সাতক্ষীরায় ইউপি নির্বাচনে ৭ দলের ১৯৯ চেয়ারম্যান প্রার্থী


339 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় ইউপি নির্বাচনে ৭ দলের ১৯৯ চেয়ারম্যান প্রার্থী
মার্চ ১২, ২০১৬ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক :
ইউপি নির্বাচনে জেলায় দলীয়ভাবে ১৯৯ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী অংশ নিচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধিত ৪১টি দলের বিপরীতে তৃণমূলের এই নির্বাচনে জেলায় ৭টি রাজনৈতিক দল অংশ গ্রহণ করছে। জেলায় ৭৮টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দিলেও গণফোরাম, বিকল্প ধারা, জেএসডি, কমিউনিস্ট পাার্টির মতো দলগুলো কোন প্রার্থী দিতে পারে নি। তবে সবচেয়ে কম মাত্র দুই জন প্রার্থী দিয়েছে বিএনএফ। অন্যদিকে কয়েকটি ইউনিয়নে জামায়াত সমার্থিত প্রার্থীরা স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।
জেলা নির্বাচন অফিসের সূত্র জানান, জেলায় ২২ মার্চ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, জাসদ, ওয়ার্কাস পার্টি, বিএনএফ ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে প্রার্থীরা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীরা দলীয় প্রতীক ব্যবহার করছে। জেলার ৭৮টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৩৪৪ জন অংশ নিচ্ছে। এর মধ্যে মধ্যে আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে ৭৮ জন, বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ৬৬, জাতীয় পার্টি থেকে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে ২৩, জাসদ থেকে মশাল প্রতীক নিয়ে ১১, ওয়ার্কাস পার্টি থেকে হাতুড়ি প্রতীক নিয়ে ৬, বিএনএফ থেকে টেলিভিশন প্রতীক নিয়ে ২ এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে হাতপাখা প্রতীক নিয়ে ১৩ জন নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছে। তবে নির্বাচনে কয়েকটি রাজনৈতিক দলের ১৪৫ বিদ্রোহী প্রার্থী অংশ নিচ্ছে। সূত্র আরো জানায়, আশাশুনি উপজেলায় ১১ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের ১১, বিএনপি’র ১১, জাতীয় পার্টির ২ এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ৬ জন চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছে। আর স্বতন্ত্র আছে ২৩ জন। দেবহাটার উপজেলায় ৫ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের ৫, বিএনপি’র ৪ এবং স্বতন্ত্র আছে ৫ জন প্রার্থী। কালিগঞ্জ উপজেলায় ১২ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের ১২, বিএনপি’র ১০, জাতীয় পার্টির ৪ এবং জাসদের ২ জন চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছে। অন্যদিকে স্বতন্ত্র আছে ১৭ জন প্রার্থী। সদর উপজেলায় ১৪ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের ১৪, বিএনপি’র ১৩, জাতীয় পার্টির ৬, বিএনএফের ১ এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ২ জন চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছে। আর স্বতন্ত্র আছে ১৮ জন প্রার্থী। শ্যামনগর উপজেলায় ১২ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের ১২, বিএনপি’র ৯, জাতীয় পার্টির ৭, জাসদের ২, বিএনএফের ১ এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ৩ জন চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছে। আর স্বতন্ত্র আছে ২০ জন প্রার্থী। কলারোয়া উপজেলায় ১২ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের ১২, বিএনপি’র ১০, জাসদের ৩, ওয়ার্কাস পার্টির ১ এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ১ জন চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছে। আর স্বতন্ত্র আছে ৩৩ জন প্রার্থী। এবং
তালা উপজেলায় ১২ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের ১২, বিএনপি’র ১২, জাতীয় পার্টির ৪, জাসদের ৪, ওয়ার্কাস পার্টির ৪ এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ১ জন চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছে। আর স্বতন্ত্র আছে ২৯ জন।
সূত্র জানায়, জেলায় কয়েকটি রাজনৈতিক দলের কিছু নাম সর্বস্ব নেতা থাকলেও তৃণমূলের এ নির্বাচনে প্রার্থী দিতে ব্যার্থ হয়েছে। জেলায় জেপি, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, বাসদ, গণফোরামসহ বাকী দলগুলো প্রার্থী দেয়নি। জেলার নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন নেতা জানান, বিভিন্ন দলেও জনপ্রিয়তা না থাকায় তারা প্রার্থী সংকটে ছিলো। অন্যদিকে বিভিন্ন দলত্যাগকারী কয়েকজন বিভিন্ন দল করলেও তাদের অনুষ্ঠানে কর্মীর চেয়ে নেতার সংখ্যা থাকে বেশি। ফলে তারা একটি প্রার্থীও দিতে ব্যার্থ হয়েছে। তিনি আরো বলেন, এবার দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হওয়ায় তৃণমূল পর্যায়ে বিভিন্ন দলেও জনপ্রিয়তা জানা সম্ভব হচ্ছে।