সাতক্ষীরায় গরমে বেড়েছে পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ তালের শাঁস বিক্রি


94 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় গরমে বেড়েছে পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ তালের শাঁস বিক্রি
মে ১৮, ২০২২ কলারোয়া ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান ::

গরমকালে পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ একটি ফলের নাম হলো তালের শাঁস। প্রচন্ড গরমে শহর ও গ্রামের মানুষের কাছে এ ফলটি খুবই প্রিয়। বৈশাখ থেকে জৈষ্ঠ্যে মাসের অর্ধেক পর্যন্ত এ দেড় মাস চলে তালের শাঁস বিক্রির কাজ। বিক্রিতারা স্থায়ীভাবে এ গুলো সংগ্রহের পাশাপাশি দেশের নানা জায়গা থেকে আমদানিও করেন। এ ফল খেতে শুধু সুস্বাধু নয়, এতে রয়েছে অবিশ্বাস্য পুষ্টিগুণ ও স্বাস্থ্যের উপকারিতা। তালের শাঁসের গুনাগুন সম্পর্কে পুষ্টিবিদদের মতে, ১০০ গ্রামের একটি তালের শাঁসের ৯২.৩ শতাংশই থাকে জলীয় অংশ, ক্যালরি থাকে ২৯, শর্করা ৬.৫ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৪৩ মিলিগ্রাম, খনিজ ০.৫ মিলিগ্রাম ও ভিটামিন সি থাকে ৪ মিলিগ্রাম। মৌসুমি ফল হিসেবে তাল শাঁস মানব দেহকে বিভিন্ন রোগ থেকে দুরে রাখে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
বুধবার (১৮ মে) সরেজমিনে সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার পৌর সদর, উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজার, গ্রাম গঞ্জের মোড়. রাস্তাঘাট,বাসস্টান্ডসহ বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে দেখা গেছে, সুস্বাধু এ ফলটির বিক্রিতারা হাঁসুয়া বা ধারলো দ্যা দিয়ে তাল কেটে তালের শাঁস বের করছেন আর ক্রেতারাও অনেক আগ্রহ নিয়ে এগুলো কিনছেন। মৌসুমি অনেক ফলের সাথে এ ফলের কদর বেড়েছে। যার ফলে বিভিন্ন শ্রেণির পেশার মানুষকে খেতে দেখা যায় এ সুস্বাধু তালের শাঁস।
কলারোয়া বাজারের হাইস্কুল মার্কেটের সামনে তালশাঁস বিক্রেতা আব্দুল হাই বলেন, তাল যখন কাঁচা থাকে,তখন বাজারে এটা পানি তাল হিসেবেই বিক্রি হয়। কেউ বলে তাল শাঁস আবার কেউ বলে তালের চোখ, কেউ বলে তালকুরা।
তিনি বলেন, প্রতিটি তালের ভিতর দুই থেকে তিনটি শাঁস থাকে এবং প্রতিটি তাল গড়ে ৮ থেকে ১২ টাকায় বিক্রি হয়। প্রতিটি তালের পাইকারি কেনা দাম ৫ থেকে ৬ টাকা। গরম পড়লে তালের শাঁস অনেক বেশী বিক্রি হয়। প্রতি বছর আমি এ মৌসুমে তালের শাঁস বিক্রি করে থাকি।
তিনি আরো বলেন, প্রতিদিন তিনি ৫ থেকে ৬ শতাধিক তাল কেটে বিক্রি করেন। এ বছর প্রচন্ড তাপদাহে মানুষ শরীরের ক্লান্তি দুর করতে তালের মাঁস খাচ্ছেন। গত কয়েক বছরের তুলতায় এ বছর বেশী বিক্রি হচ্ছে।
তাল শাঁস কিনতে আসা তাসলিমা খাতুন, জাহাঙ্গীর হোসেনসহ কয়েকজন জানান, অনেক ফল যখন ফরমালিনের বিষে নীল, তখন তালের শাঁসে ফরমালিনের ছোয়া লাগেনি। এ জন্য প্রতি বছর আমরা ও আমাদের পরিবারের সকলে খায়। এগুলো খেতে নরম ও সুস্বাধু এবং শরীরের জন্য খুবই পুষ্টিকর।

#