সাতক্ষীরার সুন্দরবন ক্লিনিকে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান : ২০ হাজার টাকা জরিমানা


410 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার সুন্দরবন ক্লিনিকে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান : ২০ হাজার টাকা জরিমানা
সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক :
সাতক্ষীরার সুন্দরবন ক্লিনিকে ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় সিজার রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় ওই ক্লিনিকে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে। সোমবার দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালত ও্ অভিযান পরিচালনা করে।

এদিকে, সোমবার বিকেলে পুলিশ ক্লিনিকের মালিক ওবায়দুল ইসলামকে আটক করে। সোমবার সন্ধ্যায় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) সাথে ক্লিনিক মালিকদের মতবিনিময়ের পরে আটককৃত ওবায়দুলকে মুক্তি দেয়। সোমবার ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডট কমসহ কয়েকটি পত্রিকায় ‘সুন্দরবন ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় সিজার অপারেশনের এবার প্রাণ গেল নুর জাহানের’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে প্রশাসন অভিযানে নামে।

জানাগেছে, সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাদিয়া আফরিনের নেতৃত্বে ভ্রাম্যামান আদালত সুন্দরবন ক্লিনিকে অভিযানে নামে। আদালত ক্লিনিকের অব্যস্থাপনা, প্রয়োজনীয় ডাক্তার ও নার্স না থাকাসহ নানা অভিযোগে ২০ হাজার জরিমানা আদায় করে। বিকেলে ওই ক্লিনিকে পুলিশও পৃথক অভিযানে নামে। পুলিশের অভিযানে থাকা এএসআই আব্দুল মালেক জানান, ক্লিনিকের অবস্থা এতটায় খারাপ যে, দেখে ক্লিনিক মনে হয়নি। ক্লিনিক থেকে মালিক ওবায়দুল ইসলামকে আটক করা হয়।

সন্ধ্যায় সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কমকর্তা (ওসি) এমদাদা শেখ তার কার্যালয়ে ক্লিনিক মালিকদের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠকে পুলিশের পক্ষ থেকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে জেলার সকল ক্লিনিকের কাগজপত্র জমা দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। এছাড়া প্রত্যেক ক্লিনিকে ডাক্তারদের ডিউটি রোস্টার রাখার নির্দেশও দেওয়া হয়।

দর থানার ভারপ্রাপ্ত কমকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক শেখ জানান, ক্লিনিক মালিকদের নীতিমালা অনুযায়ী ক্লিনিক পরিচালনা করার জন্য বলা হয়েছে। যাদের বৈধ কাগজপত্র নেই তারা যাতে ক্লিনিক না খোলে সে ব্যাপারে সতর্ক করা হয়েছে ।

সূত্র জানায়, গত ২১ সেপ্টেম্বর সাতক্ষীরা সুন্দরবন ক্লিনিকে নূর জাহানের একটি কন্যা সন্তান হয়। ওই দিন সকালে সিজার করার জন্য তাকে ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সুন্দরবন ক্লিনিকে ডা. শরিফুল ইসলাম ওই রোগীর সিজার করেন এবং অ্যানিস্থেশিয়া প্রদান করেন সদর হাসপাতালের ডাক্তার ডা. আরিফুজ্জামান রানা। অপারেশনে নূর জাহানের কন্যা সন্তান হয়। অপারেশনে অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণ হলেও তা নিয়ন্ত্রণে আনতে পারে নি ডাক্তাররা। ২৩ সেপ্টেম্বর সুন্দরবন ক্লিনিকেই নূর জাহান মারাত্বক অসুস্থ্য হয়ে পড়লে সুন্দরবন ক্লিনিকের ডাক্তার শরিফুল ইসলাম, ডা. আরিফুজ্জামান রানা ও ম্যানেজার আবুল খায়ের তড়িঘড়ি করে ওই রোগীকে খুলনায় পাঠিয়ে দেয়। খুলনা সার্জিক্যালে ভর্তির আগেই রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে নিহতের স্বজনদের অভিযোগ।

বিষয়টি পত্রিকার মাধ্যমে স্থানীয় প্রশাসনের নজরে আসলে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে ভ্রাম্যমান আদালত ওই ক্লিনিকে অভিযানে নামে।