সাতক্ষীরার সিলভার জুবিলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলনা বিভাগের শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নিবার্চিত


552 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার সিলভার জুবিলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলনা বিভাগের শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নিবার্চিত
অক্টোবর ৫, ২০১৬ ফটো গ্যালারি শিক্ষা সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরার সিলভার জুবিলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২০১৬ সালের খুলনা বিভাগের শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচিত হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা খুলনা বিভাগীয় উপ পরিচালক এ,কে,এম গোলাম মোস্তফার স্বাক্ষরিত  সাতক্ষীরা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে দেওয়া এক চিঠিতে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এর আগে ২০১৫ সালের এ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক চায়না ব্যানার্জী খুলনা বিভাগের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছিলেন।

china-banarjee04-1016
চায়না ব্যানার্জী জানান, গত ১০ আগস্ট  শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচন প্রক্রিয়ায় যাচাই-বাছাই শেষে সাতক্ষীরার সিলভার জুবিলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচন করা হয়। পরে বিভাগীয় পর্যায়ে যাছাই-বাছাইয়ের জন্য তার বিদ্যালয়ের নাম পাঠানো হয়। সেখানে খুলনা বিভাগের ১০ জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় মধ্যে গত ৬ সেপ্টেম্বর যাচাই-বাছাই করা।
সাতক্ষীরা সিলভার জুবিলী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৯৩৫ সালে সাতক্ষীরা শহরের মুনজিতপুর প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এ  বিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা ৪২০জন। এর মধ্যে ছাত্র ২১৬ ও ছাত্রী ২০৪জন।   এ বিদ্যালয়ে  দুইজন প্যারা শিক্ষকসহ শিক্ষকের সংখ্যা ১৫জন। প্রধান শিক্ষকসহ দক্ষ শিক্ষকবৃন্দের প্রচেষ্টায়  ২০১১-১৫ সালের সমাপনী পরীক্ষায় পাশের হার শতভাগ। এ বিদ্যালয় থেকে প্রতিবছর পঞ্চম শ্রেণিতে বৃত্তি পেয়ে থাকে। ২০১২-১৫ সাল তিন বছরে ১১ জন ট্যালেন্টপুলে ও ৫ জন সাধারণ গ্রেডে বৃত্তি পেয়েছে।  বিদ্যালয়ে দেনিক সমাবেশ, সকল ছাত্র-ছাত্রীর ইউনিফর্ম, শিক্ষকদের ইউনিফর্ম, দেয়ালিয়া প্রকাশ, চিত্রাংকন ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, হাতের লেখা প্রতিযোগিতা, সাপ্তাহিক ও মাসিক পরীক্ষা, দুর্বল শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ কোচিঙের ব্যবস্থাসহ নানাবিধ ব্যবস্থা রয়েছে।
চায়না ব্যানার্জী ২০১১ সালে সাতক্ষীরা সিলভার জুবিলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। তারপর থেকে  বিদ্যালয়ে লেখাপড়ার পাশাপাশি পরিবেশগত পরিবর্তন আসতে থাকে। বর্তমানে বিদ্যালয়ের পরিবেশ ও শৃঙ্খলা চোখে পড়ার মতো।
চায়না ব্যানাজী জানান, তার নেতৃত্বে দক্ষ শিক্ষক মন্ডলীর চেষ্টার পাশাপাশি বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা পর্ষদের সহযোগিতায় তাদের এ  বিদ্যালয় খুলনা বিভাগের শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচিত হয়েছে ও ২০১৫ সালে তিনি বিভাগের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছিলেন। স্থানীয় সাংসদ মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবুসহ  সাতক্ষীরা জেলা ও সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, সদর উপজেলা ইউআরসি কর্তৃপক্ষ বিদ্যালয়টি এগিয়ে নিতে সার্বিক সহযোগিতা দিয়ে আসছেন।  সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক আবুল কাসেম মো; মহিউদ্দিন বিদ্যালয়টি সার্বিক উন্নয়নে খোঁজখবর রাখেন ও সহযোগিতা করে থাকেন। সাতক্ষীরার সাবেক জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান ও বর্তমান বিভাগীয় কমিশনার আব্দুস সামাদ বিদ্যালয়ে মানোন্নয়নে সহযোগিতা দিয়ে গেছেন।