সাতক্ষীরায় এক ব্যবসায়ীর সংবাদ সম্মেলন


396 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় এক ব্যবসায়ীর সংবাদ সম্মেলন
ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৯ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::

সাতক্ষীরায় দশ লাখ টাকা চাঁদা দাবিতে সন্ত্রাসীরা এক ব্যক্তির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসত বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন পাটকেলঘাটা থানার কাটাখালী গ্রামের মৃত বজিয়ার রহমানের ছেলে মোঃ ইমাদুল ইসলাম।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০১২ সালের ১ ফেব্রুয়ারী চলন্তিকা যুব সোসাইটি (রেজিঃনং কে ১১০/০৪, প্রধান কার্যালয় চৌধুরী ভিলা, ১ম তলা, রোড নং-৬, বাড়ি নং-৩১, সোনাডাঙ্গা আ/এ খুলনা) তে মাঠকর্মী হিসাবে কর্মতে ছিলাম। ২০১৭ সালের ১ ফেব্রুয়ারী সহঃ ম্যানেজার হিসাবে পদোন্নতি পাই। একই ব্যক্তি দুই পদে চাকুরি করতে পারবে না এই অযুহাতে ওই বছরের ৩১ ডিসেম্বর পুনরায় মাঠকর্মী হিসাবে আমার পদ নির্ধারণ করা হয় এবং ২০১৮ সালের ২৭ মার্চ মাঠকর্মী হিসাবে ধানদিয়া ও সাগরদাড়ি শাখার ম্যানেজারের কাছে হিসাব বুঝে দেই। এরপর ২০১৮ সালের ১৭ এপ্রিল সংস্থাটি দেউলিয়া হয়ে যায়। এই সুযোগে আমার সহকর্মী কাটাখালী গ্রামের কাশেম মল্লিকের ছেলে শাহিনুর রহমান, দাউদ খার ছেলে শামীম খা, ধানদিয়া গ্রামের মদন মহোন চক্রবর্তীর স্ত্রী শিখা রানী চক্রবর্তী ও তার ছেলে সৌরভ চক্রবর্তীসহ একটি সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসী চক্র আমার কাছ থেকে জোরপূর্বক ১০০ টাকা মূল্যমানের ৬টি নন জুডিশিয়াল স্টাম্পে স্বাক্ষর করে নেয়। এসময় আমাকে উদ্ধার করতে যাওয়া আমার দুই ভাইয়ের কাছ থেকেও টিপসহি করে নেয় তারা।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, এঘটনার পর আমি স্টাম্প উদ্ধারে মামলা দায়ের করলে উল্লেখিত সন্ত্রাসীরা দশ লাখ টাকা চাঁদা দাবিতে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসত বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করে। এসময় তারা নগদ টাকা, স্বর্ণলংকার, দোকানের মালামালসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে যায়। তারা স্থানীয় মেম্বর ও থানা পুলিশের নাম করে আমার পরিবারের লোকজন ও স্বাক্ষীদের উপর চাপ প্রয়োগ করছে। স্বাক্ষীদেরকে মিথ্যে মামলা ও জীবন নাশের হুমকি দিচ্ছে। একই সাথে মামলায় হাজিরা না দিতে আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে। চলাচলের পথে আমাকে তারা মেরেও ফেলতে পারে। তিনি সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রধানমন্ত্রী , স্বরাষ্টমন্ত্রী, আইজিপি, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, দুর্নীতি দমন কমিশনসহ বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছেন।
তিনি সন্ত্রাসী বাহিনীর হাত থেকে নিজের ও পরিবারের সদস্যদের জীবনের নিরাপত্তার দাবিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

#