সাতক্ষীরায় এক সংখ্যালঘু পরিবারকে উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র


428 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় এক সংখ্যালঘু পরিবারকে উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র
নভেম্বর ১, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার  :
সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ব্রহ্মরাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদর থানা বিএনপির সাধারন সম্পাদক শহীদুল ইসলামের বিরুদ্ধে জামায়াত-শিবিরের পক্ষ নিয়ে এক সংখ্যালঘুর বাড়ির প্রাচীর নির্মাণে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন ব্রহ্মরাজপুরের মৃত দিলীপ কুমার মল্লিকের ছেলে অনুপ কুমার মল্লিক।

এ সময় তিনি তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, ব্রহ্মরাজপুর বাজারে আমাদের পৈত্রিক ভিটা রয়েছে। আমাদের ভিটাবাড়ির পাশে মাটিয়াডাঙ্গা গ্রামের মৃত আরিফ সরদারের ছেলে আব্দুল মালেক ১০ বছর পূর্বে ব্রহ্মরাজপুর গ্রামের মৃত শশীভূষণ সাহার ছেলে জগন্নাথ সাহার জমি ক্রয় করেন। ওই জমি বিক্রির আগে জগন্নাথ সাহার সাথে পথ নিয়ে আমাাদের বিরোধ ছিল। ওই বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য ২০০৩ সালে তৎকালীন ও বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা শহীদুল ইসলাম শালিসী বৈঠক করেন। যার একটি শালিসনামাও রয়েছে।
শালিসনামা অনুযায়ী ৩০/১০/১৬ তারিখ রোববার সকালে আমরা (অনুপ কুমাররা) ভিটেবাড়ির প্রাচীর নির্মাণ করতে গেলে চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জামায়াত-শিবিরের অর্থ যোগানদাতা আব্দুল মালেকের পক্ষ নিয়ে প্রাচীর নির্মাণের কাজে বাধা দেন। এসময় চেয়ারম্যানের সাথে থাকা দহকুলা গ্রামের জামালউদ্দিনের ছেলে জামায়াত নেতা আব্দুল আজিজ ও জাহানাবাজ গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে শওকত হোসেন কাজ বন্ধ করে দিয়ে তাকে সংখ্যালঘু বলে হুমকি-ধামকি দেন এবং বলেন, ‘এখানে থাকবি, নাকি ইন্ডিয়া যাবি।’
তিনি অভিযোগ করে আরো বলেন, আমরা যাতে আমাদের ভিটেবাড়িতে বসবাস করতে না পারি, সেজন্য প্রতিপক্ষরা আমাদের সাথে অশোভন আচরণ করছেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি তাদের ভিটেবাড়ি থেকে উচ্ছেদের ষড়যন্ত্রের হাত থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। সংবাদ সম্মেলনে এ সময় তার সাথে আরো উপস্থিত ছিলেন, ব্রহ্মরাজপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক মাহমুদ হোসেন লিটন ও ৭ নংওযার্ড যুবলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম।