সাতক্ষীরায় এক মহিলার সংবাদ সম্মেলন


319 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় এক মহিলার সংবাদ সম্মেলন
জুন ৫, ২০১৮ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::
সাতক্ষীরায় পুলিশের সহযোগিতায় তাঁতীলীগের ভাড়াটিয়া বাহিনী কর্তৃক এক মহিলার সম্পত্তি দখল, বাড়ি ঘর ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। শহরের পলাশপোল এলাকার হারুন সরদারের মেয়ে মোছাঃ ছালেহা খাতুন মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন।
লিখিত বক্তব্যে ছালেহা খাতুন বলেন, সাতক্ষীরার পলাশপোল মৌজায় জে.এল-৯৪, সি.এস ২৬৪৫ এবং এস.এ ২৫৮০ ও ২৫৭৯ খতিয়ানের ১১৩৫৯ দাগে ৬৯ শতক সম্পত্তি তৃতীয় মুনসেফী আদালতে ডিগ্রি প্রাপ্ত হয়ে বংশ পরষ্পরায় বসত বাড়ী নির্মাণ করে দীর্ঘদিন ধরে ভোগ দখলে আছি। সম্প্রতি পলাশপোল এলাকার মৃত মনিরুল ইসলাম খানের ছেলে বাপ্পী খান, দিপু খান, মৃত নুর আহম্মদ খানের ছেলে মঞ্জুরুল ইসলাম খান, রবিউল ইসলাম খান, শরিফুল ইসলাম খান ও ছবিউল ইসলাম খান ওই সম্পপ্তি অবৈধভাবে দখলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠে। এবিষয়ে সাতক্ষীরা জেলা যুগ্ম জজ ২য় অদালতে একটি মামলা চলমান রয়েছে। এর পরও আদালতের আদেশ অমান্য করে গত ৩০ এপ্রিল ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের নিয়ে তারা আমার বাড়িতে হামলা চালায় এবং বাড়ি ছেড়ে না গেলে খুন জখমের হুমকি দিয়ে যায়। এঘটনার পর গত ৮ মে পুলিশ সুপার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিলে তিনি তদন্ত পূর্বক আইন গত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সদর থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো আমার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। এর জের ধরে গত ৬ জুন ভোর ৬টার দিকে হত্যা মামলার আসামী সৈয়দ হাসান ইমামের নেতৃত্বে ফিরোজ, ওবায়েদ, জামায়াত নেতা সামছুর, নুর জাহান সাদিয়া, আকাশ, তৌহিদ খাসহ দুই শতাধিক ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী আমার বাড়িতে হামলা করে। আমি বাধা দিতে গেলে তারা আমাকে মারপিট করে। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে উল্টো আমাকে টেনে হিচড়ে গাড়িতে তুলে থানায় এনে সকাল ৮ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত আটকে রাখে। এদিকে সন্ত্রাসীরা আমার বাড়িঘর ভাংচুর করে নগদ ৫ লাখ ২৫ হাজার টাকা, সাড়ে সাত ভরি ওজনের সোনার গহনাসহ প্রায় ২ কোটি টাকা মূল্যের মালামাল লুটপাট করে ও ওই সম্পত্তি দখল করে নেয়। রাত ১০ টায় পুলিশ আমাকে ছেড়ে দিয়ে বলে আদালতের রায় পেলে আসবে। এখন তুই সেখানে আর থাকতে পারবি না। অথচ বিগত ৩০ বছর ধরে আমি পরিবার পরিজন নিয়ে ওই সম্পত্তিতে বসবাস করছি। পুলিশ বাপ্পী খান গংদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে সন্ত্রাসীদের দিয়ে আমার দখলীয় সম্পত্তি থেকে আমাদের উচ্ছেদ করে তাদের দখল করিয়ে দিয়েছে। এখন স্বামী সন্তানদের নিয়ে গত দুই দিন ধরে পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছি। তিনি সন্ত্রাসী বাহিনীর হাত থেকে পৈত্রিক সম্পত্তি উদ্ধারের দাবিতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

##