃতীয় শ্রেণীর ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় বাংলা ১৫, ইংরেজি ১৫ এবং গণিতে ২০ মোট ৫০ নম্বরের পরীক্ষা নেওয়া হয়। সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় দিবা শাখায় ১২০ টি আসনের বিপরীতে ভর্তির আবেদন জমা পড়েছিল ৩৫১ জনের এর মধ্যে পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করেন ৩৩৪ জন এবং মর্নিং শাখায় ১২০ টি আসনের বিপরীতে ভর্তির আবেদন জমা পড়েছিল ২১৫ জনের এর মধ্যে পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে ২১১ জন। মোট ভর্তির আবেদন জমা পড়েছিল ৫৬৬ জনের এর মধ্যে উপস্থিত ৫৪৫ জন এবং অনুপস্থিত ছিল ২১ জন। সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বালক বিদ্যালয়ে দিবা শাখায় ভর্তির আবেদন জমা পড়েছিল ৩৬১ জনের এর মধ্যে পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করেন ৩৫৩ জন এবং মর্নিং শাখায় ভর্তির আবেদন জমা পড়েছিল ২৫১ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করেন ২৪২ জন। মোট ভর্তির আবেদন ফরম জমা পড়েছিল ৬১২ জনের এদের মধ্যে উপস্থিত ৫৯৫ জন এবং অনুপস্থিত ১৭ জন। পরীক্ষার সময় সরকারি উচ্চ বালক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় এ  দায়িত্ব পালন করেন এবং সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক সরকারি উচ্চ বালক বিদ্যালয়ে দায়িত্ব পালন করেন। এসময় পরীক্ষায় পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাস (সার্বিক) এ এফ এম এহতেশামুল হকসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা। সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এস এম আব্দুল্লাহ আর মামুন জানান, কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই খুবই সুন্দর ভাবে পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। তিনি আরোও জানান, ২২ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ও শিক্ষা বিভাগ কর্তৃক ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

আগামী ২৩ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর সরকারি উচ্চ বালক বিদ্যালয়ে এবং সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এ শ্রেণীতেও দিবা ও মর্নিং দুটি শাখা রয়েছে। দিবা শাখায় ১২ টি আসনের বিপরীতে ভর্তির আবেদন জমা পড়ে ৭৩ জনের এবং মর্নিং শাখায় ১২ টি আসনের বিপরীতে ভর্তির আবেদন জমা পড়ে ১০০টি। এ শাখায় বাংলায় ৩০, ইংরেজি ৩০ এবং গণিতে ৪০ সর্বমোট ১০০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষা সকাল ১০ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত চলবে। এ পরীক্ষাটি খুবই সুন্দর ভাবে সম্পন্ন হবে বলে তিনি আশা করেন।

সূত্র আরো জানায়, দুই স্কুলে শিশু শিক্ষার্থীদের ভর্তিকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন পর্যায় থেকে তদবির শুরু হয়েছে। দুই স্কুলের কতিপয় শিক্ষক তদবির করতে ব্যস্থ হয়েছে। বিশেষ করে ভর্তি পরীক্ষা কে কেন্দ্র করে কোচিং বাণিজ্যে থাকা শিক্ষকরা তাদের শিক্ষার্থীদের ভর্তি করাতে মরিয়া হয়েছে। এ বিষয়ে ভূক্তভোগী কয়েকজন অবিভাবক ভর্তিকে কেন্দ্র করে কোন বিশেষ শিক্ষার্থী যেন বাড়তি সুবিধে না পায় সে বিষয়ে প্রশানসের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।