সাতক্ষীরায় আলু মহসীনের দাপট : দাতা বিদেশে, জমি রেজিষ্ট্রি হয় সদর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে !


687 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় আলু মহসীনের দাপট : দাতা বিদেশে, জমি রেজিষ্ট্রি হয় সদর সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে !
এপ্রিল ৯, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

 

খন্দকার আনিসুর রহমান ::
ভূয়া জমির মালিক সাজিয়ে নিজ ব্যাবসায়ী প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীর জমি লিখে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে জামায়াতের অর্থদাতা শেখ মহসীনের বিরুদ্ধে। সাতক্ষীরার জনপ্রিয় অনলাইন পত্রিকা ভয়েস অব সাতক্ষীরাসহ কয়েকটি মিড়িয়ায় এসম্পর্কিত অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ায় এখন শহরের অলোচিত ঘটনার মধ্যে একটি অন্যতম আলোচ্য বিষয় দাতা বিদেশে অবস্থান করা সত্বেও সাতক্ষীরা সদর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে জমি রেজিষ্ট্রি হয়েছে।

সাধারন মানুষের প্রশ্ন, জামায়াতের অর্থ দাতা আলু মহসীনের খুঁটির জোর কোথায় ? তার ক্ষমতার উৎস্য কি ? জানা গেছে সাতক্ষীরা সদর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের দলিল লেখক মজনু ওরফে খোকার মাধ্যমে সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে দলিল টি রেজিষ্ট্রি করা হয়েছে।

এঘটনায় ভুক্তভোগী প্রকৃত জমির মালিক সদর সাব রেজিষ্ট্রারের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। সূত্র জানায়, দহাকুলা মৌজায় জে এল নং- ৯৭ নং খতিয়ান, খতিয়ান নং- এস এ ৭৭৭ নং খতিয়ান খারিজ হতে ৭৭৭/৩/১ নং খতিয়ান, বর্তমান জরিপে ডি.পি- ৩৯৫, নং খতিয়ানে। দাগ নং- সাবেক ২৯৫৮ দাগের হাল ১২৪২ দাগে বাস্ত ৩৬ শতকের মধ্যে ০৫ শতক এর মূল মালিক শহরের বাগানবাড়ী এলাকার আব্দুল মুজিদ সরদারের ছেলে মহাসিন রেজা। গত ১৩/৩/১৬ তারিখে ৫ শতক জমি বড় বাজার আলু মহসীন অন্য এক ব্যক্তিকে ওই সম্পত্তির ভূয়া মালিক সাজিয়ে রেজিষ্ট্রি করে নেই। অথচ ওই সময়ে জমির প্রকৃত মালিক বিদেশে ছিলেন। এদিকে জনপ্রিয় অনলাইন পত্রিকা ভয়েস অব সাতক্ষীরাসহ কয়েকটি মিড়িয়ায় এসম্পর্কিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ায় দৌড় ঝাপ শুরু করেছে আলু মহসীন। সদর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে নিয়মিত ধর্ণা দিচ্ছে তার লোকজন বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য। তার কর্মচারীর সাথে স্থানীয় ভাবে সমঝতা করেও নিয়েছেন বলে জানা গেছে।

এবিষয়ে আলু মহসীন এর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি দেশে নেই বলে জানান জনৈক ব্যক্তি।

দলিল লেখক মজনু এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন দলিল কখনো জাল হয় না। আর আপনি যে অভিযোগ করেছেন তাতে আমার কিছু বলার নেই।

এবিষয়ে সদর সাব-রেজিষ্ট্রার বলেন,বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অভিযোগ প্রমানিত হলে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

এবিষয়ে জেলা রেজিষ্ট্রারের আশু হস্থক্ষেপ কামনা করেছে ভূক্তভোগীরা।