সাতক্ষীরায় এক ভূমিহীন পরিবারের সংবাদ সম্মেলন


360 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় এক ভূমিহীন পরিবারের সংবাদ সম্মেলন
জানুয়ারি ২, ২০১৭ আশাশুনি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
সাতক্ষীরায় ভূমিদস্যুদের কবল থেকে বন্দোবস্তকৃত সম্পত্তি উদ্ধার ও হয়রানি মূলক মামলা থেকে রক্ষা পাওয়ার দাবি জানিয়েছেন এক ভূমিহীন পরিবারের সদস্য। সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এলাকার ভূমিহীনদের পক্ষে এই দাবি জানান জেলার আশাশুনি উপজেলার শ্রীপুর গ্রামের ওয়াজেদ আলী গাজীর ছেলে ভূমিহীন মোঃ আব্দুর রশিদ গাজী।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, নদী ভাঙ্গনে পৈত্রিক সম্পত্তি বিলিন হওয়ার পর তারা এলাকার ১৪টি পরিবার ভূমিহীন হয়ে পড়ে। সর্বস্ব হারিয়ে তারা ১৪টি পরিবার প্রতাপনগর ইউনিয়নের শ্রীপুর মৌজার ২৩ দশমিক ৯৩ একর সরকারি খাস জমির মধ্যে ১০ একর জমি বন্দোবস্ত গ্রহণ করেন। তারা এই ১০একর জমি খাজনা পরিশোধ করেন এবং ভূমিহীনদের নামে মিউটেশন করা রয়েছে। কিন্তু কুড়িকাউনিয়া এলাকার ভূমিদস্যু রফিকুল ইসলাম (বুলি), নজরুল ইসলাম, সারফুল্লাহ, সিরাজুল ইসলাম, শ্রীপুর এলাকার রশিদ মোল্যা, রেজাউল সালাম ও দ্বীন মোহাম্মাদ গং প্রত্যেকে ১ একর জমি ডিসিআর নিয়ে ৪/৫ একর জমি ভোগদখল করে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে। এছাড়া ভূমিহীন পরিবারের লোকদের উপর নির্যাতন চালাচ্ছে।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, তাদেরকে সর্বশান্ত করার জন্য ভূমিদস্যুরা গতবছর সাতক্ষীরা এডিএম কোর্টে হয়রানিমূলক একটি মামলা দায়ের করে। আদালত মামলাটি আশাশুনি উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) বরাবর তদন্তের নির্দেশ দেন। এসময় সহকারি কমিশনার দেবাশীষ চৌধুরী অভিযোগটি মিথ্যে বলে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। কিন্তু ভূমিদস্যুরা আবারও হয়রানি করার জন্য বিভাগীয় কমিশনার, খুলনাসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছে। তিনি বলেন, নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে সর্বস্ব হারিয়ে তারা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এখন মানবতের জীবন যাপন করছে। বন্দোবস্তকৃত জমি ফেরত চাইলে ভূুমিদস্যুরা হুমকি দিয়ে বলে, জমিতে আসলে তাদের লাশ বানিয়ে ছাড়বে। বিষয়টি সহকারি কমিশনার (ভূমি) অশাশুনিকে অবহিত করলে একটি সভায় তিনি ভূমিহীনদের জমি বুঝিয়ে দেয়ার কথা বলেন। কিন্তু এরপরও তাদের জমি ফেরতের ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। ফলে স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে বর্তমানে তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।
তিনি ভূমিদস্যুদের কবল থেকে বন্দোবস্তকৃত সম্পত্তি উদ্ধার, ভমিহীনদের বিরুদ্ধে করা হয়রানি মূলক মামলা থেকে অব্যহতি ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।