সাতক্ষীরায় এক বৃদ্ধার সম্পত্তি দখল চেষ্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন


361 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় এক বৃদ্ধার সম্পত্তি দখল চেষ্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন
অক্টোবর ১৪, ২০১৮ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আদালত, স্থানীয় সাংসদ, জনপ্রতিনিধি ও পুলিশের নির্দেশের তোয়াক্কা না করে ভূমিদস্যু সন্ত্রাসী কর্র্তৃক এক বৃদ্ধার সম্পত্তি অবৈধভাবে দখল চেষ্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার দুপুরে জেলার শ্যামনগরের খোলপেটুয়া গ্রামের নুরুল আমিনের স্ত্রী রাশিদা খাতুন সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলেন, বিগত প্রায় ৪০ বছর পূর্বে আমার স্বামী গাবুরা মৌজায়, জে এল-১২২, খতিয়ান নং- ২৯২,৭৯, ৪০১,০১, দাগ নং- ৬৩৯, ৬৪০, ৬৩১, ৬১৭, ৬২৯, জমির পরিমাণ-০.৫১ শতক ক্রয় করে দীর্ঘদিন ভোগ দখল করে আসছি। ভোগদখল করাকালে ওই সম্পত্তিতে বিভিন্ন ফলজ ও বনজ গাছপালা লাগানো হয়, বাড়িঘর নির্মাণ এবং সম্পত্তির পশ্চিম পার্শ্বে একটি পুকুর কেটে মৎস্য চাষ করে আসছিলাম। পরিবারে পঙ্গু স্বামীসহ ৭ সন্তানের মধ্যে বড় ৪টি সন্তান কন্যা হওয়ায় তারা স্বামীর ঘরে রয়েছে। বাকী ৩টি ছেলে ছোট। এ অসহায়ত্বের সুযোগে আমাদের ওই সম্পত্তির উপর কুনজর পড়ে একই এলাকার মোহাম্মাদ কাগুজীর ছেলে রফিকুল কাগুজী, আজহারুল কাগুজী, মৃত তমিজুদ্দিন কাগুজীর ছেলে নুরু কাগুজী, নুরু কাগুজীর ছেলে আসাদুল আগুজী, আজিজুল কাগুজী, মৃত আহম্মদ কাগুজীর ছেলে আকবর কাগজীসহ কতিপয় ভূমিদস্যুর। আমাদের বড় কোন ছেলে না বা তেমন কোন যোগাযোগ না থাকায় তারা সম্পূর্ণ গায়ের জোরে ওই সম্পত্তি অবৈধভাবে দখলের পায়তারা শুরু করে। এর জের ধরে তারা প্রায় বিভিন্ন হুমকি ধামকি প্রদর্শন করতে থাকে। একপর্যায়ে গত কয়েক বছরপূর্বে তারা আমার স্বামীকে বেধড়ক মারপিট করে তার ডান হাত ভেঙে দিলেও তারা অবৈধ টাকা এবং প্রভাবশালী হওয়ার কারণে এর কোন বিচার হয়নি। এরপর গত ১/৭/১৮তারিখে উলে¬খিত সন্ত্রাসী ব্যক্তিরা বেআইনী জনতায় একতাবদ্ধ হয়ে আমাদের সম্পত্তিতে থাকা পুকুরটি বালি দিয়ে ভরাট করতে থাকে। আমার প্রতিবাদ করতে গেলে তারা অবৈধ অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে তাদের কাজ অব্যাহত রাখে। এদখলের বিষয়ে আমরা মুন্সিগঞ্জ র‌্যাবÑ৬ ক্যাম্পের ইনচার্জ বরাবর অভিযোগ করলে তিনি সংশি¬ষ্ট চেয়ারম্যানকে বিষয়টি দেখার নির্দেশ দেন। কিন্তু তারা চেয়ারম্যানের নির্দেশ অমান্য করে। এরপর স্থানীয় সংসদ সদস্য এস এম জগলুল হায়দারের কাছে অভিযোগ দিলে তারা নির্দেশও তারা মানেনি। এরপর আমার উপায়ন্তর হয়ে সাতক্ষীরা অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করি। আদালত উক্ত সম্পত্তিতে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে পুলিশকে নির্দেশ দেন। আদালতের নির্দেশ মোতাবেক শ্যামনগর থানা পুলিশের এক এস আই তাদের উক্ত সম্পত্তিতে না যাওয়ার এবং শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য নির্দেশ দিলেও ওই সন্ত্রাসীরা সে নির্দেশ না শুনে পুকুর ও সম্পত্তি দখলের উদ্দেশ্যে একটি ঘর নির্মাণ শুরু করে। সকল কাগজপত্র এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, আদালতসহ সংশি¬ষ্ট সকলেই আমাদের পক্ষে থাকলেও আমার লোকবল না থাকায় তাদের লাঠি ও অস্ত্রের মুখে অসহায় হয়ে পড়েছি। সম্পূর্ণ গায়ের জোরে তারা ওই সম্পত্তি দখলের প্রক্রিয়া চালাচ্ছে।
তিনি আরো বলেন, তারা এতটাই হিংস্র ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির যে এলাকাবাসী সকলেই তাদের কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে থাকলেও ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পায় না। আমরা এতটাই অসহায় হয়ে পড়েছি যে রাতে ঘরের বাইরেও বের হতে পারি না। বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীতার মধ্যে বাড়িতে বাসবাস করছি।
এব্যাপারে দখলদার বাহিনীর হাত থেকে স্বামীর সম্পত্তি রক্ষা এবং নিজেদের জীবনের নিরাপত্তার দাবিতে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ সংশি¬ষ্ট কর্র্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
##