সাতক্ষীরায় করোনা আক্রান্তের হার ৫৫ ভাগ, উপসর্গে ৩ জনের মৃত্যু


240 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় করোনা আক্রান্তের হার ৫৫ ভাগ, উপসর্গে ৩ জনের মৃত্যু
জুন ৮, ২০২১ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর স্বাস্থ্য
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
করোনা সংক্রমনরোধে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন ঘোষিত সাতদিনের লকডাউনের চতুর্থ দিন পালিত হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় নমুনা পরীক্ষা করে ১৮৭ জনের মধ্যে ১০৩ জনের করোনা পজেটিভ ধরা পড়েছে। এছাড়া গত ২৪ ঘন্টায় সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা উপসর্গে আরও ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। সর্বশেষ তথ্য মতে সাতক্ষীরা করোনা আক্রান্তের হার ৫৫ ভাগ।

সাতক্ষীরা জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, সাতক্ষীরায় ৪১০ জন করোনা পজেটিভ রোগি রয়েছে। এরমধ্যে ৫৫ জন সাতক্ষীরা বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। বাকীরা বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, যারা বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছে তাদের অধিকাংশই স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে অনেকেই বসবাস করছে , চলাফেরা করছে। স্বাস্থ্য বিভাগ বিষয়টি তেমন গুরত্ব দিচ্ছে না। কঠোরতা না থাকায় রোগিরাও ইচ্ছে মতো ঘুরাফেরা করছে।

সাতক্ষীরা জেলা শহরে সাধারন মানুষ কিছুটা লকডাউন পালন করলেও গ্রামের দৃশ্য একেবারেই ভিন্ন। গ্রামের মানুষ লকডাউন মানছে না। তারা মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। গ্রামের হাটবাজারে স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই সবাই চলাফেরা করছে।

লকডাউনের বাধা নিষেধের কারণে জেলা শহরে পুলিশ চেকপোস্ট বসিয়ে চলাচল নিয়ন্ত্রন করা হচ্ছে। তাদের মাঝে বিতরন করা হচ্ছে মাস্ক। সব গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। বানিজ্যিক কাজে নিয়োজিত যানবাহন চলছে। নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য কেনাবেচার সুযোগ রয়েছে সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত। লকডাউনের মধ্যে ওষুধ ফার্মেসী, অ্যাম্বুলেন্স, হাসপাতাল, ক্লিনিক, বিদ্যুৎ জ¦ালানি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্ট বসিয়ে খুলনা ও যশোর যাতায়াতের পথ বন্ধ রাখা হয়েছে। ভোমরা স্থল বন্দরে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে আমদানি রফতানি বানিজ্য স্বাভাবিক রাখা হয়েছে। তবে ভারতীয় চালক ও হেলপাররা যাতে খোলামেলা ঘুরে বেড়াতে না পারেন সে জন্য পুলিশ ও বিজিবির নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে।

#